সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
নবম উইকেট জুটিতে মাহমুদউল্লাহ-তাসকিনের ইতিহাস

নবম উইকেট জুটিতে মাহমুদউল্লাহ-তাসকিনের ইতিহাস

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:ইনিংসে রান যতটা সম্ভব বাড়িয়ে নেওয়া যায় সেই আশায় দলের অভিজ্ঞ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহর দিকে তাকিয়ে ছিল বাংলাদেশ।

হারারের এই উইকেটে ৩২০ রানও খুব বড় সংগ্রহ নয় বলে মনে করেন টাইগারদের নতুন ব্যাটিং কোচ অ্যাশওয়েল প্রিন্স।

বুধবার ম্যাচের প্রথম দিনের খেলা শেষে প্রিন্স বলেছিলেন, ১০ ও ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান ক্রিজে থাকা বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানকে যতটা সঙ্গ দেবে বাংলাদেশের জন্য ততটাই ভালো হবে। দুই দল ব্যাটিং করার আগে কোনো পিচে কত রান ভালো, সেটা কেউ জানে না। তাই ২৯০ থেকে ৩২০ রানকে আমরা ভালো সংগ্রহ হিসেবে ধরে নিতে পারি না। বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে ভালো হবে, যত বেশি সম্ভব রান করা।

আর প্রিন্সের সেই কথা যেন হৃদয়ে গেঁথে নিয়েছেন দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও তাসকিন আহমেদ।

৮ উইকেট হারিয়ে ২৯৪ রানে প্রথম দিন শেষ করেছিল। মাহমুদউল্লাহ ৫৩ ও তাসকিন ১১ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করেন।

সেখান থেকে ১০৭ ওভার শেষে এ জুটির সংগ্রহে স্কোরবোর্ডে এখন রান ৪০৪! অর্থাৎ মাহমুদউল্লাহ-তাসকিন জুটি এ পর্যন্ত সংগ্রহ করেছে ১১০ রান। গতকালের ২৪ রানসহ এ জুটির সংগ্রহ ১৩৪ রান। যা নবম উইকেটে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ সংগ্রহ।

অবশ্য আগের সেরাকে মাহমুদউল্লাহ ও তাসকিন পেরিয়ে গেছে দিনের শুরুতেই। ২০০৫ সালে মাশরাফি বিন মুর্তজা ও তাপস বৈশ্যের জুটি করেছিল ৩৫ রান। এর পর গত ১৬ বছরেও ৩৫ রানও যোগ করতে পারেনি নবম উইকেটের জুটি।

আর মাহমুদউল্লাহ-তাসকিন জুটি ছাড়িয়ে গেছে ১০০ রানের পার্টনারশিপকে। জিম্বাবুয়েকে হতাশ করে ইতিহাস গড়া জুটির রেকর্ড ফের কবে ভাঙা যাবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করা অন্যায্য কিছু নয়।

হয়তো লেগে যেতে পারে বছরের পর বছর।

একটা সময় ১৩২ রানে ৬ উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। সেখান থেকে দলকে তুলে নিয়ে আসেন লিটন দাস ও মাহমুদউল্লাহ। ৫ রানের জন্য সেঞ্চুরি বঞ্চিত হন লিটন। নার্ভাস নাইনটির বলি হন তিনি। লিটন ফেরার পর দ্রুত ২ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ২৭০ রানের মধ্যে ৮ উইকেট হারিয়ে  চাপে পড়ে যায় টাইগাররা।

এরপর ফের বাংলাদেশের ত্রাতা হয়ে ২২ গজে আসেন তাসকিন আহমেদ। দলের ১০ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসাবে মাঠে নামেন। লিটন নার্ভাস নাইনটির বলি হলেও ঠিকই ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি তুলে নেন মাহমুদউল্লাহ।

ওদিকে মাহমুদউল্লাহেক যোগ্য সঙ্গ দিয়ে ক্যারিয়োরের প্রথম হাফসেঞ্চুরি তুলে নিলেন তাসকিন।

এ জুটির ব্যাটে ভর করে রানের পাহাড় তৈরি করছে বাংলাদেশ।

লাঞ্চবিরতির আগে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ৪০৪ রান। ২১৫ বল খেলে ১১ চার ও ১ ছক্কায় মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত ১১২ রানে। অপরপ্রান্তে ৮৯ বলে ৮ বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৫২ রানে অপরাজিত তাসকিন।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com