সংবাদ শিরোনাম :
শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল ছাত্র তানভীর হত্যার প্রতিবাদে শোকসভা কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করা হচ্ছে : আইজিপি। বিদ্রোহীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ। নানক। কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার করে ফাঁসির দাবীতে  গোবিন্দগঞ্জে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে সার্কেল ডে অনুষ্ঠিত। ‌থানার দরজা হবে সেবাগ্রহীতার জন্য উম্মূক্ত- সার্কেলের নবাগত সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মুরাদ  বাহুবলে জামাল হত্যা মামলার বাদিকে হত্যার হুমকি । হবিগঞ্জের বাহুবলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩ জন, সড়ক অবরোধ‌ আ.লীগ থেকে বহিষ্কার হবিগঞ্জের মেয়র মিজানুর রহমানের স্ত্রী শায়েস্তাগঞ্জে গরির রাতে নগদ টাকা ও গাঁজার আস্তানায় অভিযান, গ্রেপ্তার-৫
কবুতরের হাট থেকে কোটি টাকার চাঁদা!

কবুতরের হাট থেকে কোটি টাকার চাঁদা!

কবুতর

পুরান ঢাকার কাপ্তানবাজার কমপ্লেক্সে কবুতরের হাটে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছেন ক্ষমতাসীন দলের পরিচয়ে কিছু যুবক। হাটটি বহু বছরের পুরোনো। তবে এর বৈধতা নেই।

কাপ্তানবাজারে কবুতরের হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছেন মামুন মোল্লা (ডানে) ও তাঁর সহযোগীরা  ।

কাপ্তানবাজার কমপ্লেক্সের মালিক ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। দ্বিতল এই মার্কেটের ছাদে প্রতি শুক্রবার দিনব্যাপী কবুতরের হাট বসে। আট বছর ধরে এই ছাদে বসছে হাট। এখন প্রতি হাটবারে আড়াই থেকে তিন হাজার ক্রেতা-বিক্রতার সমাগম হয়। বেচাবিক্রি হয় ১০ লাখ টাকার বেশি। এর মধ্যে ক্রেতা ও বিক্রেতা প্রত্যেকের কাছ থেকে আলাদাভাবে শতকরা ১০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করেন তাঁরা। সেই হিসাবে প্রতি হাটে এক লাখ টাকা চাঁদা আদায় করে চক্রটি। গত আট বছরের হিসাব ধরলে এই হাট থেকে প্রায় এক কোটি টাকা চাঁদাবাজি হয়েছে।

তবে ডিএসসিসি জানিয়েছে, এই হাটের কোনো অনুমোদ বা ইজারা দেওয়া হয়নি। হাটটি অবৈধ। তাই টাকা আদায় করার কোনো কারণ নেই। এলাকাটি ডিএসসিসির ৩৮ নম্বর ওয়ার্ডের আওতাধীন।

ক্রেতা-বিক্রেতাদের অভিযোগ, পশুর হাটে গরুর ক্রয় বাবদ শতকরা হাসিল ৩ টাকা ৫০ পয়সা। আর হাসিল দেন ক্রেতা। অন্যদিকে এই কবুতরের হাটে শতকরা ১০ টাকা হারে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের কাছ থেকে টাকা আদায় করছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। কিন্তু তাঁদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না সংশ্লিষ্টরা। এই মার্কেটের কয়েক শ মিটারের মধ্যে নগর ভবন (ডিএসসিসি)।

স্থানীয় বাসিন্দা ও কাপ্তানবাজার কমপ্লেক্সের ব্যবসায়ীরা বলেন, আগে এই কমপ্লেক্সের সামনের রাস্তায় কবুতরের হাট বসত। তখন তা নিয়ন্ত্রণ ও হাসিলের নামে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করতেন বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আশার পর হাটটি কাপ্তানবাজার কমপ্লেক্সের ছাদে নিয়ে আসেন ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতা হিসেবে পরিচিত মামুন মোল্লা। এরপর থেকে হাটটি তাঁর নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। তবে চাঁদার টাকা তিনি একা খান না।

                            কবুতরের হাট

হাট থেকে চাঁদা তোলার কথা অকপটে স্বীকার করেছেন মামুন মোল্লা। তিনি বলেন, ‘আমি দলের পদপদবিতে নেই। তবে হাসিলের টাকা দলের সবাইকে (ছোট-বড়) কিছু কিছু করে দিই। অন্যথায় হাট চালানো যাবে না।’ দলের কাদের টাকার ভাগ দিতে হয়, জানতে চাইলে তাঁদের নাম বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি। একপর্যায়ে মামুন বলেন, ‘এই হাট ইজারার জন্য অনেকেই সিটি করপোরেশনে আবেদন করেছে, আমিও করেছি। কিন্তু মারামারি বা খুনোখুনির ভয়ে ডিএসসিসি ইজারা দিচ্ছে না। ডিএসসিসি বলছে, সবাই মিলেমিশেই যেন হাটটি চালাই।’

তবে ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আশিকুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার দল ও অঙ্গসংগঠনে মামুন মোল্লা নামের কেউ নেই। এই নামে কাউকে চিনি না। দলের নাম ভাঙিয়ে এই ধরনের কাজ করে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।’

গতকাল শুক্রবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, কাপ্তানবাজার কমপ্লেক্সের ছাদে বিভিন্ন জাতের, রঙের কবুতর নিয়ে বসে আছেন দুই শতাধিক বিক্রেতা। দরদাম করছেন ক্রেতারা। অন্যদিকে মার্কেটের সিঁড়ি ঘরের সামনের দরজায় টোকেন দিয়ে চাঁদা তুলছেন মামুন মোল্লাসহ অন্তত সাতজন। তাঁরা কবুতরের দরদাম জেনে শতকরা ১০ টাকা হারে চাঁদা তুলছেন। একই হারে বিক্রেতাদের কাছ থেকে চাঁদা নেওয়া হচ্ছে। টোকেন নিয়ে দেখা গেল, তাতে শুধু টাকার পরিমাণ লেখা। ছাদে দেওয়া এই টোকেন নিচতলায় আরেকজনের কাছে জমা দিয়ে মার্কেট থেকে বের হতে হয়।

গতকাল বিকেলে দুই হাজার টাকা দিয়ে এক জোড়া চিলা কবুতর কিনেছেন সিদ্দিক বাজারের বাসিন্দা আবু তৈয়ব। এ জন্য তাঁকে ২০০ টাকা চাঁদা দিতে হয়েছে। আবু তৈয়ব বলেন, ‘এই হাটে প্রায়ই কবুতর কিনতে আসি। অনেক সময় বিক্রিও করি। তবে চাঁদার টাকা সব সময় পকেটে রাখতে হয়। এটা এখন জুলুমের বাজার।’ প্রায় একই কথা বলেছেন শাহজাহানপুরের বাসিন্দা সোহেল রানা।

add_Lokaloy24bd@gmail.com

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বিক্রেতা বলেন, প্রতি শুক্রবার এই হাটে বিভিন্ন প্রজাতির ২০ থেকে ২৫ জোড়া কবুতর নিয়ে আসেন তিনি। এ জন্য তাঁকে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা চাঁদা দিতে হয়। এতে তাঁর আয়ের একটি অংশ চলে যাচ্ছে। হাটটি সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে ইজারা দিয়ে চালানো অথবা এই চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানান তিনি।

ডিএসসিসির ৩৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী প্রথম আলোকে বলেন, ‘এই কবুতরের হাটটি একাধিকবার উচ্ছেদ করেছি। কিন্তু দলের নাম ভাঙিয়ে কিছু অসাধু লোক আবার সেখানে হাট বসিয়েছেন।’ তিনি আরও বলেন, বিষয়টি ডিএসসিসির মেয়র সাঈদ খোকনকে জানানো হবে। এমন অব্যবস্থাপনায় তা চলতে পারে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com