ছেলে ধর্ষক, লজ্জায় আত্মহত্যা করলেন বাবা

ছেলে ধর্ষক, লজ্জায় আত্মহত্যা করলেন বাবা

ছেলে ধর্ষক, লজ্জায় আত্মহত্যা করলেন বাবা
ছেলে ধর্ষক, লজ্জায় আত্মহত্যা করলেন বাবা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া- ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ নাঈম ইসলাম (২৭) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার (২২ জুন) ভোররাতে সদর উপজেলার তালশহর পূর্ব ইউনিয়নের অষ্টগ্রাম থেকে তাকে আটক।

এদিকে, শনিবার সকাল ১০টার দিকে নাঈমের বাবা বসু মিয়ার (৫০) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ধারণা করা হচ্ছে, ছেলের অপকর্মের গ্লানি সইতে না পেরে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

নিহত বসু মিয়া জেলার সদর উপজেলার নাটাই (দক্ষিণ) ইউনিয়নের শালগাঁও গ্রামের মৃত মলাই মিয়ার ছেলে। বাবা বসু মিয়া ও ছেলে নাঈম জেলা শহরের সড়ক বাজারে নৈশপ্রহরীর কাজ করতেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল কবির জানান, ২০ জুন শালগাঁও নাঈমের বাড়ি থেকে তার শ্যালিকা তামান্না আক্তারে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। তামান্না পৌর এলাকার আমিনপুরের নোয়াব মিয়ার মেয়ে। এই ঘটনায় নাঈমকে আসামি করে মামলা দিয়েছেন তামান্না মা।

পরিবারের সদস্যরা জানান, কয়েকদিন আগে তামান্না শালগাঁও গ্রামে তার বড় বোন সিল্কী আক্তারের বাড়িতে বেড়াতে যায়। তামান্নার দুলাভাই নাঈম ইসলাম তাকে নিজেদের বাড়িতে নিয়ে যান। বুধবার তামান্না বোনের বাড়ি থেকে ফিরে আসতে চাইলে দুলাভাই অনেকটা জোর করেই তাকে বাড়িতে রাখেন। পরে রাতে তামান্নাকে আমের জুস খাওয়াতে চান নাঈম। কিন্তু তামান্না রাজি হয়নি। পরে নাঈম তাঁর স্ত্রী সিল্কী আক্তারকে আমের জুসটি খাওয়ান। জুস খাওয়ার কিছুক্ষণ পরই সিল্কী অচেতন হয়ে পড়েন। এর পরই নাঈম তামান্নাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেন। অচেতন থেকে জেগে ওঠার পর সিল্কী তাঁর বোন তামান্নাকে ডাকাডাকি করেন। এর মধ্যেই নাঈম কৌশলে পালিয়ে যান। পরদিন তামান্নার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

অতিরিক্তি পুলিশ সুপার রেজাউল কবির জানান, নিহত তামান্নার মায়ের দেওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে মামার বাড়ি থেকে নাঈমকে আটক করা হয়। নাঈম পুলিশের কাছে তাঁর শ্যালিকা তামান্না আক্তারকে ও হত্যার কথা স্বীকার করেছে

এদিকে নবীনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজু আহমেদ জানান, ছেলের ধর্ষণের ঘটনায় লজ্জায় বসু মিয়া বাড়ি ছেড়ে গোসাইপুর গ্রামে তাঁর এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন। ঘটনাটি নিয়ে তিনি চিন্তায় ছিলেন। এই চিন্তা থেকে তিনি ওই আত্মীয়ের বাড়ির পাশের একটি গাছের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com