কাদের মির্জাসহ ১৬৪ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন।

কাদের মির্জাসহ ১৬৪ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন।

কাদের মির্জাসহ ১৬৪ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

 

 

লোকালয় ডেস্কঃ  হায়াত খানের ওপর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার এবং গ্রেফতারকৃত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিও করা হয়েছে।

 

 

বিজ্ঞপ্তির বিষয়টি শনিবার বিকালে মুঠোফোনে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সিরাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ নুর নবী চৌধুরী। কাদের মির্জার হামলায় আহত হয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান ঢাকার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় তার সঙ্গে কথা বলে অন্য নেতাদের সম্মতি নিয়ে তিনি (নুর নবী চৌধুরী) এ প্রেস বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে দিয়েছেন বলে জানান।

 

কাদের মির্জার সংবাদ সম্মেলন : শনিবার সকালে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা তার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে আবারও তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে এবং তিনি সম্পূর্ণ নিরাপত্তাহীনতায় আছেন বলে দাবি করেছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমাকে হত্যা করার জন্য শুক্রবারও এমপি একরাম চৌধুরীর বাড়িতে সভা হয়েছে। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি আল্লাহর ওপর নির্ভরশীল। এখন এ বিষয়ে প্রশাসন ও সরকার কি পদক্ষেপ নেবে, তা তাদের বিষয়। তবে যতক্ষণ আমার এক ফোঁটা রক্ত আছে, আমি এখান থেকে সরব না।

 

তদন্তের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে কাদের মির্জা বলেন, দলীয়ভাবে যে তদন্ত, তা তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ ও আওয়ামী লীগ নেতা সুজিত রায় নন্দীকে দিয়ে করানো হোক। তারা যে সিদ্ধান্ত দেবেন আমি মাথা পেতে নেব। অন্যদিকে সৃষ্ট ঘটনাগুলোর জন্য ঢাকা থেকে বিচার বিভাগীয়সহ গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই, ডিজিএফআই দিয়ে তদন্ত করার দাবিও করেন আবদুল কাদের মির্জা।

 

এদের তদন্তে আমি বা আমার কোনো কর্মী অপরাধ করলে যে শাস্তি দেয়া হবে তা আমি মাথা পেতে নেব। প্রশাসনও একতরফাভাবে কাজ করছে বলে অভিযোগ করে মেয়র কাদের মির্জা বলেন, একজন চা দোকানদার আমার জন্য ওষুধ নিয়ে এসেছে, আমার সেই লোককেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত কয়েকদিনে আমার ৭-৮ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

 

আমার প্রত্যেক নেতাকর্মীর বাড়িতে ডিবি পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। তাদের পরিবারের লোকজনকেও পুলিশ হয়রানি করছে। সংবাদ সম্মেলনের পর দুপুর ১২টার দিকে নেতাকর্মীদের নিয়ে পৌর ভবন থেকে বের হয়ে বসুরহাট বাজারে বের হন মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। এসময় বাজারের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন ও পরে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে করোনার টিকা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

 

গত দেড় মাস ধরে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার সঙ্গে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের বিরোধ চলছে। এ নিয়ে উপজেলাজুড়ে এক অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন সময়ে দুপক্ষে দফায় দফায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে মঙ্গলবার (৯ মার্চ) সিএনজিচালক ও শ্রমিক লীগ কর্মী আলাউদ্দিন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান, আহত হন অর্ধশতাধিক। এর আগে আরেক সংঘর্ষে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির নিহত হন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com