সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের
কোনটি খাবেন, পালংশাক নাকি কলমিশাক

কোনটি খাবেন, পালংশাক নাকি কলমিশাক

শীতে সবজির বাজারে পাওয়া যাচ্ছে পালংশাক ও কলমিশাক। এই দুই শাকের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে কথা হয় বারডেম জেনারেল হাসপাতালের খাদ্য ও পুষ্টি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও প্রধান পুষ্টিবিদ শামসুন্নাহার নাহিদের সঙ্গে।

তিনি জানালেন দুই ধরনের শাকের গুণাগুণ

পালংশাক

* এই শাকে আছে উচ্চমাত্রার ম্যাগনেশিয়াম, যা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এতে থাকা বেশি মাত্রার ভিটামিন এ, লিম্ফোসাইট বা রক্তের শ্বেতকণিকা দেহকে বিভিন্ন সংক্রমণ ও রোগ থেকে রক্ষা করে।

* এতে থাকা ১০টিরও বেশি ভিন্ন ধরনের ফ্ল্যাভোনয়েড ক্যানসারসহ বিভিন্ন জটিল রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে। এর উচ্চমাত্রার বিটা ক্যারোটিন চোখের ছানি পড়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। এর ভিটামিন এ ত্বকের বাইরের স্তরের আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

* ফোলিক অ্যাসিড থাকায় তা হৃদ্‌যন্ত্রের সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে সক্ষম। প্রাপ্তবয়স্ক ঘন সবুজ পালংপাতায় উচ্চমাত্রায় ক্লোরোফিল থাকায় এতে ক্যারোটিনয়েড বিদ্যমান আর তা আমাদের শরীরে ব্যথানাশক ও ক্যানসার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে।

* যাঁদের অ্যাজমা বা কিডনির সমস্যা আছে, তাঁদের পালংশাক না খাওয়া উচিত। এ শাক খেলে তাঁদের শারীরিকভাবে কিছুটা সমস্যা হতে পারে।

* এক কাপ পালংশাক খাদ্য আঁশের দৈনিক চাহিদার ২০ শতাংশ পূরণ করার সঙ্গে সঙ্গে ভিটামিন এ ও কে-র দৈনিক চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম। এই পুষ্টি উপাদানগুলো শরীরের স্বাভাবিক কাজকর্মের জন্য অপরিহার্য।

* কম ক্যালরি থাকার কারণে এটি শরীরের জন্য খুব উপকারী।

* উচ্চমাত্রার আয়রন, যা দেহে অক্সিজেন উৎপাদনের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এটা শরীরের ক্লান্তিভাব দূর করে শক্তির মাত্রা বৃদ্ধি করে।

কলমিশাক

* কলমিশাকে ক্যালসিয়াম থাকে বলে এই শাক হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে।

* রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। যাঁদের বসন্ত রোগ রয়েছে, তাঁরা কলমিশাক খেতে পারেন। এ শাকটি বসন্ত রোগের প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে।

* পর্যাপ্ত পরিমাণে লৌহ থাকায় এই শাক রক্তশূন্যতার রোগীদের জন্য উপকারী।

* কলমিশাক মাকে রান্না করে খাওয়ালে শিশু পর্যাপ্ত পরিমাণে দুধ পায়। নিয়মিত কলমিশাক খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

* কলমিশাক কয়েক সপ্তাহ প্রতিদিন একবেলা ভাজি করে খেলে রাতকানা রোগ ভালো হয়।

* হাত-পা বা শরীর জ্বালা করলে কলমিশাকের রসের সঙ্গে একটু দুধ মিশিয়ে সকালে খালি পেটে এক সপ্তাহ খেলে উপকার পাওয়া যায়।

* আমাশয় হলে কলমিপাতার রসের সঙ্গে আখের গুড় মিশিয়ে শরবত বানিয়ে সকাল-বিকেল নিয়মিত খেলে আমাশয়ের উপশম হয়।

গ্রন্থনা: অধুনাপ্রতিবেদক

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com