সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
নবীগঞ্জের জাহিদপুর গ্রামে বিদ্যালয় বিহীন ভূমি নিয়ে এলাকা তোলপাড়

নবীগঞ্জের জাহিদপুর গ্রামে বিদ্যালয় বিহীন ভূমি নিয়ে এলাকা তোলপাড়

স্টাফ রিপোর্টার : নবীগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের নিমিত্তে দানকৃত ভূমিতে বিদ্যালয় নির্মিত না হলেও বিশেষ একটি মহল কর্তৃক অভিনব জালিয়াতির অভিযোগ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলার ৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পূর্ব জাহিদপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে।
দানকৃত ভূমির দলিল ও স্থানীয় সূত্রে প্রকাশ, ১৯৯৬ সালে নবীগঞ্জ উপজেলার পূর্ব জাহিদপুর গ্রামের আবদুল সোবহান, আব্দুর রহিম ওরফে কাচা মিয়া এবং মোঃ ফরিদ উদ্দিন ওরফে গেদা মিয়া ৮৭০ নং দলিলে বিদ্যালয় স্থাপনের নির্মিত্তে ৩১ শতক ভূমি হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের অনুক‚লে রেজিষ্ট্রি সম্পাদন করে দেন। এর মধ্যে সোবহান মিয়া দাতা হিসেবে ভূমি দাতা হলেও বাস্তবে তার কোন মালিকানাধীন ভূমি ছিলনা বলে জানা যায়। পরবর্তীতে একই গ্রামের তাজুল ইসলাম ওরফে সামছু মিয়া ১৮৯৩নং দলিলে ৩৩ শতক ভূমি পূর্ব জাহিদপুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনুক‚লে রেজেষ্ট্রি করে দেন। এক পর্যায়ে সামছু মিয়ার দানকৃত ভূমিতে বিদ্যালয় নির্মিত না হলে নিজের অনুক‚লে ফিরিয়ে এনে অন্যত্র বিক্রি করেন।
এদিকে, বিদ্যালয়বিহীন এলাকায় প্রস্তাবিত ভূমিতে বিদ্যালয় নির্মিত না হলেও বিশেষ একটি মহল বিদ্যালয় সরকারি করণের নির্মিত্তে স্থানীয় সংসদ সদস্যের নিকট ডিও সংগ্রহ করেন। এখবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এনিয়ে ৮৭০নং দলিলে বর্ণিত দাতা সদস্য মৃত আব্দুর রহিমের পুত্র মো. তাহিদ মিয়া বলেন, পূর্ব জাহিদপুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের নির্মিত্তে আমার পিতাসহ ৪ জন ১৮৯৩ নং দলিলে ৩৩ শতক ভূমি দান করেন। বাস্তবে দানকৃত ভূমিতে বিদ্যালয় স্থাপিত হয়নি। এর মধ্যে সামছু তার দানকৃত ভূমি নিজের অনুক‚লে ফিরিয়ে এনে অন্যত্র বিক্রি করেছেন। উত্তরাধিকার সূত্রে আমার পৈত্রিক ভূমি আমার অনুক‚লে রয়েছে।
সরেজমিনে আলাপকালে সাবেক ইউপি সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান চুনু মিয়া, ইউপি সদস্য মঈন উদ্দিন, বিশিষ্ট মুরুব্বি ফজল মিয়া ও মোঃ হুসন আলী বলেন, আমাদের গ্রাম বা দানকৃত ভূমিতে বিদ্যালয়ের কোন অস্তিত্ব নেই। আলোচিত ভূমিতে ওয়াহিদ আলী, সাহিদ আলী এবং মিলন বেগম গৃহ নির্মাণ করে বসবাস করছে। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com