জিজ্ঞাসাবাদের পর মিন্নিকে গ্রেফতার

জিজ্ঞাসাবাদের পর মিন্নিকে গ্রেফতার

জিজ্ঞাসাবাদের পর মিন্নিকে গ্রেফতার
জিজ্ঞাসাবাদের পর মিন্নিকে গ্রেফতার

বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলায় স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) রাত সাড়ে নয়টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে একথা জানিয়েছেন বরগুনার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন।

তিনি জানান, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। আট ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সঙ্গে মিন্নির সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাকে এই মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

পুলিশ সুপার মারুফ জানান, বর্তমানে মিন্নিকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বরগুনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. হুমায়ুন কবির তার সাথে কথা বলছেন।

এদিকে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর মেয়েকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, আমার মেয়ের উপর মানসিক নির্যাতন চালানো হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তার সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যমূলক। ধারনা করা হচ্ছে, কারও সাথে যোগসাজসে আমার মেয়েকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। হাজার হাজার মানুষ দেখেছে আমার মেয়ে স্বামীকে বাঁচানোর জন্য জীবন বাজি রেখে লড়াই করেছে।

আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির চাচা আবু সালেহ জানিয়েছেন, মিন্নির বাবার বাড়িতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ১০ সদস্যের পুলিশ টিম এখনো অবস্থান করছে। সকাল পৌন দশটার সময় মিন্নিকে আনার জন্য নারী পুলিশের একটি দল মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের বাড়িতে যায়।

তারা পরিবারকে জানিয়েছিল, রিফাত হত্যা মামলার আসামিদের সনাক্ত ও মামলার বিষয়ে কথা বলার জন্য তাকে পুলিশে লাইনে যেতে হবে।

মামলার প্রধান সাক্ষী ও নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সকাল ১০টার দিকে বরগুনা পৌরসভার মাইঠা নয়াকাটা এলাকার নিজ বাসা থেকে বরগুনার পুলিশ লাইন্সে নিয়ে আসা হয়। এরপর তাকে দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

এর আগে, চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার বাদী নিহত রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ ও মামলার প্রধান সাক্ষী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির পরস্পরকে দোষারোপ করে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন ও নয়ন বন্ডের মা শাহিদা বেগমের মিন্নিকে জড়িয়ে বিবৃতি দেওয়ায় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ভিন্ন দিকে মোড় নেয়।

উল্লেখ্য, রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় ১৩ জনকে জীবিত অবস্থায় গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড গত ২ জুলাই পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে মারা যায়। গ্রেফতারকৃত আসামিদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ১০ জন ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। বাকী তিনজন এখনও রিমান্ডে রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com