সংবাদ শিরোনাম :
তুষারঝড়ে মৃত ১৭, নিউইয়র্কে জরুরি অবস্থা জারি

তুষারঝড়ে মৃত ১৭, নিউইয়র্কে জরুরি অবস্থা জারি

মৌসুমের প্রথম বড় তুষারঝড়ে নাকাল এখন নিউইয়র্ক নগরবাসী। স্থানীয় সময় ৪ ডিসেম্বর ভোর থেকে তুষারপাতে ঢাকা পড়ে নিউইয়র্কসহ আশপাশের অঙ্গরাজ্যগুলো। ভারী তুষারপাতের কারণে নিউইয়র্কে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা। পাশাপাশি পাবলিক স্কুলগুলোও বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে নগর প্রশাসন। ফক্স নিউজের সর্বশেষ খবরে তুষারঝড়ে আমেরিকার বিভিন্ন অঞ্চলে অন্তত ১৭ জন মারা গেছে বলে জানানো হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত নিউইয়র্ক নগরে কারও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

হঠাৎ আসা তুষারঝড়কে ‘বম্ব সাইক্লোন’ নামে অভিহিত করেছে গণমাধ্যমগুলো। তুষারঝড়ের প্রাবল্য স্থানীয় সময় ৫ জানুয়ারি দুপুর পর্যন্ত থাকবে বলে জানানো হয়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। তবে ওয়েদার ডটকমের পূর্বাভাসে বলা হয়, এরপর তুষারঝড় থামলেও বাড়বে ঠান্ডার প্রকোপ। ৬ ও ৭ জানুয়ারি তীব্র ঠান্ডা থাকবে। আর ৮ জানুয়ারি বৃষ্টিপাতের পর তাপমাত্রার কিছুটা উন্নতি হতে পারে।

নিউইয়র্ক ডেইলির খবরে বলা হয়েছে, ৪ জানুয়ারি ভোরেই নিউইয়র্ক শহরে আঘাত করে তুষারঝড়। ভারী তুষারপাতের সঙ্গে ছিল কনকনে ঠান্ডা হাওয়া। ৫ জানুয়ারি সকালের মধ্যেই নগরের পাঁচটি বোরোতে ১০ ইঞ্চি পুরু বরফ জমতে পারে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বৈরী আবহাওয়ার কারণে এরই মধ্যে ব্রঙ্কসের ছয়টি ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হয়। তবে জ্যাকসন হাইটস ও রুজভেল্ট অ্যাভিনিউ এবং কিউ গার্ডেন ও কুইন্সের মধ্যে ই ও এফ ট্রেন চালু ছিল। নগরের পরিবহন বিভাগ জানিয়েছে, স্ট্যাটেন আইল্যান্ডের ফেরি ও রেলওয়েতে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বিলম্ব হচ্ছে। এদিকে নিউইয়র্ক শহরের লং-আইল্যান্ড সবচেয়ে বাজে পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের গভর্নর অ্যান্ড্রু কুমো। এ অবস্থায় সবাইকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। একইভাবে নিউজার্সির গভর্নর ক্রিস ক্রিস্টি অঙ্গরাজ্যের সব অফিস বন্ধ ঘোষণা করে নির্দিষ্ট কিছু কাউন্টিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন।

নিউইয়র্ক টাইমসের তথ্যমতে, বিভিন্ন এয়ারলাইনস এরই মধ্যে বহু ফ্লাইট বাতিল করেছে। নিউওয়ার্ক লিবার্টি ইন্টারন্যাশনাল বিমানবন্দরের ৪৫০টি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। আর লা গার্ডিয়ার বাতিলকৃত ফ্লাইটের সংখ্যা ২৬৭। একই অবস্থা জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরেরও। বিমানবন্দরটির ১৬৯টি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।

তুষারঝড়ের প্রাবল্য স্থানীয় সময় ৫ জানুয়ারি দুপুর পর্যন্ত থাকবে বলে জানানো হয়েছে। নিউইয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র। ছবি: প্রথম আলো

গত সপ্তাহ থেকেই নিউইয়র্কসহ আমেরিকার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোয় শীতের প্রকোপ বাড়তে থাকে। জমতে শুরু করে বরফ। ২ জানুয়ারি থেকেই তুষারঝড়ের সতর্কতা দিচ্ছিল গণমাধ্যমগুলো। দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের যেসব অঙ্গরাজ্যে বহু বছর তুষারপাত হয়নি, সেখানেও তুষারপাতের ঘটনা ঘটেছে। জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে জর্জিয়া, ওয়াশিংটন ডিসি, ভার্জিনিয়াসহ বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে। ফ্লোরিডাসহ আমেরিকার বহু এলাকায় স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলো।

এবিসি নিউজের তথ্যমতে, মেক্সিকো উপসাগরে সৃষ্ট এ তুষারঝড় ৪ জানুয়ারি আঘাত হানার কথা থাকলেও একদিন আগেই ফ্লোরিডায় আঘাত হানে ঝড়টি। বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৬০-৭০ মাইল। আমেরিকার জাতীয় আবহাওয়া বিভাগ ভার্জিনিয়া, ম্যারিল্যান্ড, ডেলাওয়্যার, নিউজার্সির উপকূল, নিউইয়র্ক ও নিউ ইংল্যান্ডের উপকূলীয় এলাকায় সতর্কতা জারি করেছে। আর কানাডা সীমান্তবর্তী নিউইয়র্কের নায়াগ্রা ফলস এখন কার্যত বরফ স্তূপের নিচে চাপা পড়ে আছে।

আমেরিকার ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিসের আবহাওয়াবিদ ড্যান পিটারসন বলেন, ‘উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ঝড়টি আঘাত করবে। এ ঝড়ের কারণে বিভিন্ন অঞ্চলে এমনকি ১৪ ইঞ্চি পর্যন্ত বরফ জমতে পারে। ঝড়টি চলে যাওয়ার পর নেমে আসবে ভয়াবহ ঠান্ডা। ঝড়টির কারণে এ বছর বেশ কিছু এলাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড হতে পারে। এ অবস্থায় সবাইকে সতর্ক থাকার অনুরোধ করছি আমি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com