কচুরলতি বিক্রি করলে খাবার জুটে আসুলতার

কচুরলতি বিক্রি করলে খাবার জুটে আসুলতার

কচুরলতি বিক্রি করলে খাবার জুটে আসুলতার
কচুরলতি বিক্রি করলে খাবার জুটে আসুলতার

স্বামী-সন্তান নেই। মাথা গোজার জন্য নিজের ভিটেও নেই। নেই বলতে কিছুই নেই। পরের বসতঘরে  কোন রকম রাত পার করে সাত সকালেই দুই মুঠো ভাত জুগার করার তাগিদে প্রতিদিনেই বেরিয়ে যান বৃদ্ধা। সবাই ছেড়ে চলে গেলেও লতির সাথে রয়েছে গভীর সম্পর্ক আসুলতার। কচুরলতি বিক্রি করে  আর মানুষের ধারে ধারে ভিক্ষা করে বয়সের বাড়ে নোয়ে পড়া বৃদ্ধা এভাবেই  জীবন পার করে নিচ্ছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস এমনি অসহায় এক বৃদ্ধার  দেখা মিলে উপজেলার  বুল্লা বাজারে।
নাম তার আসুলতা সরকার। বয়স তার আনুমানিক (৮০)। বাজারের দোকানের পাশে বসে কি যেন ভাবছে আর দীর্ঘশ্বাস ফেলছে। তখনই জিজ্ঞাসা করা হয় তাকে। আপনার বাড়ি কোথায়। আপনার নাম কি। এ সময় কোন উত্তর মিলছে না। শ্রবণ শক্তি কম তাকায় দুই-এক বার জিজ্ঞাসা করার এক পর্যায়ে  ওই বৃদ্ধা   হাউ মাউ করে কেঁদে ফেলেন। অকপটে এ সময়  তিনি এ প্রতিনিধি কে বলেন প্রায় ৩০ বছর আগে স্বামীকে হারান তিনি। স্বামী রায় চাঁন সরকারের জীবিত কালীন সময়ে তার ঔরসজাত এক মেয়ে পানিতে ডুবে আরেক মেয়ে বিয়ের দেওয়ার পর অসুক বিসুকে মারা যায়।এর পর থেকে পেটের ভাত যোগাতে এলাকায় আনাছে কানাছে  কচুর লতি কুড়িয়ে  বিক্রি করে  আর ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন পার করে আসছেন আসুলতা। এখন আমার নেই বলতে কিছুই নেই। যা ছিল সবই হারিয়ে পেলেছি। বাবা এখন শুধু সবই স্মৃতি।
এরপর থেকেই এ প্রতিনিধি ওই বৃদ্ধার  খোঁজ নিতে গত শনিবার  (১১ জানুয়ারি)  উপজেলার ভাটি এলাকার গোপালপুর গ্রামে গিয়ে সুনন্দ সরকারের বাড়িতে দেখা মিলে আসুলতার। ঘরের একটি কক্ষের মাটিতে এক টুকরো কম্বল যেন তেন একটা ছোট ছাদর গায়ে দিয়ে ঘুমিয়ে রয়েছে। বাড়ির মালিক সুনন্দ সরকারের স্ত্রী মালতী সরকারের কাছে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে আসুলতার কথা জিজ্ঞাসা করলে ঘুম থেকে ডেকে নিয়ে আসেন এই বৃদ্ধাকে।
মালতী সরকার জানান, আমাদের দূরসম্পর্কের আত্মীয় আসুলতার কেউ না তাকার সুবাধে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের বাড়িতে থাকছেন। একেইত স্বামীর সংসারে আমরা অভাব অনটনে ভুগছি। যে কারনে আসুলতার খাবার যোগান দেওয়া আমদের কষ্ট হয়ে যায়। এই বৃদ্ধ বয়সে আসুলতা এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে গিয়ে কছুর লতি কুড়িয়ে বিক্রি করে যা-ই পায় তা দিয়ে কোন রকম বেছে খেয়ে দিন কাটায়। যে দিন লতা কুড়িয়ে পায় নি সে দিন ভিক্ষা করে ডাল চাল নিয়ে আসে। কান্না জরিত কন্ঠে আসুলতা সরকার বলেন, আমি বয়ষ্ক বা বিধবা ভাতা কিছুই  পাইনি। এলাকার কোন চেয়ারম্যান মেম্বার আমার খোজ খবরও নেয় না।
গ্রামের রতীশ নামের এক জন বলেন বিধির কি বিধান  ঝর বৃষ্টি উপেক্ষা করে খাবার সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন স্থানে যায় এই বয়সে।আসলেই তাকে দেখলে  অনেক কষ্ট হয়।
পল্লী চিকিৎসক নিশি কান্ত সরকার এ প্রতিনিধি কে  জানান, আসুলতা  বর্ষার সময় কষ্ট করে  কছুুর লতি সংপ্রহ করে সাতরিয়ে এবাড়ি থেকে ওবাড়ি গিয়ে বিক্রি করেন। তিনি নিজেও মাঝে মধ্যে তার নিকট থেকে লতি কিনে তাকেন। তবে আসুলতাকে সবাই বেলি নামে বেশি চিনেন বলে জানান তিনি।
গোপালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কানু চন্দ্র দাস বলেন, আমি তাকে  ভাল ভাবেই চিনি। তিনি প্রায়ই আমাদের স্কুলে আসেন। যতটুকু পারি সাধ্য অনুযায়ী তাকে যথসামান্ন সাহায্যে সহযোগিতা করে তাকি। সমাজের বৃত্তবানদের ওই অসহায় বৃদ্ধার প্রতি  নজর দেওয়া প্রয়োজন বলে জানান তিনি। এ দিকে সাধারণ মানুষেরা মনে করেন সমাজের ধনী বা বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষ ও সরকার যদি  একটু নজর দেয় তা হলে  অবহেলিত অসহায় আসুলতা দুই মুঠো ভাত খেয়ে বেচেঁ থাকতে পারবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com