সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ঘুরে আসুন সৈয়দপুরের চিনি মসজিদ

ঘুরে আসুন সৈয়দপুরের চিনি মসজিদ

http://lokaloy24.com

বাংলাদেশের ঐতিহাসিক প্রত্নতাত্ত্বিক এবং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের মধ্যে যে কয়টি মসজিদ রয়েছে চিনি মসজিদ তার মধ্যে অন্যতম। শৈল্পিক কারুকাজ ও দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য হিসেবে চিনি মসজিদের রয়েছে বিশেষ খ্যাতি। রংপুর বিভাগের নীলফামারী জেলার সমৃদ্ধ জনপদ সৈয়দপুর উপজেলায় অবস্থিত এই ঐতিহাসিক চিনি মসজিদ। মসজিদে প্রায় পাঁচ শতাধিত লোক এক সঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারেন।

ঐতিহাসিক পটভূমি : ১৮৬৩ সালে হাজী বাকের আলী ও হাজী মুকুল নামে স্থানীয় দুই বাসিন্দা সৈয়দপুর উপজেলা শহরের ইসবাগ নামক স্থানে বাঁশ কাঠ আর বাঁশের বেড়া দিয়ে সর্বপ্রথম এই মসজিদের গোড়াপত্তন করেন। পরবর্তীতে এলাকাবাসীর সহায়তায় মসজিদটিকে টিনের মসজিদে রুপান্তরিত করা হয়। এরপর এলাকার লোকজন মসজিদের জন্য তহবিল সংগ্রহ করেন এবং শুরু হয় মসজিদের মূল কাজ।

১৯২০ সালে হাফেজ আবদুল করিমের উদ্যোগে সর্বপ্রথম মসজিদের প্রথম অংশ পাকা করা হয়। এ সময় মসজিদের দৈর্ঘ্য ছিল লম্বায় ৪০ ফুট ও প্রস্থে ৩৯ ফুট। ১৯৬৫ সালে মসজিদের দ্বিতীয় অংশ পাকা করা হয় এবং শেষে ১৯৮০ দশকে মসজিদের শেষ অংশ পাকা করা হয়। কারুকার্যের জন্য সুদূর কলকাতা থেকে মর্মর পাথর ও চিনামাটির নকশা করা থালা আনা হয় মসজিদের অধিকাংশ কারুকাজ চিনা মাটির। মসজিদের নকশার কারিগরও কলকাতা থেকে আনা হয়েছিলো। মসজিদের সৌন্দর্য বাড়াতে এর দেয়ালে চিনামাটির থালার ভগ্নাংশ ও কাঁচের ভগ্নাংশ বসানো হয়। এই পদ্ধতিকে চিনি করা বা চিনি দানার কাজ করা বলা হয়।

সংগৃহীত ছবি

ধারণা করা হয়, এখান থেকেই এর নামকরণ হয় চিনি মসজিদ আবার কেউ কেউ বলেন পুরো মসজিদটিতে চিনা মাটির কাজ বলে একে চিনা মসজিদ ও বলা হত পরে কালক্রমে চিনা মসজিদ থেকে এর নাম চিনি মসজিদ হয়ে যায়। ধীরে ধীরে মসজিদের পরিধি বৃদ্ধি পেতে থাকে। বর্তমানে মসজিদে পাঁচ শতাধিক মুসুল্লি একসাথে নামাজ আদায় করতে পারেন।

কারুকার্য : চিনি মসজিদ নির্মানে মুঘল আমলের স্থাপত্যশৈলী অনুসরণ করা হয়েছে। মসজিদের দেয়ালে ফুলদানি, ফুলের ঝাড়, গোলাপ ফুল, একটি বৃন্তে একটি ফুল, চাঁদ তারাসহ নানা কারুকার্য অঙ্কিত করা আছে। মসজিদ তৈরীতে প্রচুর মার্বেল পাথর ব্যবহার করা হয়েছে। মসজিদটিতে ২৭টি বড় মিনার, ৩২টি ছোট মিনার ও তিনটি বড় গম্বুজ রয়েছে। দোতালা মসজিদের প্রবেশ পথের পাশে আযান দেওয়ার জন্য মিম্বার রয়েছে। মসজিদে ২৪২টি শংকর মর্মর পাথর রয়েছে। মসজিদের বারান্দা সাদা মোজাইক পাথর দ্বারা আবৃত। মসজিদের সম্পূর্ন অবয়ব রঙিন পাথরে মোড়ানো। মসজিদে প্রবেশের জন্য উত্তরে ও দক্ষিণে একটি করে প্রধান দরজা আছে। মসজিদের দোতালায় একটি ভবনসহ একটি মেহমান খানা আছে। সেখানে পর্যটকদের জন্য থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা ও আছে।

যাতায়ত : রাজধানী ঢাকা থেকে বিমানে সৈয়দপুর যাওয়া যায়। আবার রাজধানী ঢাকা বা দেশের যে কোন স্থান থেকে সড়ক পথে উত্তরবঙ্গের সৈয়দপুরে যেতে হবে। সৈয়দপুর শহরের ইসবাগ এলাকায় এই চিনি মসজিদ অবস্থিত।

থাকা-খাওয়া : সৈয়দপুর শহরে আছে বেশ কিছু ভালো মানের ও মধ্যম মানের আবাসিক হোটেল। সৈয়দপুর হচ্ছে অবাঙ্গালী বিহারী মুসলিম জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত এলাকা ফলে এখানে নানা রকমের মূখরোচক খাবার পাওয়া যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com