ঠাকুরগাওঁয়ের হরিপুর উপজেলায় কৃষি পণ্য বিস্তরে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন

ঠাকুরগাওঁয়ের হরিপুর উপজেলায় কৃষি পণ্য বিস্তরে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন

ঠাকুরগাওঁয়ের হরিপুর উপজেলায় কৃষি পণ্য বিস্তরে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন
ঠাকুরগাওঁয়ের হরিপুর উপজেলায় কৃষি পণ্য বিস্তরে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন

সাগর হোসেন ফিরোজ, হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাওঁ জেলার হরিপুর উপজেলা পশ্চিমে  ভারতীয় সীমান্ত ঘেষা। অন্যান্য দিক থেকে অনগ্রসর হলে ও কৃষিতে ব্যাপক  উন্নতি।   হরিপুর উপজেলা ছয়টি  ইউনিয়নে প্রত্যেক টি ফসলি জমিতে  কৃষক উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ফসল উৎপাদন  করছে,যেমন  দেহট্র গ্রামে মোঃ ওহেদুল ইসলাম,পিতা আব্দুর রহমান  ।   তিনি বিভিন্ন এলাকায় জমি কর্জ নিয়ে প্রায় দুই শত বিঘা   কৃষি কাজ করেন।  খোলড়া মৌজায় প্রায় ১০ একর ও ডাঙ্গীপারা  মৌজায়, ৭.৫ জমিতে ও রুহিয়া গ্রামে   ৩ নং বকুয়া ইউনিয়নে  ১৭  একর  ও অন্য উপজেলায় ও  বিভিন্ন সাথী ফসল সহ বিভিন্ন ফসল  আবাদ করে। বর্তমানে তিনি আমন মৌসুমে একই জমিতে দুইবার আমন চাষ করে । ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। ওহিদুল হরিপুর এলাকায় ইতিমধ্যে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। ওহিদুলের পিতার বেশী জমি না থাকলে ও  জমি কর্জ নিয়ে কৃষি কাজ করে,নিজ পরিবার কে স্বাবলম্বী করেছেন। অপর দিকে  খাদ্যে স্বংসম্পুর্ণ ও পুষ্টি উৎপাদনে সহায়তা করছে।  বাংলাদেশ আরো ওহিদুলের মত কৃষক তৈরী করতে পারলে  দেশ জাতি উন্নয়নে জোয়ারে ভাসবে। কার্তিক ও অগ্রহায়ণ মাসে আলু চাষের সাথী ফসল হিসেবে লাউ বা মিষ্টি কুমড়া, কখনো শশা আবাদ করেন। ওহিদুল বছর জুড়ে  লাল শাক -সব্জি বীজ,   ঢেঁড়শ বীজ, মুলা বীজ পিয়াজ বীজ, চিচিংগা বীজ, করলা বীজ,লাউ বীজ,কুমড়া বীজ,আলু বীজ,ধনে পাতা,রসুন বীজ, উৎপাদন করেন । খরিপ মৌসুমে লাল শাকের  সাথী ফসল হিসেবে মিষ্টি কুমড়া। জৈষ্ঠ্য মাস উচ্চ ফলন শীল ধান আবাদ করে, সেই ধান কাটার পর আবার উন্নত আমন ধান  রোপন করেছেন। বাংলাদেশে  তার মত কৃষি জমিতে ফসল আবাদ করলে হয়তো আর বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের পৌচ্ছানো সময়ের ব্যাপার মাত্র।  হরিপুর উপজেলায় মোট আবাদি জমি ১৮১০০ হেক্টর, তারমধ্যে আমন ধান আবাদ হয়েছে ১৬২০০ হেক্টর।সম্ভাব্য গম উৎপাদনে লক্ষ মাত্রা ধরা হয়েছে ৬৭০০ হেক্টর, বোরো উৎপাদনে লক্ষ মাত্রা ৬৭৭০ হেক্টর, সরিষা উৎপাদন ১৮০০ হেক্টর,  ও রবি ভুট্রা ৩২০০ হেক্টর । আলু ২৭৯২ হেক্টর ও সব্জি ৭০০ হেক্টর। এই উপজেলায় খাদ্যের চাহিদা  ২৬২৫১ মেঃ টন,ও উদ্বৃত ৬৪৭৯২ মেঃ টন। বীজ ও অন্যান্য ১১২০৩ মেঃ টন। প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ নাহলে আশা করি কৃষি পণে  ব্যাপক সাফল্য আসবে।  আগামিতে হয়তো ওহিদুলের মত কৃষিতে অবদান রাখলে বাংলাদেশের সোনালি দিন আসবে আশা করি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com