কুলাউড়া ও জুড়ীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক মেরামত হয়নি

কুলাউড়া ও জুড়ীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক মেরামত হয়নি

দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় বিধ্বস্ত জুড়ীর ভূঁয়াই বাজার-তেঘরিঘাট সড়কের ছবিটি ৬ জানুয়ারি তোলা l

জুড়ী (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলায় গত বছরের (২০১৭) দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় প্রায় ৮০ কিলোমিটার গ্রামীণ পাকা সড়ক বিধ্বস্ত হয়। এর মধ্যে বেশির ভাগ সড়কই ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কিন্তু সড়কগুলো সংস্কারে এখনো কোনো অর্থ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। এতে মানুষের দুর্ভোগের সঙ্গে সঙ্গে সামনের বর্ষা মৌসুমে আরও ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

দুই উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) কার্যালয় ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, অতিবৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে গত বছরের মার্চ মাসের শেষ দিকে কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলায় বন্যা দেখা দেয়। এতে এসব এলাকার বাড়িঘর, গ্রামীণ রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন স্থাপনা ডুবে যায়। জুলাই মাসের শেষ দিকে পানি কমতে শুরু করে।

সরেজমিনে ৫ ও ৬ জানুয়ারি দেখা গেছে, কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজার-ফেঞ্চুগঞ্জ ভায়া ফুলেরতল বাজার, ব্রাহ্মণবাজার-শমশেরনগর আরএইচডি-গন্ডারগাঁও, নয়াবাজার-লংলা চা–বাগান ভায়া লংলা খাস সড়কের বেশির ভাগ জায়গা ভেঙে গেছে। সড়কে ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

ুড়ীর বাছিরপুর আরএইচডি-দাসেরবাজার, গোয়ালবাড়ী আরএইচডি-ফুলতলা, পশ্চিম জুড়ী ইউপি-জুড়ী বাজার, ভবানীগঞ্জ বাজার-পূর্ব জুড়ী ইউপি-দুর্গাপুর, রত্না বাজার-সমাই বাজার সড়কের বেহাল দশা। ঝুঁকি নিয়ে এসব সড়কে বিভিন্ন ধরনের যান চলাচল করছে।

কুলাউড়ার ভূকশিমইল ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান বলেন, ‘বন্যায় আমার এলাকার অধিকাংশ রাস্তা ভেঙে গেছে। মানুষের দুর্ভোগের সীমা নেই।’

জুড়ীর গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের জালালপুর এলাকার বাসিন্দা স্কুলশিক্ষক আবদুল মনাফ বলেন, রত্না বাজার-সমাই বাজার সড়কের বেশ কিছু স্থানে গর্ত হয়েছে। রাতে চলাচলের সময় গর্তে পড়ে দুর্ঘটনার ভয় থাকে।

বাহাদুরপুর এলাকার কলেজছাত্র শ্যামল বিশ্বাস বলেন, বন্যার সময় তাঁদের এলাকার ভূঁয়াই-বাহাদুরপুর সড়কে ২-৩ ফুট পানি ছিল। পানি নামার পর সড়কটিতে খানাখন্দ হওয়ায় চলাচল কষ্টকর হয়ে পড়েছে। যত দিন যাচ্ছে, রাস্তার অবস্থা তত খারাপ হচ্ছে।

এলজিইডির কুলাউড়া উপজেলা কার্যালয়ের প্রকৌশলী মুহা. ইসতিয়াক হাসান বলেন, তাঁর এলাকার প্রায় ৪০ কিলোমিটার সড়কের পুরোটাই ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে গেছে। এতে ৫ কোটি ৩১ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

জুড়ীর এলজিইডির প্রকৌশলী আবদুল মতিন বলেন, ৪০ কিলোমিটার সড়ক ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে গেছে। ক্ষতির পরিমাণ ৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা। তাঁরাও সড়ক সংস্কারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ চেয়েছেন।

এলজিইডির মৌলভীবাজার কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী কামরুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক সংস্কারের ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে আলাদা একটি প্রকল্প প্রস্তাব তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু প্রস্তাবটি এখনো অনুমোদন পায়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com