চুনারুঘাটের গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক কেন্দ্র ব্যবস্থাপক রতনের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ।

চুনারুঘাটের গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক কেন্দ্র ব্যবস্থাপক রতনের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ।

চুনারুঘাটের গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক কেন্দ্র ব্যবস্থাপক রতনের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

রতন বর্মার প্রত্যারণার শাস্তি চান নিরীহ চা শ্রমিক পরিবার

নিজস্ব প্রতিনিধি: জেলার চুনারুঘাট উপজেলার দেওরগাছ শাখার গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক কেন্দ্র ব্যবস্থাপক রতন বর্মার বিরুদ্ধে মিনা ঝড়া নামের এক চা- শ্রমিকের লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। মিনা ঝড়া ৩নং দেওরগাছ ইউনিয়নের চাকলাপুঞ্জি বাগান টিলা এলাকার মৃত শ্রীমান গোলাপ ঝড়ার স্ত্রী। মিনা ঝড়া জানান, অসুস্থ স্বামীর চিকিৎসার কথা বলে অফিসে নিয়ে টিপসই নিয়ে টাকা আত্নসাত করেন রতন বর্মা ও তার দুই সহযোগী। পরে অফিসের চাপের মুখে গত সপ্তাহে ডিপিএস এর ৪৪ হাজার টাকা ফেরত দিলেও মিলেনি প্রাপ্য টাকা। জানা যায়, মিনা ঝড়ার স্বামী মারা যাওয়ার ১০দিন পুর্বে স্বামীর চিকিৎসার জন্য গ্রামীণ ব্যাংকে লোন তুলার আবেদন করেন। আবেদনটি মনজুর হলেও তথ্যটি গোপন রাখেন রতণ বর্মা। কিছুদিন পর মারা যান মিনা ঝড়ার স্বামী গোলাপ ঝড়া। এ সুযোগটি কাজে লাগান রতন বর্মা। কারণ মৃত ব্যক্তির লোনের টাকা মকুফ এর নিয়ম রয়েছে। মিনা ঝড়ার অভিযোগ অর্থের অভাবে অসুস্থ স্বামীকে চিকিৎসা করাতে পারেননি ব্যাংকের রতনসহ কয়েকজন মিলে তার নামের টাকা তারাই উত্তোলন করে ভাগ ভাটোয়ারা করে নিয়েছেন। তিনি রতন বর্মাসহ এ অনিয়মের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় এনে বিচার এবং তার প্রাপ্য টাকা ফেরত চান। খোজ নিয়ে জানাগেছে মিনা ঝড়ার স্বামী লোনের আবেদনের ১০দিন পরই মারা যান। এর পর আর লোন নিবেন না মর্মে অফিস কর্তৃপকে জাননোর পরও রতন বর্মা জালিয়াতির মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করেন। মিনা ঝড়ার ছেলে জানায়, আমার পিতা মারা যাওয়ার আগে থেকেই লোনটি পাশ করা হয় কিন্তু টাকা আমাদেরকে দেয়া হয়নি। পরে বাবা মারা যাওয়ার পর মায়ের টিপসই নিয়ে দুর্নীতির আশ্রায় নিয়ে ব্যাংকের কেন্দ্র ব্যবস্থাপক রতন বর্মা কর্তৃপকে ম্যানেজ করে তড়িঘড়ি করে আমার পিতা মৃতুর পর তারা ভাগ ভাটোয়ারা করেন। এমনকি আমরা জানতে পারছি আমাদের নামের লোনটি রতন বর্মা মওকুফ করান। পরে ওই টাকাও তিনি আত্মসাত করেন। বিষয়টি মিনা ঝড়াসহ তাদের পরিবারের সন্দেহ হলে মিনা ঝড়া অফিসে জানান। গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম সাইফুল মজিদ বলেন, অভিযোগ আমরা কেন্দ্র থেকে সংগ্রহ করে অডিট অফিসে প্রেরণ করেছি। হবিগঞ্জের জোনাল ম্যানাজার জীবন চন্দ্র রায় বলেন, বিষয়টি শুনেছি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গ্রামীণ ব্যাংকের দেওরগাছ শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক সৈয়দ ইসরাফিল জানান, রতন বর্মার দুর্নীতির দায়ে তাকে ইনক্রিমেন্ট বাতিলের শাস্তি দেওয়া হয় এবং তাকে তাৎণিক দেওরগাছ শাখা থেকে গোপায়া শাখায় বদলী করা হয়। এসব অভিযোগ স্বীকার করে রতন বর্মা বলেন, বিষয়টি সমাধান হয়েছে এবং তাকে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com