সংবাদ শিরোনাম :
‘হাওয়া’ ছবিতে বন্য প্রাণী আইন লঙ্ঘিত হয়েছে, দাবি বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের আগামীতে সিলেট-নিউইয়র্ক সরাসরি ফ্লাইট: বিমান প্রতিমন্ত্রী কাতার বিশ্বকাপ একদিন এগিয়ে আনলো ফিফা ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত সমুদ্রবন্দরে, বৃষ্টির পূর্বাভাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে ভাবছে সরকার : শিক্ষামন্ত্রী অটোরিকশা থেকে লাফ দিয়ে পড়ে মারা গেলেন শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল শিক্ষিকা সুপ্তা বৈশ্বিক মন্দায়ও অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ভালো আছে : সিলেটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মা সেতু হয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গেলেন প্রধানমন্ত্রী নবীগঞ্জে গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনায় গ্রাহকরা মাকে খুন করে লাশের পাশেই রাত কাটালেন ছেলে

কণ্ঠসৈনিক শাহীন সামাদের জন্মদিন আজ

‘মুক্তির গান’র শিল্পী হিসেবে ১৯৭১ সালে গানের ফেরিওয়ালা হয়ে ঘুরেছেন শরণার্থী শিবির থেকে রণাঙ্গন পর্যন্ত। গানে গানে সাহস জুগিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা আর সাধারণ মানুষকে। গানের এ পাখির নাম শাহীন সামাদ। আজ এই সংগীতশিল্পীর জন্মদিন।

১৯৫২ সালের ২৭ ডিসেম্বর কুষ্টিয়াতে জন্মগ্রহণ করেন শাহীন সামাদ। তার দাদার বাড়ি নোয়াখালীতে। তবে তার শৈশব কেটেছে ভারতের শিলিগুড়িতে। তার বাবার নাম শামসুল হুদা ও মা শামসুন্নাহার রহিমা খাতুন। তার স্বামীর নাম হাবিব-উস-সামাদ।

সংগীতপ্রেমীরা নজরুল সংগীতশিল্পী হিসেবে চিনলেও শাহীন সামাদের সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি ১৯৭১-এর কণ্ঠসৈনিক। তিনি স্বাধীন বাংলা বেতোর কেন্দ্রের কণ্ঠশিল্পী। তবে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানুষকে জাগাতে মাত্র ১৮ বছর বয়সে দলের সঙ্গে পথে পথে গান করে বেড়িয়েছেন তিনি।

সেইসময় ১৪৪ নাম্বার লেলিন স্মরণীতে ‘বাংলাদেশ মুক্তি সংগ্রামী শিল্পী সংস্থা’ নামে একটি সংগঠন গঠিত হয়েছে। সেখানে ছিলেন সৈয়দ হাসান ইমাম, মুস্তাফা মনোয়ার, আলী যাকের, আসাদুজ্জামান নূর, তারেক আলী, মুসাদ আলী, বিপুল ভট্টাচার্য্য, শারমীন মুরশেদ, নায়লা, বুলবুল মহানুবীশ, লতা চৌধুরীর মতো সাংস্কৃতিক ব্যক্তি ও বুদ্ধিজীবীরা। সেখানে তিনি গেয়েছেন ‘জনতার সংগ্রাম চলবেই’, ‘চলো যাই চলো যাই’, ‘দেশে দেশে’, ‘কারার ওই লৌহ কপাট’, ‘শিকল পরার ছল’, ‘জাগো জাগো প্রতিবাদী হও’, ‘আমার প্রতিবাদের ভাষা’, ‘এসো মুক্তি রণের সাথী’, ‘পাক পশুদের মারতে হবে’, ‘শোনেন শোনেন ভাই সবে’সহ আরও কিছু গান। এই সংগঠনের হয়ে দেশের জন্য কাজ করার স্মৃতিই শাহীন সামাদের জীবনের সেরা স্মৃতি বলে মনে করেন তিনি।

শাহীন সামাদ ১৩ বছর বয়সে প্রবেশ করেন সংগীত শিক্ষালয় ছায়ানটে। তিনি রাম গোপাল, সনজীদা খাতুন, সুধীন দাশ, ফজলুল হক মিয়া, ফুল মোহাম্মদের মতো গুণী মানুষদের কাছ থেকে গানের তালিম নিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের পর নিজেকে নজরুল সংগীতশিল্পী হিসেবে গড়ে তুলেন তিনি। করিম-উল আলম, ফিরোজা বেগম, ফেরদৌসি রহমানসহ আরও অনেকের গান শুনে অনুপ্রাণিত হয়েছেন নজরুল গানে।

এখনো তিনি নিয়মিতই গান করেন। নিয়মিতই করেন সংগীত চর্চা। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে পেয়েছেন নানা রকম সম্মাননা ও স্বীকৃতি। তারমধ্যে অন্যতম চলতি বছরে একুশে পদক প্রাপ্তি।

জন্মদিনের এই বিশেষ দিনে শাহীন সামাদ সিক্ত হচ্ছেন শ্রোতা-ভক্ত ও অনুরাগীদের ভালোবাসায়। চ্যানেল আই তার জন্মদিন উপলক্ষে বিশেষ আয়োজন করেছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জ্বল এবং সংগীতপ্রেমী কোটি হৃদয়ের ভালোবাসার মানচিত্রে আঁকা থাকুক নন্দিত নাম- শাহীন সামাদ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com