গল্প – খ্যাপা‌টে ‘জো‌সেফ ডরনান’

গল্প – খ্যাপা‌টে ‘জো‌সেফ ডরনান’

গল্প - খ্যাপা‌টে ‘জো‌সেফ ডরনান’
গল্প - খ্যাপা‌টে ‘জো‌সেফ ডরনান’

সব্যসাচী চৌধুরী

শাহরুখ খা‌নের “কুচ কুচ হোতা হ্যা” মু‌ভি‌তে একটা অসাধারণ ডায়লগ অা‌ছে।

যার সারমর্ম ছিল,

“একটা ছে‌লের মাথা তিনজ‌নের সাম‌নে নত হয়। সৃ‌ষ্টিকর্তার সাম‌নে, মা‌য়ের সাম‌নে অার ভালবাসার মানুষ‌টির সাম‌নে।”

বাবার অব‌হেলা পাওয়া ছে‌লেগুলা প্রচন্ড রক‌মের মা ভক্ত হয়।‌ ‘জো‌সেফ ডরনান’ তার ব্য‌তিক্রম না। ডরনান একজন টগব‌গে যুবক যার দু‌নিয়া তার মা‌য়ের ম‌ধ্যেই দেখ‌তে পায়। কোন একটা অজানা কার‌ণে সে সবসময় বাবা থে‌কে দূ‌রে থাক‌তো।

মা ই ছিল সব।

ত‌বে অারও একজন ছিল। যা‌কে মা‌য়ের পর সব‌চে‌য়ে বে‌শি ভালবাস‌তো। হ্যা ভালবাস‌তো, এখন বা‌সেনা, ভালবাসা পু‌ড়ে কয়লা হ‌য়ে গে‌ছে। স্কু‌লে থাক‌তে সে ‘নাওয়াজ মি‌স্ত্রি’র প্রে‌মে প‌ড়ে‌ছিল। ‌মে‌য়ে‌টি ছিল পা‌কিস্তা‌নি। অবশ্য ফ্রা‌ন্সের এই স্কুল‌টি‌তে অ‌নেক দে‌শের অ‌ভিবাসী ছে‌লে মে‌য়েরা পড়‌তো। নাওয়াজ মে‌য়ে‌টি দেখ‌তে একদম কা‌শ্মীরী অা‌পে‌লের মত লাল ছিল। তবে থেমস নদীর মতই শান্ত, কোন কোল‌াহল নেই। সে প্র‌ত্যেকটা মুহুর্ত মে‌য়েটা‌কে মিস কর‌তো। ত‌বে সে কখ‌নো প্রকাশ কর‌তে পা‌রে‌নি । সাহস হয়‌নি। একটা সময় মে‌য়েটাও হা‌রি‌য়ে যায় বিনা নো‌টি‌শেই।

ডরনান অ‌নেকটা ভে‌ঙে প‌ড়ে। মারাত্মক রক‌মের ডি‌প্রেশ‌নে চ‌লে যায়। মা ছাড়া অা‌শেপা‌শের সবার সা‌থে কঠোর ব্যবহার শুরু কর‌লো। নি‌জে‌কে ঘর ব‌ন্দি ক‌রে ফেলল। তিন‌বেনা ভর‌পেট খাওয়া ছে‌লেটা একদম খাওয়া-দাওয়া ছে‌ড়ে দিল। মা এসে যখন নিজ হা‌তে খাই‌য়ে দি‌তেন তখনই কেবল খে‌তো। অার যখন একদম খে‌তে চাই‌তো না তখন মা ওর প্রিয় নাস্তাগু‌লো বা‌নি‌য়ে খাওয়া‌তেন। খোঁচা দি‌য়ে বল‌তেন,

ভা‌সি‌র্টি‌তে প‌ড়িস এখ‌নো তো‌কে খাই‌য়ে দি‌তে হয় অামার, তোর বউ অান‌লে তা‌কেও তাহ‌লে খাই‌য়ে দি‌তে হ‌বে।

ডরনান তখন নাওয়া‌জের ভাবনায় চ‌লে যেত। চোখ থে‌কে জল গ‌ড়ি‌য়ে নাস্তার প্লে‌টে পড়‌তো। মা সেটা বু‌ঝেও না বুঝার ভান ক‌রে অাড়াল হ‌য়ে যে‌তেন। অ‌নেকটা বছর প‌রে ধী‌রে ধী‌রে ডি‌প্রেশন কা‌টি‌য়ে সুস্থ হয় ডরনান। যারা ডরনান‌কে একসময় মান‌সিক বিকারগ্রস্থ ভাব‌তো তা‌দেরও প্রিয় ব্যা‌ক্তিত্ব এখন ডরনান। স্বাভা‌বিক জীব‌নে ফি‌রে এলো সে শুধুমাত্র মা‌য়ের যত্ন অার ভালবাসায়।

ডরনানের বড়ভাইর নাম শ্যানন। সে দোকান নি‌য়েই ব্যস্ত। সহজ সরল একটা ছে‌লে। অার ডরনান হ‌য়ে‌ছে উল্টো রগচটা অার ভীষণ রক‌মের জে‌দি।

ডরনানের মা মি‌সেস ক্রি‌স্টিনা ছি‌লেন সমাজ সেবী। তি‌নি অা‌শেপা‌শের মানুষগু‌লো‌কে স‌াহায্য ক‌রে তীব্র অানন্দ বোধ কর‌তেন।

এক‌দিন সন্ধ্যায় ডরনান তার রু‌মে ঘুমা‌চ্ছে। ভাই শ্যানন গি‌য়ে‌ছে দোকা‌নে। মা গে‌ছেন পাড়ার সা‌লি‌শে বিচারক হি‌সে‌বে। বা‌দি-বিবাদী তর্ক-বিতর্ক চল‌ছে। একসময় বুঝা গে‌ছে একপক্ষ টাকা নি‌য়ে ফিরত দি‌চ্ছ‌েনা। মি‌সেস ক্রি‌স্টিন তা‌দের‌কে টাকা ফেরত দেওয়ার রায় দেন। কিন্তু অাসামীপক্ষ উল্টো বিচারক ক্রি‌স্টিনের গা‌য়ে হাত তুল‌তে তে‌ড়ে অা‌সে। ক্রি‌স্টিন তখন অাসামীপ‌ক্ষের সাহস দে‌খে ঠাশ ক‌রে একটা চড় ব‌সি‌য়‌ে দেন একজ‌নের গা‌য়ে। অাসামীপ‌ক্ষের একজন ফোন ক‌রে মানুষ অানায়।

মি‌সেস ক্রি‌স্টিন জা‌নেন এই ঘটনা ডরনান জান‌লে কেয়ামত হ‌য়ে যা‌বে তাই তি‌নি শ্যানন‌কে ফোন দি‌য়ে ঘটনাস্থ‌লে যে‌তে ব‌লেন।

ও‌দি‌কে অাসামী প‌ক্ষের লোকজন এসে উপ‌স্থিত। কিন্তু তারা বিচারক ম‌হিলা‌কে দে‌খে অবাক। কারণ তি‌নি খ্যাপা‌টে ডরনানের মা। তারা অাসামীপ‌ক্ষকে সমর্থন না ক‌রে উল্টো দর্শক হ‌য়ে ব‌সে রইল।

শ্যানন বড় ক‌য়েকজন মানুষ নি‌য়ে গেল বিচারে। শ্যানন খুবই বোকা‌সোকা সে একদম ঝা‌মেল‌া পছন্দ ক‌রেনা তাই সে ঘোষণা দিল ‌যে বাদীপ‌ক্ষের টাকাটা নি‌জেই মি‌টি‌য়ে দি‌বে। মা‌কে নি‌য়ে ঘ‌রে ফিরে শ্যানন।

বাসার এসে কথা বল‌ছি‌লেন মি‌সেস ক্রি‌স্টিন অার শ্যানন। পা‌শের রুম থে‌কে শুন‌তে পায় সব ডরনান।

সে তৎক্ষণাৎ মা‌য়ের কা‌ছে প্রশ্ন ক‌রে কি হ‌য়ে‌ছে। মা প্রথ‌মে কিছু না বল‌লেও ছে‌লের জোরাজু‌রিতে ব‌লে ফে‌লেন সব। ডরনা‌নের মাথায় অাগুন চ‌ড়ে যায়। সে দরজায় দাড়ানোর সা‌থে সা‌থে শ্যানন তার হাত ধ‌রে ফে‌লে ব‌লে,

যাস‌ন ভাইে বাদ দে, ঘ‌রে অায়।

ডরনান এক ঝটকায় হাত ছা‌ড়ি‌য়ে বের হ‌য়ে যায় হন্তদন্ত হ‌য়ে। গি‌য়ে দে‌খে অাসামী প‌ক্ষের বাসায় তালা ঝুল‌ছে। সে প্রচন্ড অা‌ক্রো‌শে লোহার দরজায় লা‌থি মার‌তে থা‌কে। দরজাটা ঠনননন অাওয়াজ তু‌লে শব্দ কর‌তে থা‌কে। প্রচন্ড রাগ নি‌য়ে বাসায় ফি‌রে অা‌সে সে।

মা‌কে প্রশ্ন ক‌রে তু‌মি অামা‌কে ফোন দেও‌নি কেন?

মা জবাব দি‌লেন, তো‌কে ফোন দি‌লে অ‌নেক ঝা‌মেলা হ‌য়ে যেত তাই শ্যানন‌কে ফোন দি‌য়ে‌ছ‌ি।

ডরনান রা‌গে ফে‌টে প‌ড়ে, ও‌কে ফোন দি‌য়ে‌ছো কেন? ওর কি শরী‌রে মেরুদন্ড অা‌ছে? কাপুরুষ কোথাকার!!

ডরনান তার রু‌মে গি‌য়ে দরজা বন্ধ ক‌রে রা‌গে কাপ‌তে থা‌কে। মা অ‌নেকবার খাবার হা‌তে নি‌য়ে দরজা ধা‌ক্কি‌য়ে গে‌ছেন কিন্ত ডরনান দরজা খু‌লে‌নি। সারারাত ঘুমায়‌নি সে। শুধু ভাব‌তে থা‌কে মা‌য়ের অপমা‌নের কথা। তার মা‌য়ের উপর কেউ অাঙুল তো‌লে কথা ব‌লে‌নি কখ‌নো। অারও রাগ‌তে থা‌কে ডরনান।

সকা‌লে ঘুম ভাঙ‌লো পুর‌ণো সেই ডরনানের। সে দানবীয় হা‌সি‌তে ফে‌টে প‌ড়ে। মা বুঝ‌তে পা‌রেন খুব ভয়ংকর কিছু হ‌তে যা‌চ্ছে। ডরনান পা‌শের শহ‌রে যায় অান্ডারওয়ার্ল্ড ডন ‘দাউদ ইব্রা‌হিম’ এর অান্ডারগ্রাউন্ড অ‌ফি‌সে তার ক‌য়েকজন বন্ধুর কা‌ছে। ‌গে‌টের সাম‌নে চারজন প্রহরী পথ অাটকায়।

ডরনা‌নের কলার চে‌পে ধ‌রে প্রশ্ন ক‌রে একজন। সা‌থে সা‌থে সে তার হাত ভে‌ঙে দি‌য়ে ব‌লে অাগামীবার কলা‌রে হাত দেওয়ার অা‌গে দে‌খে নিস কলারটা কার।

অা‌রেকজন প্রহরী প্রশ্ন ক‌রে অাপ‌নি কে ভাই।

ডরনান জবাব দেয়, ভিত‌রে গি‌য়ে বল কলারে হাত দেওয়ার জন্য এইমাত্র একজ‌নের হাত ভে‌ঙে দি‌য়ে‌ছি অা‌মি, বু‌ঝে যা‌বে অা‌মি কে।

ভিতর থে‌কে অালখাল্লা পড়া এক ব্যা‌ক্তি বে‌রি‌য়ে এলেন, ডডডডডরনান তু‌মি?

– হ্যা ওসমান অা‌মি।

: ভিত‌রে অাসো হা‌বি‌বি।

ডরনান‌কে নি‌য়ে ভিত‌রে চ‌লে গেল অালখাল্লা পড়া লোক‌টি যার নাম ‘অাবু ওসমান’ ডন দাউদ ইব্রা‌হি‌মের অাপন ছোটভাই।

ডরনা‌নের অাপ্যায়‌নের জন্য অ‌নেক কিছুই অানা হল ডরনান কিছুই খেলনা। ওসমান তখন বলল, এত‌দিন পর কি ম‌নে ক‌রে ডরনান?

– অামার তিনজন লোক অার ২টা চায়‌নিজ মা‌ষেটে (চাপা‌তি অাকৃ‌তির ধারা‌লো অস্ত্র) লাগ‌বে।

: হাহা মাত্র তিনজন ‌লোক অার ২টা মা‌ষে‌টে!! তোমার যতটা প্র‌য়োজন নি‌য়ে যাও।

– সায়া‌নোড়া। অা‌দিওস।

: ধন্যবা‌দ দি‌য়ে ছোট করনা ডরনান, ‘‌সি কোম্পা‌নি‌’কে অ‌নেক দি‌য়ে‌ছো তু‌মি।

– অা‌সি।

: খ‌লিল, ল‌তিফ, হেন‌রি তোমরা ডরনা‌নের সা‌থে যাও, ওর কা‌জটা সম্পন্ন ক‌রে অা‌সো নি‌জের জীবন দি‌য়ে হ‌লেও।

উন্মুক্ত মা‌ষে‌টে হা‌তে অাসামীপ‌ক্ষের বাসার সাম‌নে ব‌সে রইল ডরনান সা‌থে বা‌কি তিনজন।

উদ্দেশ্য একটাই অাসামীপ‌ক্ষের ওই দুজ‌নের রক্ত দি‌য়ে গোসল কর‌বে সে। তার মা‌কে অপমা‌নের প্র‌তি‌শোধ নি‌বে সে।

একসময় অধৈর্য্য হ‌য় বাসার ভিত‌রে ডু‌কে ডরনান। দেখল বাদ‌ি দুজ‌নের একজন খাবার খা‌চ্ছে অা‌রেকজন ঘু‌মি‌য়ে। ডরনান অ‌পেক্ষা কর‌তে লাগ‌লো খাওয়া শেষ হওয়ার। ও‌দি‌কে খ‌লিল অার হেন‌রি ঘুমন্ত ব্যা‌ক্তি‌কে ততক্ষ‌ণে বে‌ধেঁ ফে‌লে‌ছে। অার ল‌তিফ দাড়ি‌য়ে ছিল ডরনা‌নের পা‌শে। ডরনান প্রচ‌ন্ড রা‌গে মা‌ষে‌টে দি‌য়ে কোপা‌তে থা‌কে দুজন‌কে। মারা যাওয়ার পরও একদ‌মে কোপা‌তে থা‌কে লাশ দু‌টি‌কে। খ‌লি‌লের ঝাকু‌নি‌তে বাস্ত‌বে ফি‌রে ডরনান,

: অাপ‌নি চ‌লে যান অামরা অা‌ছি, হত্যার দায়ভার অামরা নি‌বো!

– তোমরা চ‌লে যাও অার ওসমান‌কে অামার ধন্যবাদ জানা‌বে।

: কিন্তু অাপ‌নি. . .

ডরনা‌নের রক্তচক্ষু দে‌খে কিছু বলার সাহস পে‌লোনা ওরা।

ডরনান এসির ভেত‌রে থে‌কেও ঘাম‌ছে। ধীর পা‌য়ে উঠে ১০০ তে কল দেয়,

হ্যা‌লো, অা‌মি ৩৬ গু‌টেনবার্গ থে‌কে বল‌ছি। এখা‌নে দু‌টো মার্ডার হ‌য়ে‌ছে অার সেগু‌লো অা‌মিই ক‌রে‌ছি। অামার মা‌কে অপমা‌নের প্র‌তি‌শোধ নি‌য়ে‌ছি।

পু‌লিশ এসে ডরনান‌কে ধ‌রে। তার মা এস‌ে হাউমাউ ক‌রে কান্নাকা‌টি করা শুরু ক‌রে।

ডরনান ব‌লে বাসায় যাও, অাজ‌কের পর থে‌কে এই শহ‌রের অার কেও অামার মা‌কে অসম্মান করার স‌াহস পা‌বেনা।

ডরনান‌কে পু‌লিশ নি‌য়ে গেল।

ডরনান‌কে কো‌র্টে তুলা হ‌লে জাজ অনেক প্রশ্ন কর‌লেন,

: অাপ‌নি কেন খুন ক‌রে‌ছেন?

– মা‌য়ের অপমা‌নের বদলা নিতে।

: অাপনার অনু‌শোচনা হ‌চ্ছেনা না?

– প্র‌ত্যেক সন্তা‌নের দা‌য়িত্ব তার মা‌কে প্রটেক্ট করা।

: নি‌জের সাফাই‌য়ে কিছু বল‌তে চাও?

– নাহ। অা‌মি অামার মা‌কে য‌থেষ্ট ভালবা‌সি। অা‌মি জা‌নি অাজ‌কের পর অার কেও অামার মা‌য়ের সা‌থে খারাপ ব্যবহার কর‌তে সাহস পা‌বে নাহ। এখন শা‌স্তি হি‌সে‌বে অামার মৃত্যুদন্ড হ‌লেও অামার অাফ‌সোস নেই।

জাজ রায় দি‌চ্ছেন,

“নিহত‌দের বিচার‌কে হুম‌কি, প্র‌তিপ‌ক্ষের টাকা অাত্মসাৎ এবং ডরনাননের মান‌সিক প‌রি‌স্থি‌তি বি‌বেচনা ক‌রে ডরনান‌কে অামৃত্যু কারাগ‌া‌রের সাজা শুনা‌চ্ছে। দ্যা কোর্ট ইজ এডজার্নড।”

ডরনানের মু‌খে অমা‌য়িক এক‌টি হা‌সি। মা তা‌কে জ‌ড়ি‌য়ে ধ‌রে অ‌নেকখন কাদঁ‌লেন।

অার বল‌লেন, তোর মত সন্তান সৃ‌ষ্টিকর্তা ঘ‌রে ঘ‌রে দিন।

ডরনান মা‌য়ের কপা‌লে একটা চুমু দি‌য়ে পু‌লি‌শের সা‌থে চ‌লে গেল।

ডরনা‌নের খু‌নি হওয়ার কা‌হিনী শু‌নে ডরনান‌কে ভালবাস‌তে শুরু ক‌রে। নতুন একটা প‌রিবার হয় ডরনা‌নের। ও‌দি‌কে ডরনা‌নের বাসার সাম‌নে তিনজন লোক‌কে সবসময় দেখা যেত।

“খ‌লিল, ল‌তিফ, হেন‌রি!!

উৎসঃ গল্প – খ্যাপা‌টে ‘জো‌সেফ ডরনান’ – সব্যসাচী চৌধুরী

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com