ক্ষমা ও উদারতা মুসলমানদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য

ক্ষমা ও উদারতা মুসলমানদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য

ক্ষমা ও উদারতা মুসলমানদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য
ক্ষমা ও উদারতা মুসলমানদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য

ইসলাম: মহান আল্লাহ তাআলার অন্যতম গুণ হলো দয়ামায়া, ক্ষমা ও উদারতা। এ কারণে মুসলমানদেরও অন্যতম চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ক্ষমা ও উদারতা প্রদর্শন করা। যারা ধর্মীয় ভাবধারায় লালিত-পালিত হন বা নিজেকে তৈরি করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন, তারা সাধারণত নিজে সুযোগ-সুবিধা বিবেচনা না করে অপরের কল্যাণে কাজ করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

সবচেয়ে বেশি মায়ামমতা, ক্ষমা ও উদারতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। মক্কা বিজয়ের পর তিনি সকল অপরাধীদেরকে ক্ষমা করে দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘আজ তোমাদের বিরুদ্ধে আমার কোনো অভিযোগ নেই।’ অথচ তাদের চরম অত্যাচার নির্যাতনে মহানবী (স.) আল্লাহর নির্দেশে তাঁর সঙ্গী-সাথীদের নিয়ে জীবন বাঁচাতে পবিত্র নগরী মক্কা থেকে মদিনায় হিজরত করেছিলেন।

একটি হাদিসে এসেছে, প্রকৃত মুসলমান সেই ব্যক্তি যার হাত ও মুখ থেকে অপর একজন মুসলমান নিরাপদ। অর্থাৎ যে ব্যক্তি মানুষকে কথা বা কাজ দ্বারা কষ্ট দেয় না, সেই প্রকৃত মুসলমান।

মহান আল্লাহ তাআলা সর্বশক্তিমান ও মহাপরাক্রমশালী হওয়া সত্ত্বেও তাঁর অপরাধী বান্দাগণকে ক্ষমা করে দেন। আল্লাহ তায়ালা নিজে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ক্ষমা ও উদারতার গুণগুলো অনুসরণ করার জন্য দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন।

আল্লাহ বলেন- ‘আপনি ক্ষমা করুন, সৎ কাজের নির্দেশ দিন এবং অজ্ঞদেরকে এড়িয়ে চলুন। (সুরা আ’রাফ : আয়াত ১৯৯) অন্য আয়াতে আল্লাহ বলেন, ‘অতএব আপনি তাদেরকে ক্ষমা করে দিন এবং তাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করুন।’ (সুরা ইমরান : আয়াত ১৫৯)

কুরআন ও হাদিসের সুস্পষ্ট দিক-নির্দেশনা হলো ক্ষমা ও দয়ার গুণে গুণাম্বিত হওয়া। এ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আর তোমরা যদি ওদেরকে মার্জনা করো, ওদের দোষত্রুটি উপেক্ষা করো এবং ক্ষমা করো; তবে জেনে রেখ, আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল এবং পরম দয়ালু।’ (সুরা তাগাবুন : আয়াত ১৪)

আল্লাহ বলেন, ‘তোমরা তোমাদের রবের ক্ষমা ও সেই জান্নাতের দিকে ধাবমান হও; যার প্রশস্ততা আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীর ন্যায়। যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে মুত্তাকিদের জন্য।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ১৩৩)

সুতরাং মানুষ ভুল-ত্রুটির ঊর্ধ্বে নয়। দৈনন্দিন কথা ও কাজে ভুল-ত্রুটি হওয়াটাই স্বাভাবিক। তাই মুসলিম উম্মাহর জন্য ক্ষমা, দয়া-মায়া ও উদারতা প্রদর্শনের ব্যাপারে কুরআন ও সুন্নাহর দেখানো নীতি ও নির্দেশ অনুসরণ করা অত্যন্ত আবশ্যক। যারা এ পন্থা অনুসরণ করবে তারাই তাকওয়াবান এবং সফলতা লাভকারী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com