দেশের সাড়ে ১৬ লাখ চালক অবৈধ, হদিস জানা নেই ১১ লাখের

দেশের সাড়ে ১৬ লাখ চালক অবৈধ, হদিস জানা নেই ১১ লাখের

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের সাড়ে ১৬ লাখ যানবাহন চলে অবৈধ চালক দিয়ে। এছাড়া ১১ লাখ যানবাহন কারা চালায় তার কোনো হদিস নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে। ঢাকায় জাবালে নূর বাসের চাপায় রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল ও কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহতের পর রাজধানীসহ সারাদেশে বিক্ষোভের দাবানলের মধ্যেই খোঁজ নিয়ে জানা গেল এই চাঞ্চল্যকর তথ্য।

অনুমোদন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অদক্ষ ও অপেশাদার চালক দ্বারা গাড়ি চালানো, ত্রুটিপূর্ণ সড়ক ব্যবস্থা, ট্রাফিক বিভাগের অদূদর্শিতা এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগের দুর্নীতির কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ অনেকদিনের।
অনুমোদন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অদক্ষ চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে বি আরটিএ ও পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ একে অপরের ওপর দায়িত্ব চাপিয়ে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য দিয়ে চলেছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজধানীর কুর্মিটোলায় দুই বাসের প্রতিযোগিতায় এবার দুই শিক্ষার্থী দিয়া ও করিমের মর্মান্তিক মুত্যু এখন দেশের সড়ক পরিবহনের বাস্তব অবস্থার প্রতীক। শুধু দিয়া আর করিম নয়, এর আগে বাসচালকদের প্রাণঘাতী প্রতিযোগিতায় নিভে গেছে রাজিব, রোজিনা, আয়শা, শিশু সুমিসহ আরও অনেকের প্রাণ প্রদীপ। এ তালিকায় প্রতিদিন যোগ হচ্ছে সাধারণ মানুষও। এ অবস্থায় সড়ক পরিবহন ব্যবস্থাকে কঠোর আইনের আওতায় আনার পরামর্শ তাদের।
বিআরটিএর কাছ থেকে পাওয়া তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, দেশে ১৬ লাখ ৩৬ হাজার যানবাহন চালানো হচ্ছে বৈধ চালক ছাড়া। একটি গাড়িতে একজন চালক থাকবে এ হিসাব করে এ তথ্যটি বের করা হয়েছে।
বিআরটিএ থেকে পাওয়া তথ্য মতে, গত জুন পর্যন্ত দেশে নিবন্ধিত গাড়ি দাঁড়িয়েছে ৩৫ লাখ ৩৬ হাজার ৩৭০টি। অথচ বিআরটিএ থেকে লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে প্রায় ১৯ লাখ। সে হিসাবে সাড়ে ১৬ লাখের কাছাকাছি গাড়ি চলছে বৈধ চালক ছাড়া। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চালকের সহকারী গাড়ি চালায়।
এদিকে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির হিসাবে বাংলাদেশে ট্রাক-বাস-মিনিবাসসহ যানবাহন চলছে ৪০ লাখের ওপরে। তাদের বক্তব্য, মেয়াদোত্তীর্ণ ও অনিবন্ধিত গাড়ির হিসাব দেশের কোনো সংস্থার কাছেই নেই। ৪০ লক্ষাধিক যানবাহন রাস্তায় চালাতে প্রতিটি গাড়ির জন্য একাধিক চালক প্রয়োজন। সাদা চোখে হিসাব করলে এসব যানবাহন চালাতে সঙ্গে কমপক্ষে ৮০ লাখ চালক প্রয়োজন। সেখানে বৈধ চালক আছে ২০ লাখ। এর মধ্যে অনেকেই মারা গেছে। আবার অনেকে এখন আর গাড়ি চালায় না। তাহলে বাকি সাড়ে ১১ লাখ গাড়ি কারা চালায়? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে দেখা যায়, রাস্তায় অনেক গাড়িই চালাচ্ছে হেলপাররা। যাদের বেশিরভাগের বয়স ১৫ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে। অথচ আইন অনুযায়ী ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে একজন পেশাদার চালকের বয়স হতে হয় কমপক্ষে ২০ বছর। যার কোনোটি না থাকা সত্ত্বেও গাড়িভর্তি যাত্রী নিয়ে চলছে কিশোর চালকরা। লেগুনাগুলো কিশোর চালকরা চালিয়ে যাত্রীদের নিয়ে শহর দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এসব চালক জানায়, পুলিশকে টাকা দিলেই লাইসেন্স ছাড়া রাস্তায় গাড়ি চালানোর অনুমতি পাওয়া যায়।
এছাড়া রাজধানীর আগারগাঁও, মহাখালী, মিরপুর-১০, ফার্মগেট, জিগাতলাসহ বিভিন্ন স্থানে কিশোর চালকরা লেগুনা চালায়। আইন অনুসারে ১৮ বছর না হলে লাইসেন্সের জন্য আবেদন করা যায় না। অথচ ১৮ বছরের নিচের শিশু-কিশোররা যাত্রী পরিবহন করছে। তাদের অনেকেরই দাবি, লাইসেন্স লাগে না, পুলিশ ধরলে ৩০০ টাকা দিলেই হয়।
২০০৯ সালে প্রকাশিত ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবির প্রতিবেদনে বলা হয়, ৯৭ শতাংশ চালক ওস্তাদের সঙ্গে সহকারী হিসেবে কাজ করে গাড়ি চালানো শিখেছে। তাদের ১৩ শতাংশ নিরক্ষর, ৪৭ শতাংশের প্রাথমিক শিক্ষা ও ৪০ শতাংশের বেশি শিক্ষাগত যোগ্যতা আছে। পরীক্ষা না দিয়েই ৬১ শতাংশ চালক লাইসেন্স নেয়। ওই গবেষণার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন রেজাউল হক। তিনি বলেন, পরিস্থিতির আশানুরূপ উন্নতি হয়নি।
এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিআরটিএ চলছে রমরমা ঘুষ বাণিজ্য। রাজধানীর মিরপুর ১৩ নম্বর ও উত্তরা দিয়াবাড়ি এলাকার বিআরটিএ-এর এই কার্যালয়ে অঘোষিতভাবে যেন নিয়ন্ত্রণ করছে দালালরা। আর দালালচক্রের মাধ্যমেই ঘুষ লেনদেন করছেন বিআরটিএ-এর কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আর এসব জায়গায় প্রতি পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে লাইসেন্স নিতে আসা মানুষগুলোকে। জানা যায়, দালালচক্রের মাধ্যমে ঘুষ বাণিজ্যের ফলে বিআরটিএ অফিসে এসে সরকারি নির্ধারিত ফি দিয়েও লাইসেন্স না করতে পারায় ফিরে যাচ্ছেন অনেকেই।
এমনকি যে ফরমে লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে হয় সেটাও পাওয়া যাচ্ছে দালালচক্রের কাছে। দালালচক্র ছাড়া শুধু ফরম সংগ্রহ করতেই ঘুরতে হচ্ছে এক টেবিল থেকে আরেক টেবিলে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বি আরটিএ (মিরপুর) সহকারী পরিচালক শায়রুল কবির গতকাল মোবাইলফোনে আজকালের খবরকে বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এরকম দুর্নীতির সঙ্গে কেউ জড়িত অভিযোগ পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি দাবি করেন, দালাল চক্রের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অনেককে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে। দালালদের যারা সহযোগী (কর্তৃপক্ষ) তাদের মধ্যে কাউকে শনাক্ত বা কোনো সাজা দেওয়া হয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আসলে বি আরটিরএর কারো বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ ছাড়া ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না।
বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, আমরা সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য দিলেই তা লুকিয়ে রাখতে চায় সরকার। আসলে লুকিয়ে রেখে লাভ হয় না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এরই মধ্যে নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।
বিআরটিএর সচিব শওকত আলী গত বুধবার দুপুরে সাংবাদিকদের জানান, এ পর্যন্ত প্রায় ১৯ লাখ লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে নিবন্ধিত প্রায় ৩৫ লাখ গাড়ির বিপরীতে। অনেক লাইসেন্স নবায়ন করা হয়নি। নবায়ন করা হলে চালক বৈধ হবে।
রাজধানীতে প্রায় আট হাজার বাস চলাচল করে। এসব গাড়ির চালকের বৈধ লাইসেন্স নেই প্রায় ৪০ শতাংশের। এসব বাসের ৮৮ শতাংশেরই মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে বহু বছর আগে। এসব বাসের বেশির ভাগ চালাচ্ছে ভুয়া চালকরা, কখনোবা অল্পবয়সী কিশোর। বাসগুলোর অর্ধেকের নেই উপযুক্ততার সনদ কোনোটির সামনের লুকিং গ্যাস নেই, ব্রেক নেই, ইঞ্জিন চলতে চলতে বন্ধ হয়ে যায়। এসব বাসের চালকদের প্রশিক্ষণও নেই। মালিকের সঙ্গে দৈনিক চুক্তিতে বেশির ভাগ বাস চালানোয় মুনাফার জন্য যাত্রীর দিকেই চোখ থাকে চালকদের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com