জরুরি অবতরণের সময় ফেটে গেল থাই বিমানের চাকা

জরুরি অবতরণের সময় ফেটে গেল থাই বিমানের চাকা

জরুরি অবতরণের সময় ফেটে গেল থাই বিমানের চাকা

অনলাইন ডেস্ক : কায় ঘন বৃষ্টিপাতের মধ্য শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জলমগ্ন রানওয়েতে অবতরণ করতে গিয়ে ব্যাংকক থেকে আসা থাই এয়ারওয়েজ (টিজি ৩২১) বিমানের একটি চাকা ফেটে যায়। মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) ১২টা ১৮ মিনিটের দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকলেও ওই ফ্লাইটের যাত্রীরা সবাই নিরাপদেই নেমে আসতে পেরেছেন। এ ঘটনায় তিন ঘণ্টা শাহজালাল বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল। বিমানবন্দরে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অবতরণের সময় রানওয়েতে পানি জমে থাকায় উড়োজাহাজটি রানওয়ের একটু পাশে অবতরণের চেষ্টা করে। ফলে এর একটি চাকা ফেটে যায়।

 

উল্লেখ্য, ব্যাংকক থেকে ছেড়ে আসা থাই এয়ারওয়েজের টিজি-৩২১ ফ্লাইটটি সকাল ১১টা ৫৮ মিনিটে শাহজালাল বিমানবন্দরে অবতরণ করার কথা থাকলেও একাধিকবার চেষ্টার পর শেষ পর্যন্ত দুপুর ১২টা ১৮ মিনিটে অবতরণ করতে সক্ষম হয়। থাই ফ্লাইটের যাত্রী বিলাস দাস গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমাদের বিমানটি রানওয়েতে নামতে গিয়েও নামতে পারেনি। নামার আগেই পাইলট আবার বিমানটি নিয়ে ওপরে উঠে যান। পরপর তিনবার এই ঘটনা ঘটে। আমার সিট ছিল একদম চাকার ওপরে। স্পষ্ট দেখতে পাই, চাকা মাটিতে পড়ে গেছে।’

 

বিলাস আরও বলেন, বিমানবন্দরে প্রথমবার নামতে যাওয়ার সময় থেকে ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মতো বিমানটি আকাশে ছিল। বারবার চেষ্টা করেও বিমানটি ল্যান্ড করতে পারছিল না। শেষ পর্যন্ত খুব ঝুঁকি নিয়ে যখন  ল্যান্ড করে, তখন বিকট শব্দ শুনতে পাই। পুরো বিমান কেঁপে ওঠে।

 

বেঁচে থাকার স্বস্তি নিয়ে তিনি আরও বলেন, ওই অবস্থায় আমাদের বেঁচে থাকার কোনো পরিস্থিতিই ছিল না। ফ্লাইটে আমরা যারা ছিলাম, তাদের সবার মৃত্যু নিশ্চিত ছিল। ভাগ্যের জোরে বেঁচে গেছি। বিলাশ তার স্ত্রী এবং ৭ বছর ও ৩ বছর বয়সী দুই সন্তান নিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ব্যাংককে গিয়েছিলেন তিনি। সবাইকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত নিরাপদে উড়োজাহাজ থেকে বেরিয়ে আসতে পেরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন তিনি। এ সময় বিলাশ তার মোবাইল ফোন দিয়ে ফেটে যাওয়া চাকার ছবি তুলে রাখেন।

 

মৃত্যু নিশ্চিত জেনে ঘটনাপ্রবাহের রেকর্ড নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন বিলাস। তিনি বলেন, ‘আমরা বুঝতে পারছিলাম আমরা বাঁচতে পারব না। তখন সিদ্ধান্ত নেই, মরেই তো যাবো, কিন্তু মৃত্যুর আগে এই ঘটনার রেকর্ড রাখি। আমি মোবাইল চালু করে সব ইনফরমেশন নিতে থাকি। আমি চাকার ছবি তুলেছি। ওই চাকায় কিচ্ছু নেই।’ এই প্রতিবেদনে ব্যবহৃত ছবি বিলাস দাসই দিয়েছেন সারা বাংলাকে।

 

বিলাস জানান, স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ব্যাংককে গিয়েছিলেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী এবং ৭ বছর ও ৩ বছর বয়সী দুই সন্তান। সবাইকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত নিরাপদে উড়োজাহাজ থেকে বেরিয়ে আসতে পেরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন তিনি।

 

উল্লেখ্য, ব্যাংকক থেকে ছেড়ে আসা থাই এয়ারওয়েজের টিজি-৩২১ ফ্লাইটটি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। চাকা ফেটে যাওয়ায় উড়োজাহাজটি স্বাভাবিক অবতরণ করতে পারেনি। সকাল ১১টা ৫৮ মিনিটে শাহজালাল বিমানবন্দরে অবতরণ করার কথা থাকলেও একাধিকবার চেষ্টার পর শেষ পর্যন্ত দুপুর ১২টা ১৮ মিনিটে অবতরণ করতে সক্ষম হয়। বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকলেও ওই ফ্লাইটের যাত্রীরা সবাই নিরাপদেই নেমে আসতে পেরেছেন। এ ঘটনায় তিন ঘণ্টা শাহজালাল বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com