‘টাকা পাচার হলে দেশের উন্নয়ন হতো না’ ড. আবদুর রাজ্জাক

‘টাকা পাচার হলে দেশের উন্নয়ন হতো না’ ড. আবদুর রাজ্জাক

রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগের সভাপতির কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাংসদ ড. মো. আবদুর রাজ্জাক।

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাবাসের বিষয়টি মানুষের দৃষ্টির বাইরে নিতেই সম্প্রতি দলটি দেশের ব্যাংকিং খাত নিয়ে নানা ধরনের মন্তব্য করছে বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাংসদ ড. মো. আবদুর রাজ্জাক।

আজ শনিবার বিকেলে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগের সভাপতির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আবদুর রাজ্জাক একথা বলেন।

দেশের কোনো টাকা পাচার হয়নি দাবি করে আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘কোনোক্রমেই দুই লক্ষ কোটি টাকা পাচার হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তাহলে দেশের এই এতো উন্নয়ন হতো না।এবং দেশ এইভাবে প্রবৃদ্ধি অর্জন করতো না। আরেকটি যেটি বলছেন, এটা একটা সম্পূর্ণ মিথ্যাচার। এবং জাতিকে বিভ্রান্ত করা। এবং জাতির দৃষ্টি, এই যে আজ খালেদা জিয়া জেলে দুর্নীতির দায়ে, এগুলো থেকে জাতির দৃষ্টি সরিয়ে নেওয়ার একটা পদক্ষেপ।’

একই সঙ্গে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন বানচাল করতে বিএনপি নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করছে বলেও মন্তব্য করেন আবদুর রাজ্জাক। তিনি দাবি করেন, দেশের ব্যাংকিং খাত খুব ভালোভাবেই চলছে। কিন্তু দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করতে মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে বিএনপি নেতারা।

গত বৃহস্পতিবার গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ব্যাংকিং খাত নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে দলটি। এতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘সরকার নিজেদের লোকদের সরকারি ব্যাংকগুলোতে বড় পদে বসিয়ে লুটপাট করছে। এর মাধ্যমে দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছে। তারা রাজনৈতিক বিবেচনায় ঋণ দিয়ে দেশের ব্যাংক খাতকে দেউলিয়া করে দিয়েছে।’

সংবাদ সম্মেলনে দেশের সব ব্যাংকের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্ষমতা বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি অভিযোগ করেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরি হয়েছে সরকারের মদদে। কারণ এফবিআই বলেছে ব্যাংকের অর্থ চুরি করা লোকজন ব্যাংকের ভেতরেই অবস্থান করছে।’

অর্থমন্ত্রীর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ব্যাংকের প্রায় দুই লাখ কোটি টাকা লোপাট হলেও অর্থমন্ত্রী বলছেন এটি বড় কিছু নয়। আমাদের বুঝে আসে না আর কত টাকা লোপাট হলে আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে বড় কিছু মনে হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘শেখ আবদুল হাই বাচ্চু রাজনৈতিক বিবেচনায় এমডি পদে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতি শুরু হয়। তিনি অনিয়মের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিয়ে ব্যাংককে ধ্বংস করে দিয়েছেন।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com