সংবাদ শিরোনাম :
দেওয়ানগঞ্জে যমুনার ভাঙনে বিলীন হচ্ছে ঘরবাড়িসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

দেওয়ানগঞ্জে যমুনার ভাঙনে বিলীন হচ্ছে ঘরবাড়িসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার খোলাবাড়িরচর এলাকায় যমুনা নদীর ভাঙ্গনে খোলাবাড়িরচর-দুইটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,খোলাবাড়িরচর উচ্চ বিদ্যালয়,ও খোলাবাড়িরচর মাদ্রাসাসহ বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যমুনা নদী গর্ভে দিনে বিলীন হয়েছে। ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নব নির্মিত বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌ থানা।

নদী ভাঙ্গনে গৃহহারা খোলাবাড়িরচর ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮শতাধিক শিক্ষার্থীদের পাঠদান অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। স্থানীয়রা বলছেন, ভাঙ্গনে রোধে স্থায়ী কোন উদ্যোগ না নেয়ায় অবিরাম ভাঙ্গনে হতাশায় রয়েছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসি।

জানা যায়, গত বছর ভয়াবহ বন্যায় উপজেলার খোলাবাড়িরচর, বরখাল, চরমাগুরিয়া ও নয়াপাড়া ৩টি গ্রামে যমুনা নদীর প্রবল ভাঙ্গন দেখা দেয়। ফলে ওইসব এলাকায় একটি আশ্রয়ণ প্রকল্প, ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ১টি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ১টি মসজিদসহ খোলাবাড়ি বাজারের প্রায় সিংহভাগ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। ফলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮শতাধিক শিক্ষার্থী, প্রতিষ্ঠানের অভাবে পাঠদান অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। ওইসব শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিপাকে পড়েছেন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকগন।

এ বিষয়ে খোলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খোরশেদ আলম সিরাজী, বলেন গত বছর জুলাই মাসের ১৭ তারিখে আমাদের স্কুল ভেঙ্গে গেছে। বিকল্প কোন জায়গা না পেয়ে বাজারের একটি সেড ঘরে গাদাগাদি করে কোন মতে পাঠদানের কাজ করছিলাম। গত সপ্তাহে তাও নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে।

অপর দিকে বর্তমানে যমুনা নদী ভাঙ্গনের হুমকির মুখে রয়েছে প্রায় ৫ কোটি ৭০লক্ষ টাকা ব্যয়ে নব নির্মিত বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌ-থানা। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সবেমাত্র থানার তিনতলা ভবনের কাজ শেষ করেছে। তারই মধ্যে থানা ভবন থেকে যমুনা নদী দূরত্ব রয়েছে মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ গজ। স্থানীয়রা জানান, এভাবে ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে অচিরেই বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌ থানাটি নদী গর্ভে বিলীন হবে। এ সংক্রান্ত বিষয়ে বাহাদুরাবাদ নৌ-থানার ওসি মিজানুর রহমান এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যে ভাবে নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে তাতে যে কোন মুহূর্তে থানাটি নদী গর্ভে চলে যেতে পারে।

এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাইদ জানান, নদীর পার্শ্ববর্তী এলাকায় এমন একটি সরকারি ভবন নির্মাণ করা হয়েছে যা আগে আমাদের কোনো মতামত নেওয়া হয়নি। তবে ভাঙ্গন রোধে খোলাবাড়ি থেকে ফুটানি বাজার পর্যন্ত ৮০০ কিলোমিটার অস্থায়ীভাবে জিও ব্যাগ ফেলতে ৭ কোটি ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলে টেন্ডার করা হবে বলে জানান।

এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এমপি বলেন, খোলাবাড়ী রক্ষার্থে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে ভাঙ্গনের বিষয় অবহিত করে ডিও লেটার দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com