চুনারুঘাটে প্রশাসনের চেয়ে শক্তিশালী বালুখেকোরা

চুনারুঘাটে প্রশাসনের চেয়ে শক্তিশালী বালুখেকোরা

lokaloy24.com

হাবিবুর রহমান ॥হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার বিভিন্ন ছড়া ও মহাল থেকে ইজারা ছাড়াই অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে প্রভাবশালী একটি মহল। দিনরাতে অবাধে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। অনেক স্থানে প্রশাসন অভিযান চালিয়ে জরিমানা করলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে প্রশাসন নয়, বালুখেকোরাই এখানে শক্তিশালী। দিনে গড়ে ৩ থেকে ৫ লাখ টাকার বালু উত্তোলন করলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। জানা যায়, চুনারুঘাটের বাল্লা সড়কের আমকান্দি, রাজারবাজার খোয়াই নদীর পাশ থেকে শক্তিশালী ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে রাজারবাজার ব্রীজটি নিচের এপ্রোচ ভেঙ্গে যাচ্ছে। যে কোন সময় হেলে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ বিষয়ে উপজেলা মেম্বার সমিতির সম্পাদক দুলাল ভূইয়া জানান, সকালে অভিযান হয়, বিকেলে আবার বালু উত্তোলন করা হয়। যারা টাকা দেয় তারা থাকে ধরা ছোয়ার বাইরে। আর যারা টাকা দেয় না তাদেরকেই জরিমানা করা হয়। এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আহমদাবাদ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আব্দুল লতিফ জানান, বালু উত্তোলনের কারণে চুনারুঘাট উপজেলার দক্ষিণাঞ্চলের একমাত্র রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। যারা টাকা দেয় তারা থাকে ধরা ছোয়ার বাইরে। আর যারা টাকা দেয় না তাদেরকেই জরিমানা করার কথা তিনি জানান। জানা যায়, প্রতিদিন শত শত গাড়ি প্রশাসনের নাকের ডগায় বালু পাচার করলেও রহস্যজনক কারণে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় হচ্ছে না। যে কটি অভিযান পরিচালনা করা হয় তাও অতিসামান্য। প্রশাসন যেন বালুচোরদের কাছে জিম্মি। ইতোপূর্বে আইনশৃঙ্খলা সভায়ও বিষয়টি নিয়ে নানা অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে। প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ ট্রাক্টর বালু আমতলী এলাকায় নিয়ে আসার ফলে রাস্তাঘাটে ধুলায় ধুসরিত হয়ে যাচ্ছে। ফলে পথচারী ও শিক্ষার্থীদের চলাফেরায় নাভিশ্বাস উঠেছে। প্রতিদিন শত শত ট্রাক বালু যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও অলিপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চলে। প্রতি ট্রাক ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা হিসেবে প্রতিদিন ৩ থেকে ৫ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ওই চক্রটি। অথচ এ বালুমহাল থেকে সরকার কোনো রাজস্ব পাচ্ছে না। নিয়ম অনুযায়ী বালু উত্তোলনে কোনো প্রকার মেশিন ব্যবহার করা যাবে না। কিন্তু তিনি আইনের কোনো তোয়াক্কা না করেই ড্রেজার মেশিন দিয়ে দিনে-রাতে বালু উত্তোলন করছেন। অথচ স্থানীয় প্রশাসন এগুলো দেখেও না দেখার ভান করছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সত্যজিৎ রায় বলেন, ইজারা দেয়া হয় জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে। যদি কেউ শর্ত লংঘন করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা হবে।
হাবিবুর রহমান ॥ চুনারুঘাট উপজেলার বিভিন্ন ছড়া ও মহাল থেকে ইজারা ছাড়াই অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে প্রভাবশালী একটি মহল। দিনরাতে অবাধে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। অনেক স্থানে প্রশাসন অভিযান চালিয়ে জরিমানা করলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে প্রশাসন নয়, বালুখেকোরাই এখানে শক্তিশালী। দিনে গড়ে ৩ থেকে ৫ লাখ টাকার বালু উত্তোলন করলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। জানা যায়, চুনারুঘাটের বাল্লা সড়কের আমকান্দি, রাজারবাজার খোয়াই নদীর পাশ থেকে শক্তিশালী ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে রাজারবাজার ব্রীজটি নিচের এপ্রোচ ভেঙ্গে যাচ্ছে। যে কোন সময় হেলে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ বিষয়ে উপজেলা মেম্বার সমিতির সম্পাদক দুলাল ভূইয়া জানান, সকালে অভিযান হয়, বিকেলে আবার বালু উত্তোলন করা হয়। যারা টাকা দেয় তারা থাকে ধরা ছোয়ার বাইরে। আর যারা টাকা দেয় না তাদেরকেই জরিমানা করা হয়। এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আহমদাবাদ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আব্দুল লতিফ জানান, বালু উত্তোলনের কারণে চুনারুঘাট উপজেলার দক্ষিণাঞ্চলের একমাত্র রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। যারা টাকা দেয় তারা থাকে ধরা ছোয়ার বাইরে। আর যারা টাকা দেয় না তাদেরকেই জরিমানা করার কথা তিনি জানান। জানা যায়, প্রতিদিন শত শত গাড়ি প্রশাসনের নাকের ডগায় বালু পাচার করলেও রহস্যজনক কারণে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় হচ্ছে না। যে কটি অভিযান পরিচালনা করা হয় তাও অতিসামান্য। প্রশাসন যেন বালুচোরদের কাছে জিম্মি। ইতোপূর্বে আইনশৃঙ্খলা সভায়ও বিষয়টি নিয়ে নানা অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে। প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ ট্রাক্টর বালু আমতলী এলাকায় নিয়ে আসার ফলে রাস্তাঘাটে ধুলায় ধুসরিত হয়ে যাচ্ছে। ফলে পথচারী ও শিক্ষার্থীদের চলাফেরায় নাভিশ্বাস উঠেছে। প্রতিদিন শত শত ট্রাক বালু যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও অলিপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চলে। প্রতি ট্রাক ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা হিসেবে প্রতিদিন ৩ থেকে ৫ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ওই চক্রটি। অথচ এ বালুমহাল থেকে সরকার কোনো রাজস্ব পাচ্ছে না। নিয়ম অনুযায়ী বালু উত্তোলনে কোনো প্রকার মেশিন ব্যবহার করা যাবে না। কিন্তু তিনি আইনের কোনো তোয়াক্কা না করেই ড্রেজার মেশিন দিয়ে দিনে-রাতে বালু উত্তোলন করছেন। অথচ স্থানীয় প্রশাসন এগুলো দেখেও না দেখার ভান করছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সত্যজিৎ রায় বলেন, ইজারা দেয়া হয় জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে। যদি কেউ শর্ত লংঘন করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com