গৃহবধূকে বাড়িতে ঢুকে হত্যার পাঁচ ঘন্টা পর ঘাতক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

গৃহবধূকে বাড়িতে ঢুকে হত্যার পাঁচ ঘন্টা পর ঘাতক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

গৃহবধূকে বাড়িতে ঢুকে হত্যার পাঁচ ঘন্টা পর ঘাতক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত
গৃহবধূকে বাড়িতে ঢুকে হত্যার পাঁচ ঘন্টা পর ঘাতক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়ায় গৃহবধূকে গুলি করে হত্যার ৫ ঘন্টার ব্যবধানে প্রধান আসামি শাহ আলম পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন।

রবিবার ভোররাতে বাকলিয়া উপজেলার বজ্রঘোনার কাছাকাছি কল্পলোক আবাসিক এলাকায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন শাহ আলম (৩৮) নামে ওই সন্ত্রাসী।

এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনার প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আগে নগরে বুবলি আক্তার (২৭) নামের এক গৃহবধূ খুন হন। বুবলি আক্তার বলিরহাট মদিনা জামে মসজিদ এলাকার নোয়া মিঞার মেয়ে। তার স্বামীর নাম আকরাম হোসেন। তিনি বজ্রঘোনা এলাকায় বাবার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন।

শনিবার রাতে ঘরে ঢুকে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এই খুনের ঘটনায় শাহ আলম জড়িত ছিলেন বলে দাবি পুলিশের। তিনি এই হত্যা মামলার আসামি ছিলেন।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মুহাম্মদ আবদুর রউফ জানান, বজ্রঘোনা এলাকার যুবক শাহআলমের সঙ্গে স্থানীয় হাসান নামের এক যুবকের বিরোধ ছিল। এই হাসান বুবলীদের আত্মীয় ও বুবলীর ভাই রুবেলের বন্ধু। শনিবার রাতে হাসানের সঙ্গে বিরোধের জেরে বুবলীর ভাই রুবেলকে মারার জন্য অস্ত্র হাতে খুঁজছিল শাহআলম। পরে রুবেলকে না পেয়ে তার বোন বুবলীকে গুলি করে হত্যা করে।

আবদুর রউফ বলেন, বুবলি হত্যার ঘটনায় রাতেই মামলা হয়। বুবলির বাবার বাড়ির পাশের একটি বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, বাড়িটি থেকে দুই হাতে দুটি পিস্তল নিয়ে বেরিয়ে আসছেন শাহ আলম। তিনি কয়েকটি গুলি করে পালিয়ে যাচ্ছেন। তার সঙ্গে থাকা যুবকদের প্রত্যেকের হাতে অস্ত্র ছিল।

তিনি বলেন, এরপর বাকলিয়া থানার বলিরহাট এলাকায় গৃহবধূ বুবলি আক্তার (৩৫) হত্যার প্রধান অভিযুক্ত শাহ আলম বজ্রঘোনার কল্পোলক আবাসিক এলাকায় অবস্থান করছে এমন গোপন খবরে সেখানে অভিযান চালায় পুলিশ। টের পেয়ে শাহ আলম ও তার সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দিনসহ চার ‍পুলিশ সদস্য আহত হন।

আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে তারা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে শাহ আলমকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাৎক্ষণিক তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

বুবলি হত্যার ঘটনায় জড়িত অপর দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন- নিহত শাহ আলমের ভাই নুরুল আলম ও সহযোগী মো. নবী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com