জেলায় জেলায় ধরপাকড় চলছেই

জেলায় জেলায় ধরপাকড় চলছেই

বিশেষ প্রতিনিধি: আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার রায়কে কেন্দ্র করে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠন এবং জামায়াতের নেতা-কর্মীদের ধরপাকড় চলছেই। তবে পুলিশ বলছে, নাশকতায় আশঙ্কায় এবং বিভিন্ন মামলায় তাদের ধরা হচ্ছে।

ঢাকার বাইরে মাদারীপুর, বাগেরহাট, রাজবাড়ী, টাঙ্গাইল, নাওগাঁ, হবিগঞ্জ, পিরোজপুর ও পঞ্চগড়ে নতুন করে ১৮৯ বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীকে আটক ও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার থেকে ও আজ বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত তাদের ধরা হয়। সংশ্লিষ্ট জেলার পুলিশ সূত্রে এ খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

আটকদের মধ্যে মাদারীপুরে ১০, বাগেরহাটে ৫০, রাজবাড়ীর ৩, টাঙ্গাইলে ৪৫, নওগাঁয় ৫৫, পঞ্চগড়ে ১৪ ও পিরোজপুরে ১২ জন রয়েছেন। এছাড়া সোমবার রাত থেকে সারা দেশে যানবাহন, মেস ও আবাসিক হোটেলগুলোতে অভিযান চলছে।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন কুমার দেব (সার্কেল) জানান, ৮ জানুয়ারি বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে চলমান দুর্নীতির মামলার রায়ে জেলা ও উপজেলায় নাশকতা করার লক্ষ্যে বিভিন্ন স্থানে বৈঠক শুরু করে বিএনপি-জামায়াতের নেতা-কর্মীরা। এমন সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ১০ জনকে আটক করা হয়। আটকদের পুলিশি পাহারায় আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া এখনো অভিযান চলছে।

বাগেরহাটে পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাশকতাসহ বিভিন্ন মামলায় বিএনপি, জামায়াতের দশ নেতা কর্মীসহ ৫০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত ২৪ ঘণ্টায় বাগেরহাটের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। বুধবার দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় বলেন, বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও নাশকতার অভিযোগে হওয়া নিয়মিত মামলায় বিএনপি ও জামায়াত নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে পুলিশ কাউকে হয়রানি করতে গ্রেপ্তার করছে না।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ঘাট থানা-পুলিশ গতকাল মঙ্গলবার রাতে ও আজ বুধবার সকালে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিএনপির তিন নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের আজ দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হামিদ তালুকদার, জেলা ছাত্রদলের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম সুমন, শহর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সখীপুর পৌর ছাত্রদলের সভাপতি মোর্শেদ আলম সুমনসহ জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৪৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার মো. মাহবুব আলম জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে তাদের আটক করা হয়েছে। আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। নাশকতা বা আইনশৃঙ্খলা অবনতির বিষয়ে তথ্য পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নওগাঁয় বিএনপি-জামায়াতের ৫৫ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে রয়েছেন জেলা বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক শামীম রেজা ও জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফারুকুজ্জামান, মান্দা উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি হেলালুজ্জামান। নওগাঁ জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক মোসলেম উদ্দীন জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৫৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩৪ জন বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মী ও ২১ জন জামায়াত-শিবিরকর্মী।

পঞ্চগড়ে নাশকতার আশঙ্কায় জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের (জামায়াত) জেলা আমির আব্দুল খালেকসহ ১৪ জনকে আটক করা হয়েছে। নিয়মিত মামলার কিছু আসামিসহ ১৪ জনকে আটকের বিষয়টি জানান পঞ্চগড়ের পুলিশ সুপার মো. গিয়াস উদ্দিন আহমেদ। তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার এক দিনে রাজধানীতে ১২৫ জনকে ‘সন্দেহমূলক’ গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। এঁদের মধ্যে ৪৫ জনের বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। ঢাকার বাইরের ২৬ জেলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৫৯৬ জনকে। সব মিলে গতকাল মঙ্গলবার গ্রেপ্তারের সংখ্যা দাঁড়ায় ৭২১। তবে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দাবি করেন, গত সাত দিনে বিএনপির ১ হাজার ৩০০ নেতা-কর্মী গ্রেপ্তার হয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com