ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে দেশে ৯ ও পশ্চিমবঙ্গে ১২ জনের মৃত্যু

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে দেশে ৯ ও পশ্চিমবঙ্গে ১২ জনের মৃত্যু

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  প্রবল শক্তি নিয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ আছড়ে পড়েছে বাংলাদেশের উপকূলে। ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর, ভোলা, বরগুনা ও যশোরে নয় জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

ঘূর্ণিঝড় আম্পান ১৫১ কিলোমিটার বেগে সাতক্ষীরা অতিক্রম করে। ১৬৭ কিলোমিটারে আঘাত হানে যশোরে। যার প্রভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে অনেক ঘর-বাড়ি ও গাছপালা ভেঙে পড়েছে।

জানা যায়, পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে গলাচিপা উপজেলায় রাসেদ (৬) নামে এক শিশু ও কলাপাড়ায় শাহ আলম নামে সিপিপি’র এক কর্মীর মৃত্যু হয়। মৃত্যুর বিষয়টি কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল হাসনাত নিশ্চিত করেছেন।

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে দেয়াল চাপা পড়ে একজনের মৃত্যু হয়।

ভোলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার আহমেদ জানান, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় বয়স্ক ভাতা নেয়ার জন্য যাচ্ছিলেন ছিদ্দিক ফকির। এ সময় দক্ষিণ আইচা এলাকায় তার ওপর গাছের ডাল ভেঙে পড়ে। গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়।

এছাড়া ভোলার বোরহানউদ্দিনের হাসান ইউনিয়নের রফিকুল ইসলাম (৩৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ভোলার বোরহানউদ্দিন থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ এনামুল হক জানান, লক্ষ্মীপুর থেকে ট্রলারে করে ভোলায় আসার পথে আলতু মিয়ার ঘাট এলাকায় মেঘনা নদীতে ডুবে রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন।

সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল সাতক্ষীরা শহরের সঙ্গীতা মোড়ে আম কুড়াতে গিয়ে ঝড়ের কবলে পড়ে এক নারী মারা গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

যশোর চৌগাছা উপজেলার চাঁদপুর গ্রামে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে গাছ পড়ে মা ও মেয়ে নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন, চৌগাছার চাঁদপুর গ্রামের মৃত ওয়াজেদ আলীর স্ত্রী খ্যান্ত বেগম (৪৫) ও তার কিশোরী মেয়ে রাবেয়া খাতুন (১৩)। বিষয়টি চৌগাছা থানার ওসি নিশ্চিত করেছেন।

এছাড়া বরগুনা সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুমা আক্তার জানান, মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে সদর উপজেলার আশ্রয়কেন্দ্র যাওয়ার পথে এক ব্যবসায়ী অসুস্থ হয়ে মারা যান।

এদিকে, পশ্চিমবঙ্গে রাতভর তাণ্ডব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় আম্পান। ঘূর্ণিঝড়ের কবলে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। আম্পানের তাণ্ডবে কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

প্রবল বাতাস, অতিবৃষ্টি ও জলোচ্ছ্বাসে লাইটপোস্ট, সিগন্যাল পোস্ট ও গাছ পড়ে অবরুদ্ধ হয়ে আছে কলকাতার বেশির ভাগ রাস্তা।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, আম্পানের প্রভাব করোনাভাইরাস মহামারির চেয়েও খারাপ। দুই ২৪ পরগনায় আম্পান তাণ্ডবলীলা চালিয়েছে। বাড়িঘর, নদীর বাঁধ ভেঙে গিয়েছে, ক্ষেত ভেসে গিয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের ১ লক্ষ কোটি টাকা ক্ষতি হতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

পাথরপ্রতিমা, নামখানা, বাসন্তী, কুলতলি, বারুইপুর, সোনারপুর, ভাঙড় থেকে যা খবর এসেছে তা ভয়াবহ। খারাপ খবর উত্তর ২৪ পরগনা থেকেও এসেছে। তবে ক্ষয়ক্ষতি কতটা হয়েছে, সেই সংক্রান্ত সবিস্তার তথ্য পেতে ৩-৪ দিন লেগে যাবে বলে জানান তিনি।

স্থানীয় আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, সুন্দরবন-সহ উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার উপকূলে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৫ কিমি বেগে ঝড় বয়ে গিয়েছে। দমদমে ঝড়ের সর্বোচ্চ বেগ ছিল ঘণ্টায় ১৩৩ কিলোমিটার ও কলকাতার আলিপুরে ১১৪ কিলোমিটার। রাত পর্যন্ত কলকাতায় বৃষ্টি হয়েছে ২৪৪.২ মিলিমিটার। কলকাতায় মে মাসে একদিনে এত বৃষ্টি আগে দেখা যায়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com