নবীগঞ্জে ঋণের বোঝা মাথায় রেখেই দাফন করা হলো নফিছ মিয়াকে

নবীগঞ্জে ঋণের বোঝা মাথায় রেখেই দাফন করা হলো নফিছ মিয়াকে

নিজস্ব প্রতিনিধি: নবীগঞ্জে ঋণের বোঝা মাথায় রেখেই দাফন করা হলো নফিছ মিয়াকে। ২১ ফেব্রুয়ারী বিকাল ৪টার দিকে ঘটনাটি ঘটে। জানাযার নামাজের পূর্বে তার বাড়ীতে উপস্থিত হয়ে ৭ লাখ ২৯ হাজার টাকা পাওনাদার মৌলভীবাজার শহরের এ্যারো ওয়ার্ল্ড ট্রাভেলস এর মালিক মাহবুব এফ আনোয়ার তার প্রাপ্য টাকার বিষয়টি নিষ্পত্তির অনুরোধ জানালে, নফিছ মিয়ার দুই পুত্র ফয়ছল ও অলিসহ স্বজনরা ইউপি চেয়ারম্যানসহ উপস্থিত লোকজনের সামনেই পাওনাদারের সাথে উত্তেজনামূলক ও মারমুখী আচরণ করে এবং নফিছ মিয়াকে ঋণমুক্ত না করেই দ্রুত জানাযা ও দাফন সম্পন্ন করে। ফলে, ঋণের বোঝা মাথায় নিয়েই কবরস্থ হতে হয় নফিছ মিয়াকে।

ঘটনার বিবরণে প্রকাশ- হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার ১০নং দেবপাড়া ইউনিয়নের প্রজাতপুর গ্রামের লতিফ মিয়া ওরফে নফিছ মিয়া মৌলভীবাজার শহরের এ্যারো ওয়ার্ল্ড ট্রাভেলসের স্বত্ত্বাধিকারী মাহবুব এফ আনোয়ারের মাধ্যমে তাজমহল ট্রাভেলস এর হজ্ব লাইসেন্সের অধীনে ২০১৩-১৪ সালে ওমরা হজ্ব পালণ করতে সৌদি আরবে যান।

মাহবুব এফ আনোয়ারের ২৯ হাজার টাকা বকেয়া রেখে নফিছ মিয়া ওমরা হজ্ব সম্পন্ন করে দেশে না ফিরে পলাতক হয়ে যান। ওমরা হজ্বে গিয়ে নফিছ মিয়া দেশে না ফিরে পলাতক হবার কারণে তাজমহল ট্রাভেলসকে সৌদি আরবের হজ্ব ব্যবস্থাপনা কর্তৃপ বরাবর ৭ লাখ টাকা জরিমানা পরিশোধ করতে হয় এবং নিয়মানুযায়ী, নফিছ মিয়া পলাতক হবার কারণে জরিমানার ওই ৭ লাখ টাকা মাহবুব এফ আনোয়ার কর্তৃক তাজমহল ট্রাভেলসকে পরিশোধ করতে হয়।

এ ঘটনার ৭/৮ মাস পর নফিছ মিয়া দেশে ফিরে আসার খবর পেয়ে মাহবুব এফ আনোয়ার তার সাথে যোগাযোগ করে ৭ লাখ ২৯ হাজার টাকা দাবী করেন। এ নিয়ে নফিছ মিয়া দুই পুত্র ফয়ছল ও অলিসহ অন্যান্য স্বজনদের সাথেও দীর্ঘ আলাপ-আলোচনা  নানা টালবাহানার মাধ্যমে সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন। পর্যায়ক্রমে বিষয়টি দেবপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান, সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার ও এলাকার লোকজনও অবহিত হন। ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি সামাজিকভাবে নিষ্পত্তির জন্য বার বার চেষ্টা করলেও, নফিছ মিয়া দীর্ঘ প্রায় ৩ বছর যাবৎ একের পর এক নানা টালবাহানার মাধ্যমে সময়ক্ষেপণ করতে থাকা অবস্থায় গত ২১ ফেব্রুয়ারী সকাল ৯টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন।

এ খবর পেয়ে ৪ জন স্বজন ও শুভাকাংখীসহ মাহবুব এফ আনোয়ার জানাযার নামাজের পূর্বে প্রজাতপুর গ্রামের নফিছ মিয়ার বাড়ীতে উপস্থিত হয়ে তার প্রাপ্য টাকার বিষয়টি নিষ্পত্তির অনুরোধ জানান। এসময় বাড়ীর উঠানে রাখা নফিছ মিয়ার লাশের পাশে দেবপাড়া ইউপি চেয়ারম্যানসহ অনেক লোকজন উপস্থিত ছিলেন। ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি শুনে উপস্থিত নফিছ মিয়া দুই পুত্রসহ স্বজনদেরকে তা নিষ্পত্তির অনুরোধ জানান। কিন্তু, ছুরুক উল্যার দুই পুত্র ফয়ছল ও অলিসহ স্বজনরা ইউপি চেয়ারম্যানসহ উপস্থিত লোকজনের সামনেই পাওনাদার আনোয়ার এফ রহমানের সাথে উত্তেজনামূলক ও মারমুখী আচরণ করে এবং মৃতঃ ছুরুক উল্যাকে ঋণমুক্ত না করেই দ্রুত জানাযা ও দাফন সম্পন্ন করে। ফলে, ঋণের বোঝা মাথায় নিয়েই কবরস্থ হতে হয়েছে নফিছ মিয়াকে। নিয়তির কি নির্মম পরিহাস, এই নফিছ মিয়ার পারিবারিক স্বচ্ছলতা ও সহায়-সম্পদ থাকা সত্তেও তার ঋণের দায়ভার গ্রহণ করেনি স্ত্রী-সন্তান-স্বজনরা কেউই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com