দল করতে গিয়ে বাংলাদেশি কিনা তাই ভুলে যাচ্ছি

দল করতে গিয়ে বাংলাদেশি কিনা তাই ভুলে যাচ্ছি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম এ ফায়েজ বলেছেন, ‘অনেক রক্তের বিনিময়ে আমরা বাংলাদেশ পেয়েছি। পাকিস্তানের চেয়ে আমরা মেধা মনন-সবদিক দিয়েই এগিয়ে ছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের বঞ্চিত করত, আধিপত্য বিস্তার করত। এখন তো দেখছি, আমরা নিজেরাই নিজেদের বঞ্চিত করছি, এটাই আজ বড় ট্র্যাজেডি। এখানে দলীয় দৃষ্টিভঙ্গিতে কাজ করতে গিয়ে বাঙালির ক্ষতি করছে বাঙালিই। কে আওয়ামী লীগ কে বিএনপি— এটা করতে গিয়ে আমরা বাংলাদেশটাকেই ভুলে যেতে বসেছি। আমি বাংলাদেশি নই, আওয়ামী লীগ-বিএনপি— এমন একটা পরিস্থিতি এখন দেশে। আমরা দল করতে গিয়ে বাংলাদেশি কি না— তাই ভুলে যেতে বসেছি। এটা চরম দুর্ভাগ্য। আমার প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পরিচয়, আমি বাংলাদেশি। এরপর আপনি আওয়ামী লীগ, বিএনপি যা ইচ্ছা করেন।’ গতকাল দুপুরে গুলশানের একটি বাসায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। সাবেক এই উপাচার্য বলেন, ‘এক সময়ে পাকিস্তান যেটা করেছে, আমরাও এখন সেটা করছি। দেশের স্বার্থের চেয়ে এখন আমরা দলীয় স্বার্থকে প্রাধান্য দিচ্ছি। সার্বিকভাবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে গণতন্ত্রের প্রতীক হিসেবে দেখা হয়। তাদের কাছে মানুষের প্রত্যাশাও বেশি। তাই গণতন্ত্রের যে মূল্যবোধ রয়েছে, তা দেখতে হলে দলমতের ঊর্ধ্বে উঠতে হবে। আমি মনে করি, আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে শ্রদ্ধাবোধ আরও বাড়াতে হবে। এটা না হলে দূরত্ব আরও বাড়বে। চরম ক্ষতি হবে দেশ ও গণতন্ত্রের।’ দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘আজ প্রাইমারি থেকে শুরু করে শিক্ষার প্রতিটি স্তরে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা খুবই উদ্বেগজনক। দুর্ভাগ্যজনকভাবে শিক্ষা সেক্টরে চেইন অব কমান্ড ভেঙে পড়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ইউনিটের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। এখন বিষয়টি কীভাবে দেখা হবে। প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়ে থাকলে যারা ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন তাদের কী হবে? কতজন ছাত্রছাত্রী এই প্রক্রিয়ায় ভর্তির সুযোগ পেলেন, তা খুঁজে বের করা উচিত। এটা অবশ্যই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য চরম সতর্কবার্তা। প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধের গ্যারান্টি অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দিতে হবে।’ বিশিষ্ট এই শিক্ষাবিদ বলেন, ‘শিক্ষাব্যবস্থা একটি মহামারীর দিকে যাচ্ছে। সবাইকে ভাবিয়ে তুলছে। যেহেতু বিষয়টি চরম আকার ধারণ করেছে, সবার মধ্যে একটা নাড়া দিয়েছে। এখান থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। এই ডিটারমেশন যদি কাজ করে তাহলে এ থেকে উত্তরণ সম্ভব। যে ব্যক্তিটি এ নিয়ে কাজ করছে, শিক্ষামন্ত্রী থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠান প্রধান তাদের নিশ্চয়তা দিতে হবে। প্রশ্ন ফাঁস হতে আমি দেব না— এটা খুব বড় কঠিন কাজ নয়। ব্যক্তির দৃঢ় মনোভাবই যথেষ্ট। ফাঁস হওয়াটাই বড় বিষয়। এটা করতে দেওয়া যাবে না। যে পদ্ধতিতেই যাই না কেন, যদি তা সঠিক পথে না হয়, তাহলে প্রশ্ন ফাঁস হবেই।’ অধ্যাপক এস এম এ ফায়েজ বলেন, ‘প্রতিষ্ঠানের প্রধান উপাচার্যের লক্ষ্য স্থির করতে হবে, কোনোভাবেই প্রশ্ন ফাঁস হবে না। এটা না থাকলে হবে না। এ জন্য একটি প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিই মুখ্য। সিস্টেমের চেয়ে ব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ। পৃথিবীতে সব সিস্টেমেই কম বেশি গলদ থাকতে পারে। কিন্তু ম্যান বিহাইন দা মেশিন। এটা আমি মনে করি খুবই জরুরি। ব্যক্তি ঠিক থাকলে যে কোনো বিষয়েই ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় এটা আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই উপাচার্য বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এটা যেভাবে যাচ্ছে এখন, তা থেকে বেরিয়ে আসা যাবে কি না তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভাবিয়ে তুলছে। যেভাবে শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে, এটা খুবই বিপজ্জনক। বিশ্ববিদ্যালয় আইনে একবার শিক্ষক নিয়োগ হলে তাকে বাদ দেওয়াও কঠিন। ডিপার্টম্যান্টের তুলনায় বেশি শিক্ষক। শুধুই রাজনৈতিক লেজুড়বৃত্তির জন্য। সেখানে মেধাকে দারুণভাবে কমপ্রোমাইজ করতে হয়েছে। এখান থেকে বেরিয়ে আসাও কঠিন। সবাইকে দলমতের ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করলে এই অবস্থা নিরসন করা সম্ভব, অন্যথায় নয়। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্যই এটা করতে হবে।’ প্রাচ্যের অক্সফোর্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘প্রাচ্যের অক্সফোর্ড বলা হতো ভিন্ন কারণে। এটা হলো এই বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে সব ছাত্রছাত্রী আবাসিক হিসেবে থাকবে। কেউ বাইরে থাকবে না। এই মডেল হচ্ছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের। এ জন্যই অক্সফোর্ড অব দি ইস্ট বলা হতো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে। হাউস টিউটারসহ পড়াশোনা সবই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরেই। কিন্তু পাকিস্তান আমলে তাতে পরিবর্তন আসে। কলকতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যেসব প্রতিষ্ঠান যুক্ত ছিল, তা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে চলে আসে। আবার যখন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হলো তখন ওইসব কলেজগুলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চলে যায়। তবে আবার মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ও যুক্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে। সম্প্রতি আবার বেশ কিছু কলেজও এরসঙ্গে যুক্ত হয়। এখানে এক হ-য-ব-র-ল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এমন পরিস্থিতিতে রয়েছে, মনে হয় কোনো চরিত্রেই নেই। এটা পিকুলিয়ার সিনারিতে আছে। আগেও ছিল না, এখনো নেই।’ তিনি বলেন, ‘এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন আর কোনো গবেষণাও নেই। পাবলিকেশনও কম। শিক্ষকরাও সেলফ সাসটেইন নন। শিক্ষকরা সরকারের ওপর নির্ভরশীল। সবকিছু মিলিয়ে অক্সফোর্ডের কোনো কোয়ালিটিই নেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এ কারণে সব ক্যাটাগরিতেই আমরা মার খেয়ে যাচ্ছি। কিন্তু আমাদের লক্ষ্য, ভালো কিছু করতে হবে। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে। এক্ষেত্রে উপাচার্যের ভূমিকা খুবই বেশি। তার চরিত্র থাকতে হবে, সরকারের কাছ থেকে অর্থ নেব, কিন্তু সরকার দ্বারা প্রভাবিত হব না। সরকারের প্রভাব থেকে বিশ্ববিদ্যালয় মুক্ত রাখব। এটা হচ্ছে না।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com