সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের
দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

দালাল আক্তার মিয়া ও দুলাল

হবিগঞ্জ শহরের অনন্তপুরে খানজাহান আলী স্বপন (২৫) নামের এক যুবককে দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে দালালসহ চুনারুঘাটের ৩ প্রতারকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ওই যুবকের মামা মীর আব্দুল কাদির বাদি হয়ে ৬ জনকে আসামি করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

মামলাটি আদালত তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার জন্য হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেছেন। মামলার আসামিরা হলো, চুনারুঘাট উপজেলার রাণীগাঁও ইউনিয়নের পারকুল গ্রামের শহিদ মিয়ার পুত্র খলিলুর রহমান (৩৫), তার ভাই দুলাল মিয়া (৪০), মৃত আব্দুন নুরের পুত্র শহিদমিয়া (৬৫), মৃত আব্দুল জব্বারের পুত্র আক্তার মিয়া (৪০), সদর উপজেলার পইল পশ্চিম পাড়া গ্রামের ইলিয়াছ মিয়ার স্ত্রী তাসলিমা খাতুন (২৮)।

ভিকটিম খানজাহান আলী স্বপন

মামলার বিবরণে জানা যায়, খলিলুর রহমান ও দুলাল মিয়া দুই ভাই দুবাই থাকার সুবাদে তাদের পিতা শহিদ মিয়া দেশে লোকজন সংগ্রহ করে বিদেশ পাঠিয়ে থাকেন। বাদীর আত্মীয়ের মাধ্যমে শহিদ মিয়ার সাথে পরিচয় হয়। এদিকে বাদির ভাগ্নে খানজাহান আলী স্বপন বিদেশে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করলে আত্মীয়তার সূত্রে আসামিরা বাদিকে প্রস্তাব দেয় তার ভাগ্নেকে ফলের আড়তে প্যাকেটিং এর কাজে দুবাই পাঠাতে পারবে, সেখানে তার মাসিক বেতন হবে ৩৫ হাজার টাকা এবং ভিসার মেয়াদ দুই বছর। এ জন্য খরচ দিতে হবে সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা। গত ৫ ও ১১ এপ্রিল দুই দফায় সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা নিয়ে ১৩ এপ্রিল দুবাই পাঠায় এবং খলিল ও দুলাল তাকে রিসিভ করে। ১৫ দিন তাদের এখানে রাখার কোনো চাকরির ব্যবস্থা বা কাজ দেয়া হয়নি। একপর্যায়ে তার ভাগ্নে তাদের চাপ দিলে আসামিরা তাকে ঘর থেকে বের করে দেয়। প্রবাসে অসহায় অবস্থায় তার ভাগ্নে রাস্তার পাশে, গাছতলায় থেকে রাত্রী যাপন করতে থাকে। দুবাইয়ে থাকা অন্য প্রবাসী ও পরিচিতজনদের অনুগ্রহে এখনো সে দুবাইয়ে আছে। কিন্তু তাকে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। উল্টো গত ১৪ সেপ্টেম্বর ভিকটিম খানজাহান আলী স্বপনকে বিদেশে চাকরির ব্যবস্থা করার জন্য দুলাল মিয়া আরও ২ লক্ষ টাকা নেয়। কিন্তু অদ্যাবদি কোনো চাকরির ব্যবস্থা করা হয়নি। আসামিদের নিকট বাদি টাকা ফেরত ও ভাগ্নেকে দেশে ফেরত পাঠানোর কথা বললে তারা খারাপ আচরণ করে এবং লেনদেনের কথা অস্বীকার করে। এ বিষয়ের পইল ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মঈনুল হক আরিফসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সালিশ বৈঠক করলেও তারা তা অমান্য করে। এ ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে বাদি আইনের আশ্রয় নিয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com