টাঙ্গাইলে কোপানোর একদিন পর এসএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু

টাঙ্গাইলে কোপানোর একদিন পর এসএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের সখীপুরে আকলিমা আক্তার (১৮) নামের এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী জুয়েল রানার বিরুদ্ধে।

আকলিমাকে কোপানোর ২৪ ঘণ্টা পর আজ সোমবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। ঘটনার পরপর সৌদিপ্রবাসী স্বামী জুয়েলকে (২৫) স্থানীয়রা লোকজন আটক করলেও গতকাল রোববার বিকেলে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদরে তিনজন সদস্য তাঁকে ছাড়িয়ে আনে।

নিহত আকলিমা উপজেলার কচুয়া ব্যাপারী পাড়া এলাকার অটোরিকশা চালক আলতাফ মিয়ার মেয়ে। সে এবার সাড়াশিয়া সানস্টার ইনস্টিটিউট অব টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজ থেকে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ১ ফেব্রুয়ারি শুরু হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল।

এদিকে আকলিমা হত্যার ঘটনায় আসামিকে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে সাড়াশিয়া সানস্টার ইনস্টিটিউট অব টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের শিক্ষার্থীরা দুপুর ১২টার দিকে কলেজের পাশে সাড়াশিয়া-কচুয়া সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বলে ওই কলেজের অধ্যক্ষ নাসির উদ্দিন জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, প্রায় চার বছর আগে উপজেলার আড়াইপাড়া গ্রামের প্রবাসী আবদুল লতিফের ছেলে জুয়েলের সঙ্গে অষ্টম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় আকলিমার বাল্যবিয়ে হয়। বিয়ের তিন মাস পর জুয়েল বিদেশ চলে যান। দুই বছর আগে আকলিমা বাবার বাড়ির পাশের ওই কলেজে নবম শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে পড়ালেখা শুরু করে। মাস তিনেক আগে জুয়েল ছুটি নিয়ে সৌদি আরব থেকে দেশে আসেন। সম্প্রতি তাঁর সৌদি আরব ফিরে যাওয়ার কথা ছিল। শনিবার সন্ধ্যায় জুয়েল শ্বশুরবাড়ি যান। পরে রাত আনুমানিক তিনটার দিকে জুয়েল তাঁর স্ত্রী আকলিমাকে চাপাতি দিয়ে কোপাতে থাকেন। আকলিমার চিৎকারে তার মা ও দাদি ঘুম থেকে জেগে ওঠেন। তাঁরা প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় আকলিমাকে উদ্ধার করে রাত পৌনে চারটায় সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। সেখান থেকে গতকাল ভোর পাঁচটার দিকে আকলিমাকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আজ ভোরে তার মৃত্যু হয়।

সখীপুর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা হারুনুর রশীদ প্রথম আলোকে বলেন, আকলিমার ঘাড়, গলা, মুখ, মাথা ও শরীরের আরও কয়েকটি স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের (কোপের) চিহ্ন ছিল।

আজ দুপুরে নিহত আকলিমার বাড়িতে (ঘটনাস্থলে) গিয়ে দেখা যায়, যে ঘরে আকলিমাকে কোপানো হয়েছে সে ঘরের মেঝেতে ছোপ ছোপ রক্তের দাগ রয়েছে। চাপাতিটিও পড়ে আছে। আকলিমার দাদি ছাহেরা বেগম বলেন, আকলিমা পড়াশোনা করুক তা তার স্বামী চাইতো না। এ নিয়ে মাঝে মধ্যেই তাঁরা ঝগড়াঝাঁটি করত।

প্রতিবেশী ইব্রাহিম মিয়া, আল আমিন ও আক্কাছ আলী বলেন, ‘ঘটনার পরই আমরা চিৎকার শুনে ওই বাড়িতে যাই। জুয়েলকে আটক করি। পরে বিকেলে কালিয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য বাদল মিয়া, ১ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য বিল্লাল হোসেন ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য শামছুল আলম মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে জুয়েলকে ছাড়িয়ে নেয়।’ ওই তিন ইউপি সদস্য জুয়েলকে তাঁদের জিম্মায় ছাড়িয়ে নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

সাড়াশিয়া সানস্টার ইনস্টিটিউট অব টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের অধ্যক্ষ নাসির উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আকলিমা নির্বাচনী পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছিল। তাঁকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে। কারণ ওই চাপাতি আকলিমাদের বাড়িতে ছিল না। সে আকলিমাকে খুন করে বিদেশ চলে যাওয়ার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সে চাপাতি কিনে গোপনে শ্বশুর বাড়ি গিয়েছিল।’

আকলিমার মা সুফিয়া বেগম বলেন, ‘আমার সর্বনাশ হয়ে গেছে। আমি আমার মেয়ের হত্যার বিচার চাই।’ সুফিয়া অভিযোগ করে বলেন, জুয়েলের বয়স যখন তিন বছর তখন তাঁর পিতাও তাঁর মাকে খুন করেছিলেন। ওই ঘটনায় জুয়েলের পিতা ১০-১২ বছর জেল খেটে বের হয়ে এখন সৌদি আরবে চাকরি করছেন।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাকছুদুল আলম বলেন, ‘এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত হবে। রাতে মামলা হবে। জুয়েলকে ছেড়ে দেওয়া ঠিক হয়নি। সে এরই ফাঁকে বিদেশেও চলে যেতে পারে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com