চীন ও পাকিস্তান একযোগে ভারতে আক্রমণ চালাবে!

চীন ও পাকিস্তান একযোগে ভারতে আক্রমণ চালাবে!

চীন ও পাকিস্তান একযোগে ভারতে আক্রমণ চালাবে!
চীন ও পাকিস্তান একযোগে ভারতে আক্রমণ চালাবে!

লোকালয় ডেস্কঃ যুদ্ধ পরিস্থিতি, সীমান্তে উত্তেজনা এবং জরুরি ভিত্তিতে সামরিক বাহিনীকে প্রস্তুত রাখার আধুনিক রণনীতি চূড়ান্ত করার জন্য এই প্রথম ভারত সরকারের সর্বোচ্চ স্তরে একটি বিশেষ সামরিক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির নাম ডিফেন্স প্ল্যানিং কমিটি। কমিটির শীর্ষে চেয়ারম্যান হিসাবে থাকছেন অজিত দোভাল। যিনি ভারত সরকারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। এছাড়া অন্য সদস্যরা হলেন সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বায়ুসেনার তিন প্রধান। পররাষ্ট্রসচিব এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যয়সংক্রান্ত সচিব। তবে চেয়ারম্যান অজিত দোভালের বিশেষ অধিকার থাকছে এই কমিটিতে অন্য কোনো বিশেষজ্ঞ অথবা কর্মকর্তাকে অন্তর্ভুক্ত করার।

এ কমিটির প্রাথমিক দায়িত্ব একটি খসড়া প্রতিরক্ষা কৌশল রচনা করার। নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যেই সেই খসড়া রিপোর্ট জমা করতে হবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে। সেই কপি দেয়া হবে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরেও। বিদেশি কোনো রাষ্ট্রের সঙ্গে প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত সমঝোতা হবে, সীমান্তের কোথায় এখনই সামরিক পরিকাঠামো গড়ে তোলা হবে, কোনো অস্ত্রক্রয়ের জন্য বিশেষ প্রস্তাব তৈরি করে পাঠানো হবে, এই সবই ঠিক করবে এই বিশেষ কমিটি। বস্তুত লোকসভা ভোটের ঠিক এক বছর আগে এরকম একটি বিশেষ সামরিক কমিটি গঠনের উদ্দেশ্য নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে।

সরকারি সূত্রে বলা হয়েছে হঠাৎ তৈরি হওয়া কিছু সিকিউরিটি সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতেই এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রশ্ন হলো কী সেই চ্যালেঞ্জ? ঠিক যখন এই কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং প্রথমেই কমিটিকে একটি ন্যাশনাল ডিফেন্স স্ট্র্যাটেজি নিয়ে খসড়া রিপোর্ট জমা করতে বলা হয়েছে তখন চীনের সঙ্গে অবিরত সীমান্ত সমস্যা বেড়েই চলেছে। বস্তুত লাদাখ থেকে অরুণাচল প্রদেশ, লাগাতার চীনের লালফৌজের অনুপ্রবেশ এবং ভারতের সীমান্তের মধ্যে ঢুকে পড়ে পরিকাঠামো নির্মাণ চালিয়ে যাচ্ছে। যা নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে শীতল টানাপোড়েন চলছে।

ভারতীয় মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, ভারতের সেনাপ্রধান এবং ভারতীয় বিমানবাহিনী প্রধান দু’জনেই সম্প্রতি বলেছেন ভারত একসঙ্গে দুটি ফ্রন্টেই লড়াই করার জন্য প্রস্তুত। অর্থাৎ ভারতীয় সেনার আশঙ্কা ভারতের উপর হামলা চালানো হলে কৌশলগতভাবে পাকিস্তান ও চীন দুই সীমান্ত দিয়ে একযোগে আক্রমণ করে ভারতকে কোণঠাসা করার প্ল্যান নেয়া হতে পারে।

তাই ভারতের সেনা ও বিমানবাহিনীর পক্ষ থেকে বিবৃতি নিয়ে সম্প্রতি বলা হয়েছে, দুই ফ্রন্টেই যুদ্ধ একযোগে চালানোর ক্ষমতা আছে ভারতের। গোপনে চীন ও পাকিস্তানের কোনো যৌথ পরিকল্পনা আছে কিনা তা নিয়েই জল্পনা তুঙ্গে। কারণ এভাবে এর আগে কোনো প্রতিরক্ষামন্ত্রকের নিজস্ব স্টাফ কমিটির বাইরে বিশেষ কমিটির গঠনের নজির নেই। ভারতের সামরিক শিল্প এবং পরিকাঠামো উন্নয়নের একটি ১৫ বছরের দীর্ঘমেয়াদী স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান তৈরি করবে এই কমিটি। তাতেই যে কোনোরকমের পরিস্থিতির মোকাবিলায় রণনীতি তৈরির কৌশল থাকবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com