নবীগঞ্জের পল্লী বিদ্যুতের ভূতরে বিল আর প্রতারণা ফাঁদে গ্রাহক

নবীগঞ্জের পল্লী বিদ্যুতের ভূতরে বিল আর প্রতারণা ফাঁদে গ্রাহক

নবীগঞ্জের পল্লী বিদ্যুতের ভূতরে বিল আর প্রতারণা ফাঁদে গ্রাহক
নবীগঞ্জের পল্লী বিদ্যুতের ভূতরে বিল আর প্রতারণা ফাঁদে গ্রাহক

ফরিদ আহমদ শিকদার: হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার পল্লী বিদ্যুতের বিলের প্রতারনার ফাঁদে এখন প্রতিটি গ্রাহক । গ্রাহকদের মধ্যে ক্ষোভ আর হতাশা বিরাজ করছে প্রতিনিয়ত। একদিকে লোডসেডিং এর ভেলকিভাজির সাথে ভূতরে বিলের প্রতারনা নামক নাটক যোগ হয়েছে । গত দুই মাস থেকে প্রতিটি গ্রাহকের বিল এসেছে তিন থেকে চার গুন। নবীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে আসা প্রায় ৫০জন গ্রাহকের একিই বক্তব্য এমন ভুতরে বিলের বিল তৈরী করার জন্য বছরে এক থেকে দুইবার করে ভুত আসে নবীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে। আর এই প্রতিটি দূর্নীতির শিকার হয়ে অতিরিক্ত জরিমানা গুনতে হচ্ছে গ্রাহকদের এবং যাতায়ত খরচত ১৫০ থেকে ২০০ টাকা রয়েছেই । প্রতিটি মিটারের মূল বিলের সাথে বকেয়া বিলের সংযোগত আছেই । অতচ গ্রাহকরা বকেয়া বিল সহ মূল বিল পরিশোধ করার পরেও পরবর্তী যতটি বিল আসে তার সাথে ও পূর্ববর্তী বকেয়া বিলটি উল্ল্যেখ করে নতুন বিল তৈরী করা হয়। এতে গ্রাহকদের কাছ থেকে এক বিলের বকেয়া নেয়া হচ্ছে প্রতিটি নতুন বিলের সাথে। নবীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ অফিসে বিল দিতে আসা গ্রাহকদের এমন অভিযোগ জানা যায় যে, প্রত্যেকই এসেছেন চলিত বিলের সাথে বকেয়া বিলের সমস্যা নিয়ে। গ্রাহকরা জানান,বিল পেিশাধ করার পরও বকেয়া বিল সংযোগ করে দেয়ার কারনে অফিসে আসতে হচ্ছে। ৩নং ইনাতগঞ্জ ইউপি আসা যুবক রবেল জানান তার গত মাসের বিল পরিশোধ করা আছে অথচ চলিত মাসের সাথে বকেয়া সংযোগ করার কারনে আরও ১৫০ টাকা যাতায়াত খরচ করতে হল পল্লী বিদ্যুতের প্রতারণার কারনে। ১নং ইউপিতে আসা শমিরন দাশ বলে আমার দুইাটি রুমে এবং রান্না ঘর নিয়েে তিনটি ভাতি আর একটি পাখা আছে ,সেই অনুযায়ী অণ্য মাসে বিল আসত ২০০ থেকে ২২০ টাকা এখন দুই মাস ধরে আসছে ৮০০ টাকা করে ।৬নং ইউ পি থেকে আসা রহিমা বেগম বলেন পাচঁ বছর ধরে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছি সব সময় ২০০ থেকে ২৫০ টাকার মধ্যে বিল আসত কিন্তু এই দুই মাস ধরে ৯০০ থেকে ১০০০ বিল আসছে। অফিসে আসা সব গ্রহকদের এমন ভুতরে বিলের অভিযোগ ছিল মুখে মুখে।এহেন লাগামহীন দূর্নীতির অবসান কবে হবে জানতে যায় গ্রহকরা।আবার অনেকেই বিদ্যুৎ বিলের জামেলায় পরে জরিমানা গুনতে হচ্ছে প্রতি বিলের সাথে। সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকায় জনসাধারন এবং বিভিন্ন পেশাজীবীদের সাথে আলাপ করলে তারা লোডসেডিং ছারা মাসে বিল আসে প্রায় ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা। আবার মাসে প্রতিনিয়ত লোডসেডিং করে বিল আসে এখন তার দ্বিগুন।এখন কোন দিকে যাবে সাধারণ গ্রাহক,না সইতে পারছে অঘোষিত শুক্র ও শনিবারে সাথে প্রতিনিয়ত লোডসেডিং,না পারছে ভূতরে বিলের যন্ত্রনা,না পারছে বিদ্যূৎ বিলের ফাদঁ থেকে বের হতে। সবারই একি কথা পল্লী বিদ্যুতের দূর্নীতির কবে হবে শেষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com