সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে মেয়র প্রার্থী মিজানের কর্মীদের হয়রানীর অভিযোগ করোনায় মৃত স্বজনহীন ব্যক্তির পাশে দাঁড়ানো মানবপ্রেমিকদের সংবর্ধনা জানালো পুনাক। নবীগঞ্জে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, অর্ধশতাধিক আহত।। শায়েস্তাগঞ্জে গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার। শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল ছাত্র তানভীর হত্যার প্রতিবাদে শোকসভা কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করা হচ্ছে : আইজিপি। বিদ্রোহীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ। নানক। কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার করে ফাঁসির দাবীতে  গোবিন্দগঞ্জে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে সার্কেল ডে অনুষ্ঠিত। ‌থানার দরজা হবে সেবাগ্রহীতার জন্য উম্মূক্ত- সার্কেলের নবাগত সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মুরাদ 
চুনারুঘাটে ৭ মাস আগের অজ্ঞাত লাশের পরিচয় সনাক্ত, ঘাতক দম্পতি গ্রেফতার

চুনারুঘাটে ৭ মাস আগের অজ্ঞাত লাশের পরিচয় সনাক্ত, ঘাতক দম্পতি গ্রেফতার

লোকালয় ডেক্স ঃ  হবিগঞ্জ  জেলার চুনারুঘাট উপজেলার রাণীগাঁও ইউনিয়নের চাটপাড়ার গ্রামের হাওর এলাকা যুগীর আসন টিলার নিচ থেকে উদ্ধারকৃত অজ্ঞাত যুবতীর পরিচয় ও হত্যার ক্লো উদঘাটন করেছে পুলিশ । উদ্ধারকৃত যুবতী রোখসানা আক্তার মিষ্টি নোয়াখালী জেলার চাটখিল থানার কামালপুর গ্রামের মৃত খোরশেদ আলী মজুমদারের মেয়ে। গতকাল রাতে হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম,পিপিএম এর সার্বিক নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাজমুল হকের তত্বাবধানে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) চম্পক দামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ শায়েস্তাগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আফছার ওরফে কাউছার ও তার স্ত্রী রিপা আক্তারকে গ্রেফতার করেন। এরপর নিবিড় তদন্তে নামেন চুনারুঘাট থানা পুলিশ। উন্মোচন করতে সক্ষম হন লোমহর্ষক হত্যাকান্ডের রহস্য।
৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে কা:বি: ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে । এঘটনায় বিকাল ৫ ঘটিকায় হবিগঞ্জের পুলিশ সুুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম পিপিএম তার কার্যলয়ের সম্মেলণ কক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে আসামীদের বরাত দিয়ে জানান, স্ত্রীর ক্রমাগত চাপে ঘাতকের স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে স্ত্রীর সহায়তায় পরকীয়া প্রেমিকাকে ধর্ষণের পর গলায় গামছা পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে এবং কেচি দিয়ে গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে আফছার ওরফে কাউছার ও তার স্ত্রী রিপা আক্তার।

পরে তাকে চাটপাড়ার হাওর এলাকার যুগীর আসন টিলার নিচে ফেলে পালিয়ে যায়।
গত ৭ ফেব্রয়ারী সকালে চুনারুঘাট থানার রানীগাঁও ইউনিয়নের চাটপাড়া গ্রামের হাওরে যুগীর আসন টিলায় এক অজ্ঞাতনামা তরুণীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে চুনারুঘাট থানায় হত্যা মামলা রুজু করা হয়।

মামলার ভিকটিম মিষ্টি মৌলভীবাজার শহরে একটি বেসরকারি কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতো। গত ৬ ফেব্রয়ারী দিবাগত রাতে চুনারুঘাট থানার রানীগাঁও ইউনিয়নের চাটপাড়া গ্রামের হাওর এলাকা যুগীর আসন নামক টিলায় অনুমানিক ২২ বছর বয়সী অজ্ঞাত নামা তরুণীর মৃতদেহ পাওয়া যায়। তরুণীর তুথনীর নিচে ধারালো জখম থাকায় পুলিশ নিশ্চিত হয় এটি হত্যাকাণ্ড। অজ্ঞাত নামা তরুণীর নাম-ঠিকানা তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত না হওয়ায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা রুজু করেন। হত্যাকাণ্ডের পর চুনারুঘাট সদর হাসপাতালের জনৈক নার্সের পালিত কন্যা সুমি আক্তারের নিখোঁজের সূত্র ধরে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। সুমি আক্তারের মায়ের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহের জন্য বিজ্ঞ আদালতের অনুমতি পাওয়ার পর সুমির ভাই তার বোনকে ফিরে পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে। পুলিশ অন্য সূত্র খুঁজতে থাকে। গত মাসে অত্র মামলার ঘটনাস্থল পার্শ্ববর্তী এলাকা করাঙ্গী নদীর তীরে একজন অজ্ঞাতনামা লোক ফারুক নামের এক ব্যবসায়ীকে ঢাকা থেকে এনে হত্যার উদ্দেশ্যে ছুরিকাঘাত করে।

উক্ত ঘটনার তদন্তকালে পুলিশ জানতে পারে পাচারগাঁও গ্রামের এক লোক তার পরিচয় গোপন করে কাওছার নামে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করেছে। পুলিশ কাওছারের প্রকৃত পরিচয় জানতে পারে। পুলিশ তথ্য পায় কাওছারের প্রকৃত নাম আফছার এবং সে অত্র মামলার ঘটনার দিন রাতে তার স্ত্রী রিপা বেগমসহ একটি অপরিচিত মেয়েকে নিয়ে পাচারগাঁও তার মায়ের বাড়ীতে বেড়াতে এসেছিল। রাতের খাওয়া দাওয়া শেষে ঐ রাতেই তারা চলে যায়। কাওছারের মা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানায়, ঘটনার দিন রাতে তার ছেলে আফছার ও তার স্ত্রী আরেকটি মেয়েসহ বেড়াতে এসেছিল। পুলিশ উক্ত হত্যাকাণ্ডে আফসারের জড়িত থাকার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে গ্রেফতার করতে তৎপর হয়। এক পর্যায়ে মহিলা পুলিশ আফসারের সাথে প্রেমের অভিনয় শুরু করে। প্রেমিক আফসার তার প্রেমিকা দেখতে আসলে সে পুলিশের জালে ধরা পড়ে। পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে। এবং ভিকটিমের নাম মিষ্টি বলে জানালেও তার প্রকৃত পরিচয় জানে না বলে জানায়। তবে মেয়েটি মৌলভীবাজার শহরে ডিটারজেন্ট কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতো। এই সূত্র ধরে মেয়েটির সঠিক নাম পরিচয় জানা যায়। তার বাবা সড়ক ও জনপদ পরিদর্শন মৌলভী বাজারে কাজ করতেন। বর্তমানে তারা সড়ক ও জনপদ পরিদর্শন বাংলো, রূপশপুর, শ্রীমঙ্গলে থাকেন। মেয়েটি তার মায়ের সাথে রাগ করে মৌলভীবাজার শহরে বাসা ভাড়া করে থাকতো। হত্যাকণ্ডের প্রায় এক মাস আগে একদিন ঘটনাচক্রে আসামী রিপার সাথে জনৈক শুকলা এবং ভিকটিম মিষ্টির পরিচয় ঘটে। ঐ সময়ে ভিকটিম মিষ্টি ও শুকলা থাকার জন্য মৌলভীবাজার শহরে ভাড়া বাসা খুঁজতেছিল। এই সংবাদ জানতে পেরে ভিকটিম মিষ্টি ও শুকলাকে রিপা সাবলেট হিসেবে থাকার প্রস্তাব দেয়। প্রস্তাবে রাজি হয়ে শুকলা ও মিষ্টি মৌলভীবাজর শহরে জনৈক চাঁদ মিয়ার দূর্গামহল্লাস্থ রিপার ভাড়া বাসায় ওঠে বসবাস করতে থাকে। ঐ বাসায় অপর আসামী রিপার স্বামী মোঃ আফসার মিয়া উরফে কাওছারও থাকতো। কিছুদিন পর শুকলা সেখান থেকে অন্যত্র চলে যায়। এক বাসায় থাকার সুবাদে ভিকটিম মিষ্টির সাথে রিপার স্বামী মোঃ আফছার মিয়া উরফে কাওছার এর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে অনৈতিক দৈহিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এ নিয়ে স্বামী মোঃ আফছার মিয়া উরপে কাওছারের সাথে রিপার সম্পকের্র চরম অবনতি ঘটে। প্রায়ই স্বামী মোঃ আফছার মিয়া স্ত্রী রিপাকে মারধর করতো। ঘটনার আগের দিনও স্বামী মোঃ আফছার মিয়া কাউছার তার স্ত্রী রিপাকে গালিগালাজ ও মারধর করে। পরে তাদের সংসার টিকিয়ে রাখতে স্বামী স্ত্রী মিলে পরিকল্পিত ভাবে মিষ্টিকে হত্যা করে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com