সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের
ডাকাতির খবর লেখায় মামলার আসামি সাংবাদিক!

ডাকাতির খবর লেখায় মামলার আসামি সাংবাদিক!

গাজীপুরের টঙ্গী থানার ওসি ফিরোজ তালুকদারের অনুরোধ উপেক্ষা করে ডাকাতির খবর লেখায় রাজনীতিক মামলার আসামী করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন দৈনিক নয়া দিগন্তের টঙ্গী সংবাদদাতা শেখ আজিজুল হক। এঘটনায় বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে।

গত ৩ ফেব্রুয়ারী গভীর রাতে টঙ্গী বাজারের ব্যবসায়ী ফিরোজ খান ও তার ভাই দুবাই প্রবাসী ফারুক খানের বাড়িতে ডাকাতি হয়। ডাকাত দল গ্রিল কেটে বাড়িতে ঢুকে পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি ও মারধরের পর হাত-পা বেঁধে ১০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, দুই লাখ টাকা, একটি ল্যাপটপ ও দুটি কম্বল লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকায় ‘১০ ভরি স্বর্ণ ২ লাখ টাকা লুট, টঙ্গীতে ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়।

আজিজুল হক বলেন, ডাকাতির ঘটনার পর সংবাদ প্রকাশ না করতে ওসি ফিরোজ তালুকদার আমাকেসহ স্থানীয় সাংবাদিকদের একাধিকবার অনুরোধ করেছেন। কয়েকজনকে বিভিন্নভাবে ম্যানেজও করেন তিনি। কিন্তু ঘটনার পরদিন শুধুমাত্র দৈনিক নয়া দিগন্তে সংবাদ প্রকাশ হলে ওসি ফিরোজ তালুকদার আমার প্রতি চরম ক্ষুব্ধ হন এবং দেখে নিবেন বলে হুমকি দেন। পরে বিষয়টি জেনে স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক আমাকে সতর্ক থাকারও পরামর্শ দেন।

তিনি আরও বলেন, ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের চাপ আসে এবং বদলি হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে জানিয়ে ওসি যোগদানের শুরু থেকেই সাংবাদিকদের ডাকাতির সংবাদ না করতে অনুরোধ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৬ ফেব্রুয়ারি বিএনপির ১৬৬ নেতাকর্মীর নামে টঙ্গী মডেল থানায় বিশেষ ক্ষমতা ও বিষ্ফোরক দ্রব্য আইনে একটি মামলা (নং-২০) হয়। ওই মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক সাংসদ হাসান উদ্দিন সরকারসহ কয়েকজনকে গত বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে বৃহস্পতিবার রাজনীতিক নেতারা মামলার এজাহারে ১১৬ নম্বরে সাংবাদিক আজিজুল হকের নাম দেখে বিষ্ময় প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ তালুকদার বলেন, গাজীপুর ও টঙ্গীর ১৬৬ জন নেতাকর্মীর নামে মামলা হয়েছে। সবাই তো আর ডাকাতির সংবাদ করেনি। আজিজুল বিএনপি নেতা হাসান উদ্দিন সরকারের বেতনভুক্ত পিএ-২। বেতন নিলে তো মামলা হতেই পারে। পদ থাকলে মামলা হবে না? তার নামে মামলা হয়েছে আজ দুপুরে জেনেছি।

তিনি দাবি করেন, সকল রাজনীতিক সভা, সমাবেশে হাসান উদ্দিন সরকারের সঙ্গে থাকেন আজিজুল। হাসান উদ্দিন সরকারের অর্থনীতিক বিষয়গুলো দেখেন তিনি। রাজনীতির বাহিরে আসলেই আজিজুল সাংবাদিক! এখন শাক দিয়ে মাছ ঢেকে কি হবে বলেন?

এদিকে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) মহাসচিব শওকত মাহমুদ ও এম আব্দুল্লাহ এঘটনার তীব্র নিন্দা এবং মামলা থেকে সাংবাদিক আজিজুল হকের নাম প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছেন। এছাড়া টঙ্গী প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. মেরাজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এম.এ কাশেম রানা এবং গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মো. হেদায়েত উল্লাসহ জেলার সংবাদকর্মীরা নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com