সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
গেল ৫ দশকে হবিগঞ্জ থেকে বিলীন অর্ধেকের বেশি নদী : বাকিগুলোও সংকটাপন্ন

গেল ৫ দশকে হবিগঞ্জ থেকে বিলীন অর্ধেকের বেশি নদী : বাকিগুলোও সংকটাপন্ন

৭০ দশকে হবিগঞ্জে অন্তত ৫০টির অধিক নদী ছিল। বর্তমানে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের তালিকায় আছে মাত্র ২২টি নদীর নাম। অর্থাৎ গেল ৫ দশকে হবিগঞ্জ থেকে অর্ধেকেরও বেশি নদীর নামই মুছে গেছে।
অস্থিত্ব নেই নদীর সাথে মিশে থাকা শত শত খালের। এসব নদী ও খাল দখল করে গড়ে ওঠেছে বসতি, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় স্থাপনা। দীর্ঘ সময় ধরে খনন না করায় সমতল ভুমিতে পরিণত হওয়া নদীর সংখ্যাও কম নয়।
যে ২২টি নদী এখনও টিকে আছে সেগুলোও পরিণত হয়েছে খাল বা নালায়। সেই সাথে নদী শাসনে মহা সংকটাপন্ন অবস্থায় রয়েছে কুশিয়ারা, কালনী, খোয়াই, ধলেশ্বরী, সুতাং, রত্না এবং করাঙ্গীর মতো বড় নদীগুলোও।
পরিবেশ কর্মীরা বলছেন- এসব নদী হারিয়ে যাওয়া এবং দখল দুষণের জন্য সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা দায়ি। এখনও যেসব নদী টিকে আছে এগুলো সংরক্ষণ করা না হলে- কয়েক বছর পর সেগুলোও হারিয়ে যাবে। এতে চরম সংকটে পরবে পরিবেশ প্রকৃতি ও প্রাণীকুল।
নবীগঞ্জের এক সময়ের খরাস্রোতা শাখাবরাক নদী। এই নদীকে ঘিরেই গড়ে ওঠেছিল নবীগঞ্জ শহর। এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্যের একমাত্র মাধ্যম ছিল নদীপথ। এই নদী দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করত শত শত নৌযান। নদীতে মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করতেন এই এলাকার বাসিন্দারা। গেল চার দশকে সেই নদীটি এখন মৃতপ্রায়। নদীর দুই পাশ দখল করে গড়ে ওঠেছে শত শত বসতি আর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। ফলে মরা খালে পরিণত হয়েছে এক সময়ের খড়¯্রােতা নদীটি।
নদীটি নিয়ে ছোটবেলার স্মৃতি মনে করে শহরের অনমনু গ্রামের ৫৫ বছর বয়সি ধনাই মিয়া বলেন, ‘নদীটির দিকে চাইলে কষ্ট লাগে। এক সময় এই নদীর কি যৌবন ছিল। নদীর দুইপাশে শত শত নৌকা বাঁধা থাকত। এসব নৌকা বিভিন্ন এলাকা থেকে কত মালামাল নিয়ে আসত নবীগঞ্জে। আর মাছের কথা কি বল- ডুব দিয়ে খালি হাতে মাছ ধরে নিয়া আসা যাইত। এখন এই নদী লাফ দিয়ে পাড় হওয়া যায়।’
এদিকে, দখলের কবলে বিলিনের পথে বাহুবলের করাঙ্গী ও মাধবপুরের সোনাই, শিল্পবর্জ্য দুষণে মৃতপ্রায় সুতাং আর ব্যক্তি মালিকানায় চলে গেছে সুটকি নদী। চরম সংকটে রয়েছে রতœা এবং হবিগঞ্জ শহরকে ঘিরে থাকা খোয়াইও।
লাখাই উপজেলার রিচি এলাকার বাসিন্দা মঈনুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের এখানে অনেক নদী ছিল। সেগুলোর অনেক নদীই এখন নেই। কয়েকটা নদী খালের মতো হয়ে গেছে। এক সময় সেগুলোতে অনেক মাছ পাওয়া গেলেও এখন হাত-পাও ধুয়া যায় না।’
জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়- ৭০ দশকে হবিগঞ্জে কতটি নদী ছিল সেই তথ্য তাদের কাছে নেই। তবে ২০২১ সালের করা একটি তালিকাতে তাদের কাছে ২২টি নদী ও ৬৩টি খালের নাম রয়েছে। খালগুলোর চিন্তা বাদ দিয়ে আপাততো নদীগুলো বাঁচানোর উদ্যোগ নিচ্ছেন তারা। এর মধ্যে ১৬ কোটি টাকা ব্যায়ে রতœা ও ধলেশ্বরির ৮ কিলোমিটার ড্রেজিং কাজ চলমান রয়েছে। সেই সাথে ৭৮ কোটি টাকা ব্যায়ে খনন চলছে বিজনা-গোপলা, করাঙ্গী, কাস্তি, সোনাই নদীর ১১৭ কিলোমিটার। যার ৫০ শতাংশ কাজ শেষ।
হবিগঞ্জ শহরের পুরাতন খোয়াই নদী রক্ষায় ৯১ লাখ টাকা ব্যায়ে নদীর পশ্চিমপাড়ে ওয়াকওয়ে নির্মাণের কাজ চলছে। আর শহর থেকে অন্তত ১২ ফুটের বেশি উঁচু হয়ে যাওয়া নতুন খোয়াই নদী ড্রেজিংসহ বিভিন্ন কাজের জন্য ১৪শ’ কোটি টাকার একটি প্রকল্প একনেকে অনুমোদনের অপেক্ষায়।
এদিকে, যে ৫টি নদীর খনন কাজ চলছে সেগুলোওর বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে স্থানীয়দের। স্থানীয়রা বলছেন- কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে খনননের নামে নদীকে খালে রূপান্তরিত করার কাজ চলছে। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জের বিজনা নদী খনন প্রকল্পের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে মামলা করেছেন স্থানীয় জনগণ। বাহুবলের করাঙ্গী নদীর খননে অনিয়মের অভিযোগ এনে বিভিন্ন কর্মসুচি পালন করেও ব্যার্থ হয়ে এখন নিরব স্থানীয়রা।
বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল বলেন, ‘নদী হারিয়ে যাওয়া এবং দখল দুষণের জন্য সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা দায়ি। তারা এসব নদী রক্ষণাবেক্ষণে ব্যার্থ হওয়ার কারণেই প্রতিনিয়ত নদী দখণ হচ্ছে। এছাড়া যে সরকারই যখন ক্ষমতায় আসে- সেই সরকারের ক্ষমতাশীন নেতারা নদী দখল করেন।’
তিনি বলেন- ‘বিভিন্ন সময় আমরা শুনি নদী রক্ষায় বিভিন্ন প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। কিন্তু সেই প্রকল্প সম্পর্কে জনগণকে অবগত করা হয় না। কিছুদিন তোড়জোর করে পূণরায় সেই প্রকল্প বন্ধ করে দেয়া হয়। পরিবেশ প্রকৃতি ও প্রাণীকুল রক্ষায় নদী বাঁচাতে এখনই উদ্যোগি হতে হবে। না হলে, সামনের দিনগুলোতে আমাদের জীবনে ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে আসবে।’
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শামীম হাসনাইন মাহমুদ বলেন, ‘নদী রক্ষায় আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছি। ইতোমধ্যে নদীর ওপর গড়ে ওঠা ৯৪২টি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। বাকিগুলো উচ্ছেদেও তালিকা তৈরী করে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে পাঠানো হয়েছে। তবে হাইকোর্টে মামলা থাকায় ৩৩টি স্থাপনায় হাত দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।’
তিনি বলেন, ‘শুধু সাধারণ মানুষ নয়- যেসব শিল্পপ্রতিষ্ঠান নদী দুষণ করছে তাদের বিরুদ্ধেও সংশ্লিষ্ট আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর নদী খননে কোনধরণে অনিয়ম হয়নি। নদীতে প্রাণ ফেরাতেই ম্যাপ অনুযায়ি খনন কাজ করা হচ্ছে।’
জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান বলেন- ‘নদী দখল ও দুষণমুক্ত রাখতে কাজ করছে জেলা প্রশাসন, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও পরিবেশ অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তর। এমনকি দখলদারদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র্রপক্ষ হিসেবে আদালতেও লাড়াই করছি আমরা।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com