চলচ্চিত্রে ২৫ বছর পূর্ণ করলেন শাবনূর

চলচ্চিত্রে ২৫ বছর পূর্ণ করলেন শাবনূর

চলচ্চিত্রে ২৫ বছর পূর্ণ করলেন শাবনূর
চলচ্চিত্রে ২৫ বছর পূর্ণ করলেন শাবনূর

বিনোদন প্রতিবেদক: বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাসে বিগত তিন দশকে যদি তিনজন জনপ্রিয় নায়িকার নাম উচ্চারণ করতে হয় তবে নিঃসন্দেহে সেখানে অনায়াসে চলে আসে জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূরের নাম।

এখনো কোটি ভক্তের প্রিয় নায়িকার নাম শাবনূর। সেই জনপ্রিয় নায়িকা সোমবার তার চলচ্চিত্রের পথচলায় আজ ২৫ বছর পূর্ণ করছেন। প্রয়াত কিংবদন্তী চলচ্চিত্র পরিচালক এহতেশামের হাত ধরেই ‘চাঁদনী রাতে’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে ১৯৯৩ সালের ১৫ অক্টোবর চলচ্চিত্রে শাবনূরের অভিষেক হয়।

এমবি ফিল্মস লি. প্রযোজিত আজিজ মোহাম্মদ ভাই নিবেদিত এই চলচ্চিত্রে শাবনূরের বিপরীতে অভিনয় করেন শাব্বীর। প্রথম চলচ্চিত্র ব্যবসা সফল না হলেও পরিচালক জহিরুল হক ঠিকই বুঝেছিলেন যে তাকে দিয়ে অভিনয় হবে। আর তাই প্রয়াত জহিরুল হকের ‘তুমি আমার’ চলচ্চিত্রে সালমান শাহ’র সঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়ে অভিনয় করে সালমান শাবনূর জুটি চলে আসেন আলোচনায়। আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি শাবনূরকে।

একই নায়কের সঙ্গে একে একে তিনি ‘বিক্ষোভ’, ‘তোমাকে চাই’, ‘স্বপ্নের ঠিকানা’, ‘মহামিলন’, ‘বিচার হবে’,‘জীবন সংসার’, ‘আনন্দ অশ্রু’সহ আরো বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রে শাবনূরের অনবদ্য নিজস্ব ঘরানার অভিনয় তাকে নিয়ে আসে জনপ্রিয়তার শীর্ষে। সেই সময়ই ওমর সানীর সঙ্গে তার ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র ওয়াকিল আহমেদ’র ‘প্রেমের অহংকার’ ও ‘অধিকার চাই’। সালমানের মৃত্যুর পর শাবনূর জুটি হিসেবে রিয়াজের বিপরীতে কাজ শুরু করেন। তারসঙ্গেও অনেক ব্যবসা সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

মূলকথা শাবনূর যখন যার সঙ্গেই অভিনয় করেছেন দর্শক তার চলচ্চিত্র দেখার জন্যই হলমুখী হয়েছেন। সিনিয়র, জুনিয়র পরিচালকদের সঙ্গে শাবনূর সমানতালে কাজ করেছেন। ১৯৯৩ সাল থেকে বলা যায় প্রায় টানা পনেরো বছর শাবনূর তার রাজত্ব করে গেছেন।

পরবর্তীতে অনেক পরিচালকের অনুরোধে চরিত্রে ভিন্নতা এনে চলচ্চিত্রে নিজেকে উপস্থাপন করেছেন। তবে অনেক দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র তিনি উপহার দিলেও মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘দুই নয়নের আলো’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ২০০৫ সালে তিনি প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। এটিই তার প্রথম এবং একমাত্র জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

দীর্ঘ পঁচিশ বছরের এই পথচলা প্রসঙ্গে শাবনূর বলেন, দেখতে দেখতে জীবনের এতোটা সময় পেরিয়ে এসেছি ভাবলেই অবাক হই। কতো কতো প্রিয় মুখ আর নেই এখন, এ কথা ভাবলেও কষ্ট হয়। আল্লাহর রহমতে চলচ্চিত্রে এখনো যথেষ্ট সম্মান নিয়েই আছি আমি। আমার অভিনয় জীবনের পথচলায় আমার প্রত্যেক চলচ্চিত্রের পরিচালক, প্রযোজক, সিনেমাটোগ্রাফার, কাহিনীকার, প্রোডাকশন বয়, ট্রলিম্যান থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে আমার বোন ঝুমুরের কথা উল্লেখ করতেই হয়। সবারই সহযোগিতায় আমি আজকের শাবনূর। চলচ্চিত্রের সবাইকে নিয়ে আমি ভালো থাকতে চাই।

রাজধানীর বারিধারা এলাকায় অবস্থিত ‘সিডনী ইন্টারন্যাশনাল স্কুল’র দু’জন কর্ণধারের একজন শাবনূর। আরেকজন তারই ছোট বোন ঝুমুর। বর্তমানে স্কুলটি পরিচালনা করছেন তারা.

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com