কিবরিয়া হত্যার ১৩ বছর পূর্ণ হলেও মামলার বিচার এখনও হয়নি

কিবরিয়া হত্যার ১৩ বছর পূর্ণ হলেও মামলার বিচার এখনও হয়নি

আজ ২৭ জানুয়ারি। সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার ১৩ বছর পূর্ণ হবে। দফায় দফায় তদন্তের বেড়াজালে আটকে থাকা এ হত্যাকাণ্ডের বিচার শুরু হয়েছে প্রায় দু’বছর পূর্বে। কিন্তু আদালতে নিয়মিত সাক্ষী আসছে না। এমনকি আসামিদের বিরুদ্ধেও একাধিক মামলা থাকায় ঠিকমতো আদালতে হাজির করা সম্ভব হচ্ছে না। এসব জটিলতায় আবারও মামলার বিচার বিলম্বিত হচ্ছে। এ অবস্থায় বিচার নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে না নিহতদের পরিবার ও স্থানীয়দের মনে।

জানা যায়, ২০০৫ সালের ওই দিনে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় যোগ দেন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া। সভা শেষে ফেরার সময় দুর্বৃত্তদের গ্রেনেড হামলায় তিনি ও তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুর হুদাসহ নিহত হন মোট ৫ জন। এতে আহত হন ৪৩ জন। উক্ত ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

কয়েক দফা তদন্ত শেষে সর্বশেষ চার্জশিটে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও হবিগঞ্জের মেয়র জি কে গউছসহ ৩২ জনের বিরুদ্ধে দুটি মামলারই চার্জশীট দেন তদন্ত কর্মকর্তা। কিন্তু দফায় দফায় তদন্তের বেড়াজালে আটকে থাকা রোমহর্ষক এ হত্যাকাণ্ডের বিচার শুরু হয়েছে প্রায় ২ বছর পূর্বে। অথচ কখনও আসছে না সাক্ষী, আবার কখনও গুরুত্বপূর্ণ আসামিদের বিভিন্ন মামলা থাকায় ঠিকমতো আদালতে হাজির করা সম্ভব হয় না। এমন জটিলতায় মামলার কোন সুরাহা হচ্ছে না।

আইনি জটিলতায় বিচার বিলম্বিত হচ্ছে বলে জানিয়ে মামলার বাদী মো. আব্দুল মজিদ খান এমপি বলেন, মামলায় মোট ১৭১ জন সাক্ষী আছেন। আমি ইতিমধ্যেই বাদী হিসেবে আদালতে সাক্ষী দিয়েছি। কিন্তু নানা আইনি জটিলতার কারণে মাত্র ২৪ জন সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন।

ফৌজদারি আইনের বিধান অনুযায়ী সাক্ষী আদালতে হাজির হলে এবং আসামি জেল হাজতে থাকলে তাকে আদালতে হাজির করতে হয়। আসামি হাজির না করা গেলে সাক্ষী নেয়া যাবে না। এ মামলার গুরুত্বপূর্ণ আসামিরা বিভিন্ন মামলার আসামি থাকায় তাদের ঠিকমতো আদালতে হাজির করা সম্ভব হয় না। ফলে সাক্ষ্যও নেয়া যায় না। এছাড়া বিগত ৩ মাস ধরে সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক ছুটিতে আছেন। ২৩ ফেব্রুয়ারি আগামী তারিখ। এর মধ্যে যদি বিচারক যোগদান করেন তবে হয়তো সাক্ষ্য হতে পারে। বিচারক যদি মনে করেন প্রতি সপ্তাহে ২/৩ দিন সাক্ষী নিতে পারেন। যদি নেন তবে আগামী নির্বাচনের পূর্বেই এ বিচার করা সম্ভব হবে বলে তিনি মনে করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com