খাদির মেধাস্বত্বও চায় ভারত: প্রমাণসহ প্রস্তুত বাংলাদেশ

খাদির মেধাস্বত্বও চায় ভারত: প্রমাণসহ প্রস্তুত বাংলাদেশ

লোকালয় ডেস্ক: মায়ের দেওয়া মোটা কাপড় মাথায় তুলে নে রে ভাই/দীন-দুঃখিনী মা যে আমার এর বেশি তার সাধ্য নাই’- মূলত কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী ‘খাদি’কে ঘিরে এ গান রচনার পর রাজশাহীর কান্তকবি হিসেবে পরিচিত রজনীকান্ত সেন হয়ে গেলেন সমগ্র বঙ্গের। খাদিকে স্বদেশী আন্দোলনে সঙ্গী করা হয়েছিল। এর চাহিদানুযায়ী দ্রুত তাঁত চালানোর জন্য পায়েচালিত প্যাডেলের নিচে গর্ত করা হতো।

ওই খাদকে ঘিরেই কাপড়টির নাম হয় খাদি। এক সময় স্বল্প আয়ের মানুষের পোশাক হিসেবে পরিচিত হলেও সময়ের পরিক্রমায় তা পরিণত হয়েছে বাঙালির অন্যতম ফ্যাশন-প্রতীকে। শৈল্পিক ছোঁয়ায় কুমিল্লার খাদি এখন দেশ-বিদেশে সমাদৃত। রপ্তানি হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের সুপরিচিত খাদিকে ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্যের স্বীকৃতি দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

তবে বাংলাদেশের অহঙ্কার জামদানির পর কুমিল্লার খাদিরও মেধাস্বত্ব দাবি করেছে ভারত সরকার। এটি স্বীকারও করেছে কুমিল্লা জেলা প্রশাসন ও শিল্প মন্ত্রণালয়। জামদানির মতো খাদিকে নিজস্ব পণ্য হিসেবে তুলে ধরতে উদ্যোগও নিয়েছে প্রতিবেশী দেশটি। ভারতীয় মেধা সম্পত্তি অধিকার আইনজীবীদের একটি সংগঠন খাদি কাপড়কে নিজস্ব পণ্য হিসেবে বিশ্বের কাছে তুলে ধরার জন্য নির্দিষ্ট ‘জিআই’ ট্যাগ ব্যবহারেরও প্রস্তাব দিয়েছে। জিআই ট্যাগ হচ্ছে একটি বিশেষ অঞ্চলের পণ্যের জন্য সংবিধিবদ্ধ সুরক্ষা।

এ ট্যাগ ব্যবহারে আরেকটি সুফল রয়েছেÑ এতে বোঝা যায় উৎস দেশ কোনটি। এরই মধ্যে চেন্নাইয়ের জিআই রেজিস্ট্রি অফিসে সংগঠনটি এ বিষয়ে একটি আবেদন করেছে। তাতে বলা হয়Ñ খাদি স্বতন্ত্র ভারতীয় হাতে বোনা কাপড়। আর এ কাপড়ের ভুয়া দাবির বিরুদ্ধে উদ্যোগ নেওয়ার পাশাপাশি তা রক্ষা করতে হবে।

তবে মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মহাত্মা গান্ধী খাদি পরতেন, তাই খাদির স্বত্ব ভারতেরÑ এমন যুক্তিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে প্রতিবেশী দেশ। বাংলাদেশের পক্ষ থেকেও জোরালো প্রতিবাদ জানিয়ে উৎস দেশ হিসেবে তথ্য-উপাত্ত পাঠানো হয়েছে। এর আগে জামদানি কাপড়ের আবিষ্কারক দেশ হিসেবে নিজেদের দাবি করে ভারত সরকার। যদিও তথ্য-উপাত্তে তাদের দাবি উড়ে যায়।

কুমিল্লার জেলা প্রশাসক জাহাংগীর আলম আমাদের সময়কে জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আদি উৎপাদকদের বাছাই করার কাজ শেষ। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ১৯৯৪ সালের এক চুক্তিতে আবদ্ধ হয়েছিল সদস্য দেশগুলো। এর মধ্য দিয়ে প্রতিটি দেশ তার ভূখ-ে উৎপাদিত পণ্য, বস্তু ও জ্ঞানের ওপর মালিকানা প্রতিষ্ঠার জন্য ভৌগোলিক নির্দেশক (জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশন) আইনের মাধ্যমে নিবন্ধনের অধিকারপ্রাপ্ত হয়। তবে দীর্ঘদিন নজর না দিলেও ২০১৩ সালে ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (নিবন্ধন ও সুরক্ষা) আইন প্রণয়ন করে বাংলাদেশ সরকার। ওই আইনের অধীনে ২০১৫ সালে হয় বিধিমালা। এর পর ঐতিহ্যবাহী জামদানির মেধা সম্পদের মালিকানা সুরক্ষায় উদ্যোগ নেওয়া হয়।

এখন আরও সম্প্রসারণ চলছে, যার মধ্যে কুমিল্লার খাদি ও রসমালাই রয়েছে। এ বিষয়ে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার মেরিনা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়েছে, খাদি ও রসমালাই জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধনের জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, খাদির ইতিহাসজুড়ে আছে বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলের নাম। পুরোপুরি হাতে তৈরি এ কাপড়ের প্রচলন উনিশ শতকের দিকে। ১৯১৭ বা ১৯১৮ সালে খাদি নামে পরিচিতি পায় এ কাপড়। মসলিন শিল্প বিলুপ্ত হওয়ার পর পরই বাংলাদেশের কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও ফেনীতে তৈরি হতো খাদি। তবে তা বিশ্বব্যাপী পরিচিত হয়ে ওঠে ১৯২০ সালে মহাত্মা গান্ধীর ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সময়।

বিদেশি ফেলে দেশি কাপড় ব্যবহারের সে আহ্বানে ভারতবর্ষজুড়ে বেড়ে যায় খাদি কাপড়ের চাহিদা। এটি ছিল সেই আন্দোলনের (অহিংস আন্দোলন) অন্যতম কার্যকর রাজনৈতিক হাতিয়ার। এর রেশ ধরেই খাদি হয়ে যায় সার্বজনীন, হয় পুনর্জাগরণ। খাদি বুননের চল আমাদের আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে ছিল আগে থেকেই।

তবে স্বদেশী আন্দোলনের কারণে কুমিল্লার অভয়াশ্রম, চট্টগ্রামের প্রবর্তক সংঘ এবং নোয়াখালীর গান্ধী আশ্রমেও তা বোনা হতো। আর ১৯৫২ সালে সমবায় আন্দোলনের প্রাণপুরুষ ড. আখতার হামিদ খানের চেষ্টায় এবং তৎকালীন গভর্নর ফিরোজ খান নূনের সহযোগিতায় কুমিল্লার অভয়াশ্রমে ‘দি খাদি অ্যান্ড কটেজ ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন’ প্রতিষ্ঠিত হয়। মহানগরের স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের ‘অভয় আশ্রম’ কর্মীদের প্রচেষ্টায় কুমিল্লার আশপাশের গ্রামগুলোতে ব্যাপকভাবে শুরু হয় হাতে সুতা কাটা ও হস্তচালিত তাঁতের ব্যবহার। জনপ্রিয় খাদি কাপড়ের সঙ্গে কয়েকটি দিক জড়িত রয়েছে। তা হচ্ছে তাঁতি, সুতা কাটুনি ও রঙের কারিগর। সবাই মিলে তৈরি করেন নান্দনিক খাদি কাপড়। কুমিল্লা জেলায় অন্তত দেড় হাজার পরিবার এ পেশায় জড়িত।

 

(একে/লোকালয়/বিডি)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com