সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে সেবাবঞ্চিত হাওড়বাসী

কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে সেবাবঞ্চিত হাওড়বাসী

আজমিরীগঞ্জ (হবিগঞ্জ)প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বদলপুর ইউনিয়নের ভবানিপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে প্রায়দিনই তালাবদ্ধ থাকে। চিকিৎসাসেবা না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে হাওড়বাসীকে। কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডারকে সব সময় না পাওয়া ও থাকলেও চিকিৎসাসেবা না পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে কমিউনিটি ক্লিনিক তালা ঝুলানো অবস্থায় পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে কমিউনিটি হেলথ কেয়ারের প্রোভাইডার সবুজ কান্তি দাশের মোবাইলে সকাল ১০টা ৫৩ মিনিটে কল দিলে তিনি বদলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাড়ির সামনে রাস্তায় আছেন বলে জানান।

চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে যাওয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক মহিলার সঙ্গে আলাপকালে তারা বলেন, ‘সর্দিজ্বরের ওষুধের লাগি কয়েক দিন গেছি, ওষুধ নাই বলে বিদায় করে দেয়। এই ধরনের হাসপাতাল খুল্লেই কিতা না খুল্লেই কিতা’। শুধু ভবানিপুর কমিউনিটি ক্লিনিকেই না উপজেলার কয়েকটি ক্লিনিকের এমন চিত্র। অভিযোগ উঠেছে নিজেদের খেয়ালখুশিমতো ক্লিনিকে আসা-যাওয়া করে। এছাড়া প্রত্যন্ত অঞ্চলের রোগীদের ৩০ প্রকার ওষুধ দেওয়ার কথা থাকলেও প্রায় ওষুধই দেওয়া হচ্ছে না কাউকে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় কমিউনিটি ক্লিনিকের সংখ্যা ১৬টি। ১৫টি ক্লিনিকের ভবনে একজন করে কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার নিযুক্ত আছেন। তবে এ উপজেলায় ১৩টি ভবন থাকলেও দুটি ভবনের কাজ চলছে ও একটি ভবন না থাকায় অস্থায়ীভাবে ব্যক্তি মালিকানাধীন বাড়িতে কার্যক্রম চলছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক দেব রাজ চৌধুরী কমিউনিটি হেলথ কেয়ারের প্রোভাইডার সবুজ কান্তি দাশের বরাত দিয়ে জানান, সোমবার একটি ডেলিভারি হয়েছিল বাচ্চাটি মারা যায়। তাই সেখানে গিয়েছিল রোগীর খোঁজখবর নিতে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হবে বলেও জানান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. ইকবাল হোসেন জানান, ‘ঢাকা থেকে কমিউনিটি ক্লিনিকের জন্য যে ওষুধ বরাদ্দ আছে সেটাই তাদেরকে দেওয়া হয়। এখান থেকে কমবেশি করার সুযোগ নাই। এ ব্যাপারে আমি খোঁজখবর নিচ্ছি’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com