সংবাদ শিরোনাম :
আমিও সাংবাদিক পরিবারের একজন সদস্য: প্রধানমন্ত্রী । শেরপুরে ভাতার কার্ড দেওয়ার নামে স্বামী পরিত্যক্ত নারীকে ধর্ষণ-থানায় অভিযোগ । বানিয়াচং-হবিগঞ্জ রাস্তার পাশ থেকে নারীর মৃত দেহ উদ্ধার, আটক ১   মাধবপুরে ভারতীয় মদসহ মাদক কারবারী আটক‌ শীতে করোনার দ্বিতীয় প্রবাহ আঘাত হানার আশঙ্কাঃ মাহবুব আলী। হবিগঞ্জে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সভায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে লাঞ্চিত! পারলে এক দিনের মধ্য পোস্টমর্টেমের রিপোর্ট দেন। ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি), বাংলাদেশ ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) এর দেয়া গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য। বানিয়াচংয়ে দূর্গাপূজার পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাসেম চৌধুরী। প্রতিবন্ধী না হয়েও ভাতা তুলছেন পাইকপাড়া ইউনিয়নের লিলু মিয়া
দীর্ঘ হচ্ছে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের পদত্যাগের তালিকা

দীর্ঘ হচ্ছে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের পদত্যাগের তালিকা

lokaloy24.com

লোকলয় ডেস্কঃ  গত কয়েক বছর ধরে বিএনপির রাজনীতির ছেড়েছেন মোসাদ্দেক আলী ফালু, আলী আজগর, শমসের মুবিন চৌধুরী, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, পারটেক্স গ্রুপের এম এ হাশেমসহ অনেকেই। ফলে দিন দিন দীর্ঘ হচ্ছে বিএনপি থেকে শীর্ষ নেতাদের পদত্যাগের তালিকা।

দলটির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে শুধু ইনাম আহমেদ চৌধুরীর পদত্যাগপত্র স্বীকৃত হয়েছে। কারণ তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। কিন্তু বাকিদের পদত্যাগপত্র এখনো পড়ে আছে সিদ্ধান্তের অপেক্ষায়।

তাছাড়া সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খান, স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে (অবঃ) মাহবুবুর রহমান ও সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিএনপি থেকে পদত্যাগের বিষয়টি এখনো বেশ আলোচিত।

তাদের মধ্যে দু’জন ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেছেন। তবে আরিফুল হকসহ সিলেটের চার নেতা যুবদলের কমিটি গঠন নিয়ে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের অনুসারীদের কাছে হেরে গিয়ে  পদত্যাগপত্র জমা দেন।

মাহবুবুর রহমান তার স্পষ্টবাদিতার কারণে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিরাগভাজন হন। দলের হাইকমান্ড থেকে তাকে অবস্থান পরিবর্তন করার কথা বলা হলেও তাতে রাজি না হয়ে তিনি পদত্যাগ করেন বলে ঘনিষ্ঠজনরা জানান।

আর মোরশেদ খান পদত্যাগ করেছেন তার ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বার্থে।

এসব শীর্ষ নেতাদের কারো পদত্যাগপত্র নিয়ে বিএনপি আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি।

বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র থেকে জানা গেছে, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খানের পদত্যাগ দলটির সহজভাবে মেনে নেয়নি। আর মাহবুবুর রহমান যদি পদত্যাগ করে চুপচাপ থাকেন তাহলে কোন আপত্তি নেই। কারণ ওয়ান ইলেভেনের সময় তিনি সংস্কারপন্থী ছিলেন এবং দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের একক সিদ্ধান্তের তিনি বিরোধী।

এ ছাড়া বর্তমানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান  আব্দুল্লাহ আল নোমান, মেজর (অবঃ) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনসহ আরো কিছু নেতা আছেন, যারা আজ নিষ্ক্রিয় তালিকায়।

কেননা দলের নীতিনির্ধারকরা মনে করেন, আব্দুল্লাহ আল নোমানকে কোনো দায়িত্ব দেয়া হলে তা তিনি পালন করেন। তবে নিজে উদ্যোগী হয়ে কিছুই করেন না। আর বাকি দু’জনকে কাজ দেয়া হলেও তারা করেন না। তাই তাদের নিষ্ক্রিয় নেতা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

দলের নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপিতে এখন এই পদত্যাগী ও নিস্ক্রিয় বা অবসরপ্রাপ্তদের ঝুলিয়ে রাখার কৌশল নেয়া হয়েছে। কারণ দলে তাদের অতীতের অবদান এবং ভবিষ্যতে যদি কখনো সক্রিয় হন সেই আশায়। তাই দুই একজন ছাড়া আর কারো পদত্যাগপত্র গ্রহণ করছে না বিএনপি।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেন, বিএনপি একটা বটগাছ। কয়েকজন নেতার পদত্যাগের কারণে কিছু আসে-যায়না। এতে দল দুর্বল না হয়ে বরং আরো শক্তিশালী হবে।

তিনি বলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের মতো লোকেরা একসময় বিএনপি ছেড়ে জাতীয় পার্টিতে গিয়েছিলেন। তাতে কি হয়েছে? বরং দল আরো শক্তিশালী হয়ে ক্ষমতায় এসেছে।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে কেউ যদি মনে করেন তার পক্ষে রাজনীতি করা সম্ভব নয়, তিনি পদত্যাগ করতেই পারেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com