সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের

কণ্ঠসৈনিক শাহীন সামাদের জন্মদিন আজ

‘মুক্তির গান’র শিল্পী হিসেবে ১৯৭১ সালে গানের ফেরিওয়ালা হয়ে ঘুরেছেন শরণার্থী শিবির থেকে রণাঙ্গন পর্যন্ত। গানে গানে সাহস জুগিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা আর সাধারণ মানুষকে। গানের এ পাখির নাম শাহীন সামাদ। আজ এই সংগীতশিল্পীর জন্মদিন।

১৯৫২ সালের ২৭ ডিসেম্বর কুষ্টিয়াতে জন্মগ্রহণ করেন শাহীন সামাদ। তার দাদার বাড়ি নোয়াখালীতে। তবে তার শৈশব কেটেছে ভারতের শিলিগুড়িতে। তার বাবার নাম শামসুল হুদা ও মা শামসুন্নাহার রহিমা খাতুন। তার স্বামীর নাম হাবিব-উস-সামাদ।

সংগীতপ্রেমীরা নজরুল সংগীতশিল্পী হিসেবে চিনলেও শাহীন সামাদের সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি ১৯৭১-এর কণ্ঠসৈনিক। তিনি স্বাধীন বাংলা বেতোর কেন্দ্রের কণ্ঠশিল্পী। তবে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানুষকে জাগাতে মাত্র ১৮ বছর বয়সে দলের সঙ্গে পথে পথে গান করে বেড়িয়েছেন তিনি।

সেইসময় ১৪৪ নাম্বার লেলিন স্মরণীতে ‘বাংলাদেশ মুক্তি সংগ্রামী শিল্পী সংস্থা’ নামে একটি সংগঠন গঠিত হয়েছে। সেখানে ছিলেন সৈয়দ হাসান ইমাম, মুস্তাফা মনোয়ার, আলী যাকের, আসাদুজ্জামান নূর, তারেক আলী, মুসাদ আলী, বিপুল ভট্টাচার্য্য, শারমীন মুরশেদ, নায়লা, বুলবুল মহানুবীশ, লতা চৌধুরীর মতো সাংস্কৃতিক ব্যক্তি ও বুদ্ধিজীবীরা। সেখানে তিনি গেয়েছেন ‘জনতার সংগ্রাম চলবেই’, ‘চলো যাই চলো যাই’, ‘দেশে দেশে’, ‘কারার ওই লৌহ কপাট’, ‘শিকল পরার ছল’, ‘জাগো জাগো প্রতিবাদী হও’, ‘আমার প্রতিবাদের ভাষা’, ‘এসো মুক্তি রণের সাথী’, ‘পাক পশুদের মারতে হবে’, ‘শোনেন শোনেন ভাই সবে’সহ আরও কিছু গান। এই সংগঠনের হয়ে দেশের জন্য কাজ করার স্মৃতিই শাহীন সামাদের জীবনের সেরা স্মৃতি বলে মনে করেন তিনি।

শাহীন সামাদ ১৩ বছর বয়সে প্রবেশ করেন সংগীত শিক্ষালয় ছায়ানটে। তিনি রাম গোপাল, সনজীদা খাতুন, সুধীন দাশ, ফজলুল হক মিয়া, ফুল মোহাম্মদের মতো গুণী মানুষদের কাছ থেকে গানের তালিম নিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের পর নিজেকে নজরুল সংগীতশিল্পী হিসেবে গড়ে তুলেন তিনি। করিম-উল আলম, ফিরোজা বেগম, ফেরদৌসি রহমানসহ আরও অনেকের গান শুনে অনুপ্রাণিত হয়েছেন নজরুল গানে।

এখনো তিনি নিয়মিতই গান করেন। নিয়মিতই করেন সংগীত চর্চা। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে পেয়েছেন নানা রকম সম্মাননা ও স্বীকৃতি। তারমধ্যে অন্যতম চলতি বছরে একুশে পদক প্রাপ্তি।

জন্মদিনের এই বিশেষ দিনে শাহীন সামাদ সিক্ত হচ্ছেন শ্রোতা-ভক্ত ও অনুরাগীদের ভালোবাসায়। চ্যানেল আই তার জন্মদিন উপলক্ষে বিশেষ আয়োজন করেছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জ্বল এবং সংগীতপ্রেমী কোটি হৃদয়ের ভালোবাসার মানচিত্রে আঁকা থাকুক নন্দিত নাম- শাহীন সামাদ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com