কালরাত স্মরণে এক মিনিট অন্ধকারে থাকল বাংলাদেশ!

কালরাত স্মরণে এক মিনিট অন্ধকারে থাকল বাংলাদেশ!

গণহত্যার দগদগে ক্ষত নিয়ে বয়ে চলা শোকের ২৫ মার্চে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সবকিছু ঢেকে ফেরা হলো নিকষ অন্ধকারের চাদরে।

নিজস্ব প্রতিনিধি : রাত ৯ টা বাজতেই সব অন্ধকার! গণহত্যার দগদগে ক্ষত নিয়ে বয়ে চলা শোকের ২৫ মার্চে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সবকিছু ঢেকে ফেরা হলো নিকষ অন্ধকারের চাদরে।

গণহত্যা দিবসে কালরাতের প্রথম প্রহর স্মরণ করে এক মিনিট প্রতীকী আলোহীন (ব্ল্যাক-আউট) থাকল বাংলাদেশ।

কালরাতের প্রথম প্রহর স্মরণে গণহত্যা দিবসে ২৫ মার্চ রাতে একযোগে এক মিনিট অন্ধকারে (ব্ল্যাক-আউট) তলিয়ে যায় বাংলাদেশ। সোমবার রাত ৯টা থেকে ৯টা ১ মিনিট পর্যন্ত প্রতীকী আলোহীন থাকে সারা দেশ।

সেই কালরাতের স্মরণে সারা দেশে প্রথমবারের মতো এক মিনিট ‘ব্ল্যাক-আউট’ কর্মসূচি পালন করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আহ্বানে সাড়া দিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশেই আলো নিভিয়ে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারেও একমিনিট আলো নিভিয়ে ২৫ মার্চের ভয়াল কালরাতকে স্মরণ করা হয়। ব্ল্যাক-আউটকে কেন্দ্র করে যাতে কোনো ধরনের নাশকতা না হয় সে জন্য নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছিল ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

বাঙালির মুক্তির আন্দোলনের শ্বাসরোধ করতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে এ দেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামের সেই অভিযানে কালরাতের প্রথম প্রহরে ঢাকায় চালানো হয় গণহত্যা। ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে যান। অবশ্য তার আগেই ৭ মার্চ ঢাকার তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে এক জনসভায় বাঙালির অবিসংবাদিত এ নেতা বলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ কার্যত সেটাই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা, যার পথ ধরে কালরাতের পর শুরু হয় বাঙালির প্রতিরোধ পর্ব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com