চার-পাঁচ বছরে ৩০টি বৃহৎ অর্থনীতির দেশের মধ্যে থাকবে বাংলাদেশ: অর্থমন্ত্রী

চার-পাঁচ বছরে ৩০টি বৃহৎ অর্থনীতির দেশের মধ্যে থাকবে বাংলাদেশ: অর্থমন্ত্রী

চার-পাঁচ বছরে ৩০টি বৃহৎ অর্থনীতির দেশের মধ্যে থাকবে বাংলাদেশ: অর্থমন্ত্রী
চার-পাঁচ বছরে ৩০টি বৃহৎ অর্থনীতির দেশের মধ্যে থাকবে বাংলাদেশ: অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আগামী চার থেকে পাঁচ বছরে বাংলাদেশের অর্থনীতি অনেক উপরে উঠে আসবে। এ সময়ে বৃহৎ ৩০টি অর্থনীতির দেশের মধ্যে থাকবে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) অডিটরিয়ামে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগযুক্ত ওয়ালটন র‌্যামের উৎপাদন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছেন আমরা হলাম বীরের জাতী। তাই আমরা কখনো পরাজিত হবো না। আমরা আজ এখানে এসেছি বিজয়ী হওয়ার জন্য। ওয়ালটন সব সময় ডিপ্লোম্যাটিক চিন্তা করে। এটা খুব ভালো। একটা সময় এ দেশে যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ আসবে। এদেশের মানুষ ঘরে ঘরে ফ্রিজ, টিভি ব্যবহার করবে। অর্থনৈতিক উন্নতি হবে। এগুলো কিন্তু চিন্তা করা লাগে। ভবিষ্যৎ চিন্তা করতে হয়। যারা ভবিষ্যৎ দেখতে পারে তাদের জন্য সুবিধা। ওয়ালটন সে কাজটি সঠিকভাবে করতে পেরেছে। আমি বিশ্বাস করি ওয়ালটনের হাত ধরে বাংলাদেশ আরো অনেক দূরে এগিয়ে যাবে। এবং ওয়ালটনকে অনুসরণ করে অনেকেই এগিয়ে আসবে। তারা একা থাকবে না। তাদের আরো প্রতিযোগিতা করতে হবে। নতুন নতুন প্রোডাক্ট তৈরি করতে হবে। নতুন নতুন ধ্যান ধারণায় তাদের এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন, আমি কখনো ভুল সিদ্ধান্ত নেইনি। বিষয়টি হল এই যে ওয়ালটন আজকে যাদের অনুষ্ঠান। যারা আমাদের বিশ্বাস আস্থার যায়গা আমাদের অনুপ্রেরণার উৎস। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য তারা দৃঢ় প্রত্যয়ী। আমিও এক সময় ফ্রিজ, টেলিভিশন তৈরি করতাম। তখন এই ওয়ালটন ছিল আমার প্রতিদ্বন্দ্বি।

তিনি বলেন, এখন চতুর্থ শিল্প বিপ্লব চলছে আর এটা হলো ডিজিটাল বিপ্লব। আমরা এর সদব্যবহার করবো। প্রথম শিল্প বিপ্লব হয়েছিল ১৭৮৪ সালে বাষ্পীয় ইঞ্জিন আবিষ্কারের মাধ্যমে। এরপর ১৮৭০ সালে বিদ্যুৎ ও ১৯৬৯ সালে ইন্টারনেটের আবিষ্কার শিল্প বিপ্লবের গতিকে বাড়িয়ে দেয় কয়েক গুণ। আমরা এগুলো মিস করেছি। এবার ডিজিটাল বিপ্লব মিস করতে চাই না।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে। তার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্থনৈতিক মুক্তির দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে অর্থনীতিতে বাংলাদেশ অনন্য উচ্চতায় উঠবে।

স্মৃতিচারণ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি থাকাকালে আমি ওয়ালটনকে স্পন্সর হিসেবে নিয়ে আসি। তাদের বলেছিলাম আপনারা ক্রিকেটকে সাপোর্ট দেন, আপনাদের বিক্রি আর জনপ্রিয়তা আরো বাড়বে। ক্রিকেটে তাদের সেই বিনিয়োগ বৃথা যায়নি। আশা করি, ইলেকট্রনিক্স বাজারে ওয়ালটন আরো অনেক নতুন নতুন পণ্য নিয়ে আসবে। আগামী ৫ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে আরো অনেক এগিয়ে যাবে।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এস এম রেজাউল আলম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম মঞ্জুরুল আলম অভি, ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক মো. হুমায়ূন কবীর, কম্পিউটার বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) প্রকৌশলী লিয়াকত আলী, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ফিরোজ আলম, অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর মিলটন আহমেদসহ বাংলাদেশ সরকারের এবং ওয়ালটনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com