‘টাকার উৎস না জানলে মামলা করেছেন কেন’

‘টাকার উৎস না জানলে মামলা করেছেন কেন’

আদালত প্রাঙ্গণে খালেদা জিয়া।

  • বিশেষ আদালত-৫-এ মামলায় আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন চলছে।
  • ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ।
  • মামলায় খালেদা জিয়াসহ চারজন আসামি।
  • আজও যুক্তিতর্ক উপস্থাপন।

লোকালয় ডেস্ক :

‘রাষ্ট্রপক্ষ বলেছে, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টে আসা টাকার উৎস তাঁরা জানতে পারেননি। আমার প্রশ্ন, তাহলে মামলা করেছেন কেন? আমার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে কোটি কোটি টাকা থাকতে পারে। তার উৎস বৈধ হলে কি মামলা হবে? সুতরাং মামলা করতে হলে টাকার উৎস বৈধ না অবৈধ তা তো জানতে হবে। তা না জানলে তো মামলা হয় না।’

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় আসামিপক্ষের অন্যতম আইনজীবী আমিনুল ইসলাম গতকাল বুধবার আদালতে এমন যুক্তি তুলে ধরেন, যার মর্মার্থ হচ্ছে মামলার অভিযোগ ভিত্তিহীন। বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালত-৫-এ এই মামলায় আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন চলছে। ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা এই মামলায় খালেদা জিয়াসহ চারজন আসামি।

আদালতের কার্যক্রম শুরুর কিছুক্ষণ পর দুই পক্ষের বাগ্‌বিতণ্ডায় আদালতকক্ষ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। একপর্যায়ে বিচারক মো. আখতারুজ্জামান এজলাস ছেড়ে খাসকামরায় চলে যান। আট মিনিট পর তিনি এজলাসে ফিরে আসেন। ততক্ষণে আদালতকক্ষ শান্ত হয়।

ঘটনার শুরু আইনজীবী আমিনুল ইসলামের একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে। যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের একপর্যায়ে তিনি বলেন, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট নিবন্ধন, ট্রাস্টের ব্যাংক হিসাব খোলা প্রভৃতি কাজে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীর পদ-পদবি গোপন করেছিলেন বলে রাষ্ট্রপক্ষ অভিযোগ করেছে। কিন্তু মাননীয় আদালত, এই কাজগুলোতে খালেদা জিয়াকে কেন প্রধানমন্ত্রীর পদ-পদবি উল্লেখ করতে হবে? প্রত্যেক মানুষের দাপ্তরিক কাজের পাশাপাশি ব্যক্তিগত কাজও আছে। রাজনীতিকদের দলীয় কাজও থাকে। ‘বতর্মান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল (গত মঙ্গলবার) সিলেটে গিয়ে যে ভাষণ দিয়ে এসেছেন, সেটা কি প্রধানমন্ত্রীর কাজ? তিনি তো তা-ই করে এসেছেন।’

ওই বক্তব্য দেওয়ার পরই রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী মোশাররফ হোসেন দাঁড়িয়ে আমিনুল ইসলামের উদ্দেশে বলতে থাকেন, ‘উনি তো সক্রেটিসের মতো কথা বলছেন হুজুর। উনি তো আইনস্টাইন হয়ে গেছেন। এর নাম কি যুক্তিতর্ক?’ তাঁর এই বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গে আসামিপক্ষের কয়েকজন আইনজীবী সমস্বরে, প্রতিবাদী ভাষায় কথা বলতে শুরু করেন। শুরু হয় হইচই। দুই পক্ষের বাগ্‌বিতণ্ডা চলতে থাকলে বিচারক এজলাস ত্যাগ করেন। আট মিনিট পর তিনি ফিরে আসেন। সোয়া তিনটায় আদালতের কার্যক্রম শেষ হওয়া পর্যন্ত আমিনুল ইসলাম তাঁর উপস্থাপনা শেষ করেননি। আজও তিনি বলবেন।

লোকালয় সংবাদ/ ০১ ফেব্ররুয়ারী ২০১৮/

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com