সংবাদ শিরোনাম :
করোনাভাইরাস মহামারির জন্য মানুষই দায়ী: মার্কিন বিজ্ঞানী

করোনাভাইরাস মহামারির জন্য মানুষই দায়ী: মার্কিন বিজ্ঞানী

lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্কঃ  বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বন্যপ্রাণী, প্রকৃতি ও পরিবেশের বিষয়গুলো সামনে আসে। তবে এসব বিষয় উড়িয়ে দিচ্ছেন মার্কিন বিজ্ঞানী থমাস লাভজয়। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস প্রকৃতির প্রতিশোধ নয়, এটা মানুষই তৈরি করেছে।

১৯৮০’র দশকে ‘বায়োলজিক্যাল ডাইভারসিটি’ টার্ম উদ্ভাবন করে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন মার্কিন বিজ্ঞানী থমাস লাভজয়। তাকে প্রায়ই জীববৈচিত্র্যের গডফাদার আখ্যা দেয়া হয়ে থাকে। বর্তমানে তিনি জাতিসংঘ ফাউন্ডেশনের সিনিয়র ফেলো এবং জর্জ ম্যাসন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানের প্রফেসর হিসেবে কাজ করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের এই খ্যাতনামা বিজ্ঞানী বলেন, এই মহামারি হলো প্রকৃতিতে আমাদের ক্রমাগত এবং অব্যাহত অনধিকার প্রবেশ এবং বণ্যপ্রাণীর অবৈধ বাণিজ্যেরন প্রসার আর বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ার বণ্যপ্রাণীর বাজার ও ওয়েট মার্কেট এবং আফ্রিকার বণ্যপ্রাণীর মাংসের বাজার। এটা নিশ্চিত যে, এই ধরনের কিছু ঘটা কেবল সময়ের ব্যাপার মাত্র। ওয়েট মার্কেটে মূলত জীবন্ত প্রাণী (চাষ করা এবং বণ্যপ্রাণী) ছাড়াও তাজা ফলমূল, সবজি, মাছ বিক্রি হয়। প্রায়ই অস্বাস্থ্যকরভাবে এগুলোর কেনা বেচা চলে। আফ্রিকা এবং এশিয়ার হাজার হাজার মানুষ এই বাজারের ওপর নির্ভরশীল।

ধারণা করা হয়ে থাকে চীনের উহান শহরের ওয়েট মার্কেট থেকেই ছড়িয়েছে বর্তমানে মহামারির আকার নেয়া করোনাভাইরাস। ওই বাজারে শেয়াল, ইদুর, স্যালাম্যান্ডারসহ নানা ধরনের বণ্যপ্রাণী বিক্রি হয়।

মার্কিন বিজ্ঞানী লাভজয় মনে করেন বণ্যপ্রাণী থেকে পালন করা প্রাণীদের আলাদা করা গেলেই রোগের সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক কমে যাবে। এর কারণ নতুন প্রজাতির খুব কমই মানুষের আনাগোনার মধ্যে উদ্ভব হয়। তিনি বলেন, ‘(গৃহপালিত প্রাণী) এসব ভাইরাস বহন করতে পারে, কিন্তু যদি তা কেবল সেগুলোর সবই বাজারে নেয়া হয়। এছাড়া একটি বণ্যপ্রাণী থেকে একটি গৃহপালিত প্রাণীতে ভাইরাস ছড়ানোর আশঙ্কা সত্যিই খুব কম।

ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরামের তথ্য অনুযায়ী এবারের মহামারিতে বিশ্বের অর্থনীতির প্রায় এক লাখ কোটি ডলারের ক্ষতি হবে। এতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হবে দুর্বল জনগোষ্ঠীগুলো। আফ্রিকার প্রায় অর্ধেক মানুষই কর্মহীন হয়ে পড়বে।

লাভজয় বলেন, এটা প্রকৃতির প্রতিশোধ নয়, আমরা নিজেরাই এটি করেছি। সমাধান হলো প্রকৃতির ওপর আরো বেশি শ্রদ্ধাশীল হওয়া, এর মধ্যে রয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাওয়ানো এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com