সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
জিনজিয়াং থেকে উইঘুরদের অন্যত্র স্থানান্তরে বলপ্রয়োগ করছে চীন

জিনজিয়াং থেকে উইঘুরদের অন্যত্র স্থানান্তরে বলপ্রয়োগ করছে চীন

http://lokaloy24.com/

উইঘুর মুসলিমদের জন্মভূমি জিনজিয়াং প্রদেশ থেকে তাদের চীনের অন্যত্র সরিয়ে নিতে চাপ প্রয়োগ করছে দেশটির প্রশাসন। চীনের নতুন এই কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএনআই।

রেডিও ফ্রি এশিয়ার (আরএফএ) এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, চাকরি নিয়ে কাজ করা একটি চীনা সংস্থা তাদের বিজ্ঞাপনে দাবি করেছে, তাদের হাতে অন্তত দুই হাজারের বেশি উইঘুর কর্মজীবী রয়েছে। তারা সবাই দুই বছরের জন্য চুক্তিভিত্তিক চাকরিতে যেতে প্রস্তুত।

বিজ্ঞাপনে ওই সংস্থাটি আরও জানায়, চাকরির জন্য প্রস্তুতি ওই কর্মজীবীদের ভোকেশনাল শিক্ষা রয়েছে। তারা প্রত্যেকেই চমৎকার মান্দারিন ভাষা ব্যবহারে পারদর্শী। আরএফএ আরও জানায়, জিনজিয়াংয়ের কারগার থেকে অন্তত তিন হাজার উইঘুর মুসলিমকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

 

সংবাদমাধ্যমটি এর আগের একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল, জিনজিয়াং প্রদেশের হাজারো উইঘুর ও অন্যান্য জাতিগত সংখ্যালঘুদের বাড়ি থেকে অনেক দূরে কাজের জন্য পাঠিয়ে দিচ্ছে চীনা কর্তৃপক্ষ। ফলে, তাদের আদি আবাসভূমিতে তাদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। এর মধ্যে দিয়ে চীনের পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দাদের মধ্যে বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর অনুপাত বদলে দেবার চেষ্টা হচ্ছে কিনা- এমন প্রশ্ন করা হলে দেশটির কমিউনিস্ট সরকার তা অস্বীকার করে।

উল্লেখ্য, উইঘুর মুসলমানদের গণহারে বন্দী শিবিরে পাঠানো, তাদের ধর্মীয় রীতিনীতিতে হস্তক্ষেপ এবং জোরপূর্বক পুনঃশিক্ষণ কর্মকাণ্ডের জন্য বিশ্বব্যাপী সমালোচিত হয়েছে চীনের কমিউনিস্ট সরকার। এ বছরের শুরুর দিকে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র চীনের এই কর্মকাণ্ডকে ‘গণহত্যা’ হিসেবে ঘোষণা দেয়।

এরপর ফেব্রুয়ারিতে কানাডিয়ান এবং ডাচ উভয় পার্লামেন্ট উইঘুর সঙ্কটকে গণহত্যা হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। সবশেষ গত এপ্রিলে যুক্তরাজ্যও জিনজিয়াংয়ে চীনের চলমান দমন-পীড়নকে ‘গণহত্যা’ বলে ঘোষণা দেয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com