সংবাদ শিরোনাম :
দশ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী বাহুবলে বেকারিতে অনুমোদনবিহীন বিএসটিআই লোগো ব্যবহার ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু হবিগঞ্জ এসে পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শীতবস্ত্র হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমেছে ১৭.৯৬ শতাংশ, ফেল বেশি মানবিকে : হবিগঞ্জে পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির  সভা অনুষ্ঠিত  মাধবপুরে নবাগত ইউএনওর মতবিনিময় সভা  মৎস্য কর্মকর্তার ডিজিটাল আইনের মামলায় দুই সাংবাদিকের জামিন মঞ্জুর
নবীগঞ্জে আলোচিত সবজি বিক্রেতা লিটন হত্যাকান্ড ! গ্রেফতারকৃত জিলকার আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি

নবীগঞ্জে আলোচিত সবজি বিক্রেতা লিটন হত্যাকান্ড ! গ্রেফতারকৃত জিলকার আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জে আলোচিত সবজি ব্যবসায়ী লিটন মিয়া (৪৮) হত্যা মামলার গ্রেফতারকৃত আসামী জিলকার মিয়া ওরপে দিলকার শুক্রবার (১১ নভেম্বর) বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন। ২ দিনের রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে হাজির করলে সে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে। এছাড়া মামলার প্রধান আসামী দু’সহোদর জুবেল মিয়া ও রুবেল মিয়াকে শুক্রবার বিজ্ঞ আদালতে হাজির করলে তাদের জেলহাজতে প্রেরন করা হয়।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের মধ্যসমত গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের পুত্র লিটন মিয়া ইনাতগঞ্জ বাজারের প্রতিষ্টিত সবজি ব্যবসায়ী। ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে ব্যবসা বন্ধ করার পর আর বাড়ি ফিরেনি। নিখোজের ৩ দিন পর ১৭ সেপ্টেম্বর সকাল ৭টায় নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের কসবা গ্রামের ভিতর দিয়ে বিবিয়ানা নদীতে (মরা নদী) স্থানীয় লোকজন ভাসমান অবস্থায় লিটন মিয়ার লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ডালিম আহমেদ, ইনাতগঞ্জ ফাঁড়ির ইনচার্জ কাওসার আলমসহ একদল পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌছে লাশ উদ্ধার করেন। এ ব্যাপারে বিগত ২০ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে নবীগঞ্জ থানায় ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা নং ১৬, তাং ২০-০৯-২০২২ইং দায়ের করেন নিহতের ভাই সালেহ আহমদ। এদিকে মামলা দায়ের করার ৪১ দিন এবং ঘটনার ৪৪ দিন পর বর্তমান তদন্ত কর্মকর্তা নবীগঞ্জ থানার এসআই রাজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এবং অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ডালিম আহমদের দিক নির্দেশনায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তথ্য প্রযুক্তি ও বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে প্রাপ্ত সুত্রধরে মামলার প্রধান আসামীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ফলে সবজি ব্যবসায়ী হত্যাকান্ডের মামলার এজাহার নামীয় সকল আসামীই পুলিশের কাচাঁয়। আসামী জিলকার মিয়া ওরপে দিলকার মিয়াকে পুলিশ আদালতে প্রেরন করেন ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। বিজ্ঞ আদালত ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ২ দিনের রিমান্ড শেষে শুক্রবার (১১ নভেম্বর) জিলকার মিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সিফাত উল্লার আদালতে হাজির করলে সে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি প্রদান করে। এতে গুরুত্বপুর্ণ অনেক তথ্য, হত্যাকান্ডে সংশ্লিষ্টতার নাম এবং ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দেয়। তদন্তের স্বার্থে তা প্রকাশ করতে অপারকতা প্রকাশ করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজিবুর রহমান। এছাড়া ৯ই নভেম্বর রাতে বান্দরবন (রাঙামাটি) থেকে মামলার প্রধান আসামী দু’ সহোদর একই গ্রামের কাছু মিয়ার ছেলে রুবেল মিয়া (৩০), জুবেল মিয়া (২৮)কে গ্রেফতার করা হয়। শুক্রবার সকালে তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরন করা হয়েছে। মামলার বাদী সালেহ আহমদ অভিযোগ করে বলেন, ইনাতগঞ্জ ইউপি মেম্বার দেলোয়ার হোসেন দিলবার ঘটনার আগ মুহুর্তে স্থানীয় মুছি বাড়ী গিয়ে নিহত লিটন মিয়াকে নিয়ে মদ্যপান করেন। ফলে হত্যাকান্ডের সাথে ওই মেম্বারের হাত থাকতে পারে। এ ব্যাপারে পুলিশের দৃষ্টি কামনা করছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com