সংবাদ শিরোনাম :
নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি আজমিরীগঞ্জে সিএনজি স্ট্যান্ড দখল নিয়ে দুই দলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আজমিরীগঞ্জে গাঁজাসহ টমটম চালক আটক লাখাইয়ে ডাকাতি মামলার আসামি চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পাখি শিকার ও পাচারের লিখিত অভিযোগ অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী! হবিগঞ্জে স্কুল মাঠে পুকুর খনন নিয়ে ফেসবুকে উত্তাপ, অবস্থান জানাল প্রশাসন লোকাল জার্সিকে অ্যাডিডাসের বলে বিক্রি করার দায়ে ইজি ফ্যাশনকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা
ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে জনবল সঙ্কট, করোনা পরীক্ষা করাতে না পেরে ফিরে যাচ্ছেন রোগীরা ‌!

ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে জনবল সঙ্কট, করোনা পরীক্ষা করাতে না পেরে ফিরে যাচ্ছেন রোগীরা ‌!

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রতিদিন শত শত রোগীর ভিড় বাড়ছে। এদের বেশিরভাগই করোনা উপসর্গ নিয়ে আসছেন। তবে পরীক্ষা করাতে না পেরে হতাশ হয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে তাদের। সদর হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতালে দিনে ৬০ থেকে ৮০ জন রোগীর করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এতে প্রতিদিন প্রায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আসা শতাধিক রোগীকে পরীক্ষা ছাড়াই ফিরে যেতে হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, জনবল সঙ্কটের কারণে ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে রোগীদের।

বুধবার (৭ জুলাই) করোনা পরীক্ষা করাতে এসে ফিরে যেতে দেখা যায়, গ্রামের মামুন অর রশিদ কে । তিনি সাংবাদিকগণ কে বলেন, ‘বেলা ১০টায় এসেছি। আধাঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে টোকেন নিয়েছি। এরপর ডাক্তার দেখিয়ে পরীক্ষা করাতে আসি। এখন তারা কাল আসতে বলছেন। বিষয়টি আমাদের জন্য অনেক ভোগান্তির।’ ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের বলেন, ‘কাল এসে ফিরে গেছি। আজও ফিরে যেতে হচ্ছে। পরীক্ষা করতে আসতেই আমি অসুস্থ হয়ে যাচ্ছি। সম্ভব নয়। যাই হবে হোক। আমি আর পরীক্ষা করাতে আসব না।’
দেশের উত্তর সীমান্তের ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রতিনিয়ত বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। সেই মোতাবেক বাড়ছে করোনা পরীক্ষার চাপ। এ চাপ সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। হাসপাতাল সূত্র বলছে, এপ্রিল-মে মাসে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকলেও জুন মাসে বেড়েছে ১৫ গুণ। ঠাকুরগাঁও জেলায় এ পর্যন্ত তিন হাজার ৮৬৫ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১ জুন থেকে ৭   জুলাই পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে দুই হাজার ৪৭৭ জন। শুরু থেকে মৃত ৯৫ জনের মধ্যে জুন মাসেই মারা গেছেন ৪৭ জন। করোনায় সংক্রমণ ও মৃত্যু—এ দুই সূচকেই জুন মাস করোনা পরিস্থিতির বিগত ১৪ মাসকে ছাড়িয়ে গেছে। এই অবস্থায় সঠিকভাবে করোনা পরীক্ষা করা না গেলে পরিস্থিতি আরও বেগতিক হতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।  ঠাকুরগাঁও জেলার বিশিষ্ট গবেষক ও প্রবীণ সাংবাদিক আব্দুল লতিফ বলেন, করোনা পরীক্ষা না করে এভাবে যদি রোগীদের ফেরত দেয়া হয়, তাহলে সাধারণ মানুষের মাঝে করোনা পরীক্ষার প্রতি অনীহা সৃষ্টি হবে। এমনটা হলে ঠাকুরগাঁও জেলার জন্য সামনে অনেক ভয়ঙ্কর একটি সময় অপেক্ষা করছে। এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক নাজিরুল ইসলাম চপল সাংবাদিকগণকে বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলায় দিন দিন করোনা রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু সেই অনুপাতে জনবল বাড়ানো সম্ভব হয়নি। হাসপাতালে জনবল সঙ্কট রয়েছে। সে কারণে সঠিকভাবে করোনা পরীক্ষা করা যাচ্ছে না।’তিনি আরও বলেন, ‘রোগীদের পরীক্ষা ছাড়াই ফিরিয়ে দেয়ার বিষয়টিতে আমরাও চিন্তিত। কিন্তু এক্ষেত্রে আমরা সম্পূর্ণ নিরূপায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com