চুনারুঘাটে বিজিবি’র ৬ জোয়ানের নামে আদালতে মামলা ॥ সিআইডি মাঠে।

চুনারুঘাটে বিজিবি’র ৬ জোয়ানের নামে আদালতে মামলা ॥ সিআইডি মাঠে।

চুনারুঘাটে বিজিবি’র ৬ জোয়ানের নামে আদালতে মামলা ॥ সিআইডি মাঠে

মোঃ সনজব আলীঃ বাল্লা বিজিবি’র জোয়ান এরশাদ কর্তৃক নিরীহ এক ব্যক্তিকে পিঠিয়ে আহত করে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো ও এক কলেজ ছাত্রীকে হয়রানী করায় বিজিবি’র ৬ জোয়ানের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মামলার আসামীরা হলেন, বাল্লা বিজিবি’র জোয়ান এরশাদ মিয়া, নায়েব সুবেদার জাহাঙ্গীর, গুইবিল সীমান্ত ফাঁড়ির নায়েক মোঃ মামুন, সিপাহী সালাউদ্দিন, সিপাহী আঃ হাকিম, সিপাহী নাজমুল হোসেন। মামলাটি গত ২৯ অক্টোবর হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমল (২) আদালতে দায়ের করেছেন নির্যাতিত আবু মিয়ার মা ছালেহা খাতুন। মামলাটি তদন্ত করে আগামী ধার্য্য তারিখের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
জানা গেছে, গাজীপুর ইউনিয়নের টেকেরঘাট গ্রামের আঃ ছত্তরের পুত্র আঃ রউফ আবুকে বাল্লা বিজিবি’র সিকিউরিটি এরশাদ ২১ অক্টোবর রাতে বাল্লা রেল স্টেশন থেকে আটক করে বাল্লা তিনকোনা খেলার মাঠে নিয়ে যায় এবং বেদম লাঠিপেঠা করে মারাত্মকভাবে আহত করে।

বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সাধারন মানুষের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। অবস্থা বেগতিক দেখে আহত আবুকে রাতে গুইবিল ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেয় বাল্লা বিজিবি। ঘটনার দিন রাতেই সিকিউরিটি এরশাদকে ব্যাটালিয়ানে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

পরদিন সকালে বাল্লা বিজিবির কাছে আবুর সন্ধান চেয়ে বিােভ শুরু করেন এলাকার লোকজন। এ সময় বাল্লা ক্যাম্পের সুবেদার আবুকে আটকের কথা অস্বীকার করেন। এলাকাবাসিরা চিৎকার করে “আবুকে মেরে ফেলা হয়েছে বলে” প্রতিবাদ শুরু করেন। খবর পেয়ে চুনারুঘাট থানার ওসি এম এ আশরাফ ঘটনাস্থলে আসেন এবং খেলার মাঠে রক্ত দেখতে পান।

তিনি তাৎণিক সুষ্ঠু তদন্তের আশ্বাস দিয়ে বাল্লা বিজিবি ক্যাম্পে গিয়ে ঘটনার বিস্তারিত অবগত হন। এ সময় আবুকে গুইবিলের বিজিবি জোয়ানরা আটক করেছে বলে জানান নায়েব সুবেদার জাহাঙ্গীর।

 

মুক্তিযোদ্ধা আঃ আলীসহ এলাকার লোকজন বলেন, রাতে ছোট বোনের জন্য ওষুধ কিনতে আবু বাল্লা রেল স্টেশনে গেলে রহস্যজনক কারণে আবুকে আটক করে সিকিউরিটি এরশাদ।

এরপর তাকে বাল্লা খেলার মাঠে নিয়ে লাঠিপেঠা শুরু করে। পরে তাকে অচেতন অবস্থায় বাল্লা ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয় এবং রাতে নেয়া হয় গুইবিল ক্যাম্পে। সকালে আবুকে পাঠানো হয় চুনারুঘাট হাসপাতালে।

 

এদিকে গুইবিল সীমান্ত ফাড়ির নায়েক মামুন মামলায় বলেছেন, আবুকে ৯শ গ্রাম গাঁজাসমেত ভানিকভান্ডার থেকে আটক করেন তারা। গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে আবু সামান্য আহত হয়েছেন। মামলার বাদি ছালেহা খাতুন বলেছেন, তার কলেজ পড়ুয়া কন্যাকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করতে গিয়ে জোয়ান এরশাদ তার পুত্র আবুকে মারপিঠ করে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছেন। গতকাল সোমবার (৯ নভেম্বর)সিআইডি’র একটি তদন্ত টিম বাল্লা সীমান্তের টেকেরঘাট গ্রাম পরিদর্শন করেছেন। তারা মামলার বাদি, কলেজ ছাত্রী ও আহত আবু’র সাথে কথা বলেছেন।

সিআইডি’র তদন্ত দল তাদের পরিচয় দেননি তবে তারা ঢাকা এবং হবিগঞ্জ সিআইডি থেকে এসেছেন বলে জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com