ঠাকুরগাঁওয়ে গ্রাম্যপুলিশকে পেটানোর অভিযোগ করেন সদর থানায় রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি বিরুদ্ধে

ঠাকুরগাঁওয়ে গ্রাম্যপুলিশকে পেটানোর অভিযোগ করেন সদর থানায় রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি বিরুদ্ধে

মোঃ মজিবর রহমান শেখ : ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলায় দীপেন চন্দ্র ও সাহাদেব নামের দুইজন গ্রাম্যপুলিশকে মারপিটের অভিযোগ উঠেছে এমদাদুল ইসলাম ভুট্টু নামের এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে। রোববার (১১জুলাই) রাতে ঐ দুই গ্রাম্য পুলিশ দীপেন চন্দ্র রায় ঠাকুরগাঁও সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। এর আগে বিকেলে ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলার গড়েয়া ইউনিয়নের পুরাতন গড়েয়া বাজারে পথরোধ করে দুই গ্রাম্য পুলিশকে মারপিট করে সাংবাদিক এমদাদুল ইসলাম ভুট্টু। আহত দুই গ্রাম্যপুলিশ হলেন: – গড়েয়া ইউনিয়নের আরাজি মাটিগাড়া গ্রামের প্রধান চন্দ্র রায়ের ছেলে দীপেন চন্দ্র রায় ও একই গ্রামের শাহাদেব। অভিযুক্ত এমদাদুল হক ভুট্ট গাজী টেলিভিশন (জিটিভি) ও জেলা রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি। গ্রাম্যপুলিশ দীপেন চন্দ্র রায় অভিযোগ করে বলেন, সারাদেশের মত ঠাকুরগাঁও জেলাতেও কঠোর লকডাউন চলছে। সে লকডাউন বাস্তবায়ন করতে প্রশাসনের পাশাপাশি আমরাও কাজ করে যাচ্ছি। ১০ জুলাই শনিবার বিকেলে সরকারের নির্দেশ উপেক্ষা করে পুরাতন গড়েয়া হাটে স্থানীয় ব্যবসায়ী দুলু মিয়া তার দোকান খোলা রাখে। আমরা তাকে দোকান বন্ধ করতে বললে, সে উল্টো আমাদের সাথে খারাপ আচরণ করে। এক পর্যায়ে সে তার নিজের দোকান ভাংচুর শুরু করে। তারা আরো বলেন, এরপর সেখান থেকে চলে আসার পর আমরা গড়েয়া ইউনিয়নের দেউনিয়া বাজারে যাই। সেখান থেকে ফেরার পথে পুরাতন গড়েয়া বাজারে দুলুর ভাই সাংবাদিক এমদাদুল ইসলাম ভুট্টু সহ বেশ কয়েকজন আমাদের পথরোধ করে। এ সময় কোন কথা না বলেই আমাকে মারপিট করে। এ সময় আমার সহকর্মী শাহাদেব আমাকে বাঁচাতে আসলে তাকেও তারা মারপিট করে। আমার এই ঘটনার বিচার চাই। এদিকে মারপিটের ঘটনাটি স্বীকার করে সাংবাদিক এমদাদুল ইসলাম ভুট্টু বলেন, দুই গ্রাম্যপুলিশ আমার ভাইয়ের দোকান ভাংচুর করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গ্রাম্যপুলিশের সাথে একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে। গড়েয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেজওয়ানুল শাহ রোদো শাহ বলেন, দুই গ্রাম্য পুলিশকে সাংবাদিক ভুট্টু এভাবে মারপিট করবে এটা ঠিক হয়নি। কারণ ঐ দুই গ্রাম্যপুলিশ সরকারি কাজই করছিল। তাদেরকে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। তবে এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন গ্রাম্য পুলিশ দীপেন চন্দ্র রায় পুলিশ এখনও লিখিত অভিযোগের ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com