সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
গণটিকা, অব্যবস্থাপনা ও আমার কিছু কথা

গণটিকা, অব্যবস্থাপনা ও আমার কিছু কথা

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

মহামারী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে গণটিকা সরকারের একটি ভালো উদ্যোগ। সুন্দর একটা উদ্যোগ। সরকারের এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই। আমি ব্যক্তিগতভাবে একটি প্রস্তাব দিয়েছিলাম যে প্রচলিত নিবন্ধনের ব্যবস্থা বাতিল করা হোক। টিকা গ্রহণে নিবন্ধনের ব্যবস্থা থাকায় অনেক অশিক্ষিত, গ্রামের লোকজন নিবন্ধন করতে পারেনি। নিবন্ধন করতে গিয়ে ঝামেলায় পড়ে। যে জন্য অনেকে নিরুৎসাহিত হয়, টিকা নিতে চায় না। যে জন্য আমার ব্যক্তিগত মতামত ছিল টিকা গ্রহণে নিবন্ধনের কোনো দরকারই নাই। গণহারে গ্রামে-গঞ্জে, মহল্লায়-মহল্লায়, ইউনিয়নে-ইউনিয়নে জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করে গণহারে টিকা দেওয়া হোক। তাহলে আমরা করোনার লাগাম টেনে ধরতে সক্ষম হবো।

করোনা থেকে বাঁচার উপায় দুটি। ১. স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে, ২. সবাইকে টিকার আওতায় আনতে হবে। তাই সরকারের গণটিকা দেওয়ার উদ্যোগটি খুবই ভালো।  গণটিকা দেওয়াতে মানুষের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আগে করোনা নিয়ে মনে যে ভয়, ভীতি, সন্দেহ অবিশ্বাস ছিল তা বাতিল করে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে টিকা নিতে যাচ্ছে। তাই এটা একটা ভালো উদ্যোগ হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।

তবে আমার মনে হয়, গণটিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে যে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা দরকার সেটি সুন্দরভাবে করা হয়নি। গণটিকা নিতে গিয়ে গণদুর্ভোগে পড়েছে মানুষ। গণঅসন্তোষ দেখা দিচ্ছে। আরেকটা ব্যাপার হলো মানুষ যেভাবে লম্বা লাইন ধরছে, সেক্ষেত্রে সামনে, পিছনে, ডাইনে, বায়ে কে করোনায় আক্রান্ত সেটা তো কেউ জানে না। সে ভাইরাস হয়তো ঘরে চলে যাচ্ছে, সেখানে কাছের মানুষদের সংক্রমিত করছে। গণটিকা নিতে গিয়ে গণভোগান্তিতে পড়ছে।

 

আরেকটা ব্যাপার হলো গণটিকা দেওয়ার বিষয়টি টিকার প্রাপ্যতার ওপর নির্ভর করে। টিকা আছে ৩০০, কেন্দ্রে মানুষ আসছে ৩০০০; তাহলে তো হলো না। এ জন্য গণটিকা নিতে গিয়ে বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। মানুষ রাত থেকে লাইন ধরেছে, সকালে ধরেছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছে, এরপর দুপুর ৩টার পর বলা হচ্ছে টিকা শেষ। এতে টিকা না পেয়ে মানুষ মনক্ষুন্ন হলো। গণটিকা দিতে গিয়ে গণঅসন্তোষ হলো। গণভোগান্তি হলো। গণবিক্ষোভ হয় নাই যদিও, গণক্ষোভ রয়ে গেছে। গণহারে সংক্রমণের ঝুঁকি রয়ে গেছে। সরকার পরিকল্পিতভাবে সামনে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গণটিকার ব্যবস্থা করুক। টিকার প্রাপ্যতার ওপর গণটিকা প্রদানের বিষয়টি নির্ভর করে। টিকার তো মজুদ নাই। মজুদ বেশি না থাকলে বেশি প্রচারও দরকার নেই। সরকার অগ্রাধিকারভিত্তিতে, টিকা প্রাপ্যতার ভিত্তিতে গণটিকা দিক। তাহলে আর গণটিকা দিতে গিয়ে আর গণঅসন্তোষ তৈরি হবে না।

লেখক : ইউজিসি অধ্যাপক ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com