ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস

ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস

ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস
ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস

আবুল কালাম আজাদ, চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ): আজ ৩০ জুন ঐতিহাসিক সাঁওতাল দিবস। সাঁওতাল বিদ্রোহের ১৬৪ বছর পূর্ণ হলো।

এদিনটিকে প্রতি বছরই স্মরণ করেন চুনারুঘাটের চা বাগানের প্রায় ১২ হাজার সাঁওতাল জনগোষ্ঠী।

তাদের ভাষায় দিনটি ‘সানতাল বিদ্রোহ দিবস’। তাই প্রতি বছরের মতো এবারও চুনারুঘাটের চান্দপুর চা বাগানে নানা আয়োজনে দিবসটি পালন করা হয়।

‘সিধু কানু জেগেছে, বৃটিশ শাসন ভেঙ্গেছে, এ গানে গানে সাঁওতালরা প্রতি বছর স্মরণ করে তাদের পূর্ব পুরুষদের।

এ উপলক্ষ্যে চান্দপুর চা বাগানে কয়েক হাজার চা শ্রমিকের সমাগম ঘটে। সকাল থেকে বিকেলে পর্যন্ত র‌্যালী, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলে একটানা। সাওতালদের সাথে এবারই প্রথম তাদের অনুসারী মুন্ডা সম্প্রদায় কয়েক হাজার শ্রমিক যোগ দেয় এ অনুষ্ঠানে। এতে চা বাগান শ্রমিক নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন বাগানের সাওতাল নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এদিন সাঁওতাল সম্প্রদায় তীর-ধনুক নিয়ে মাঠে নামে। দূরে থাকা কলাগাছ দিয়ে তৈরী বৃটিশ শাসককে লক্ষ্য করে তীর ছোড়ে তারা। সাঁওতালদের ভাষায় এই খেলাটির নাম ‘আ পরী তুইন এনেইদ’। অন্য পাশে থাকে আরেক দল আদিবাসী। চোখে গামছা বেঁধে লাঠির আঘাতে তারা ভেঙে দিচ্ছে দূরে রাখা মাটির হাঁড়িগুলো।

সাঁওতালরা একে বলে ‘টুকুই রাপুত এনেইদ’। এই খেলা দুটির মাধ্যমে সাঁওতালরা মূলত অশুভ শক্তির প্রতীকী বিনাশ ঘটায়। আদিবাসীরা সেদিন মেতে ওঠে নানা খেলায়।

ঐতিহাসিক সাওঁতাল দিবস নিয়ে কথা হয় সাওঁতাল ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও হবিগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি স্বপন সাওতালর সাথে।

তিনি জানান, ‘এটা সিদা-কানু দিবস।’ সিদু, কানু, চাঁদ ও ভৈরব ছিল চার ভাই। তাদের জন্ম সাঁওতাল পরগনার ভাগনাদিহি গ্রামের এক দরিদ্র সাঁওতাল পরিবারে। সাঁওতালরা তখন বন কেটে জমি তৈরি করে ফসল ফলাত। আর বৃটিশ শাসকদের শকুনদৃষ্টি পড়ত সেই জমিতে।

বৃটিশ শাসকদের কাছে সাঁওতালদের দেনার জের মিটত না ১০ গুণ পরিশোধের পরও। তাই সপরিবারে বৃটিশ মহাজনদের বাড়িতে গোলামি খাটতে হতো তাদের। সাঁওতালরা আদালত আর পুলিশ থেকেও কোনো সাহায্য পেত না। বরং ওরা কাজ করত শোষকশ্রেণীর স্বার্থে। এতে ক্রমেই সাঁওতালদের মনে চাপা ক্ষোভ দানা বাঁধতে থাকে। এক সময় তারা মহাজন আর বৃটিস সরকারকে শক্রু ভাবতে থাকে। ১৬৪ বছরেও আদায় হয়নি তাদের অধিকার।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের ছেলে-মেয়েদের ঠিকভাবে দু’বেলা খাবার দিতে পারি না। অসুস্থ হলে চিকিৎসা করাতে পারি না। আর লেখাপড়া করানোর কথাতো চিন্তাই করা সম্ভব হয় না। তবু অনেক সাঁওতাল ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়া করছে। কিন্তু তারা সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে না।’

ইতিহাসের পাতা থেকে জানা যায়, বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ ও বিহারের ভাগলপুর জেলায় দামিন-ই কোহ ছিল সাঁওতালদের নিজস্ব গ্রাম, নিজস্ব দেশ। গভীর বন-জঙ্গল পরিষ্কার করে জায়গাটি বাসযোগ্য করে গড়ে তোলেন তারা। পরে সেখানে ধান, ভুট্টা, সবজিসহ সোনালি বিভিন্ন ফসল আবাদ শুরু করেন। ধীরে ধীরে সুখের রাজ্য হয়ে উঠেছিল দামিন-ই কোহ।

কিন্তু হঠাৎই সেখানে কুনজর পড়ে জমিদার, মহাজন ও ব্যবসায়ী শোষক শ্রেণির। দলে দলে আসতে শুরু করে সাঁওতাল পরগনায়। সহজ সরল সাঁওতালদের ভুল বুঝিয়ে নিয়ে যেতে থাকে তাদের উৎপাদিত শস্য। এক সময় কৃতদাসের মতো খাটানো শুরু হয় সাঁওতালদের।

বিনিময়ে সাঁওতালদের দেওয়া হতো সামান্য চাল, ডাল, লবণ, অর্থ আর তামাক। এই শোষণের মদদ দিতো ব্রিটিশরা। এক পর্যায়ে সাঁওতালরা শোষণের বিষয়টি বুঝতে পেরে প্রতিবাদ শুরু করে।

১৮৫৫ সালের ৩০ জুন সাঁওতাল সম্প্রদায়ের চার ভাই সিধুঁ, কানহু, চান্দ ও ভাইরো জমিদার, ব্যবসায়ী ও ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। তাদের নেতৃত্বে যোগ দেন পুরো সাঁওতাল সম্প্রদায়। সাওতাঁলরা তীর-ধনুক ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে যুদ্ধ করেন। অন্যদিক শোষকদের হাতে ছিল বন্দুক। ফলে কুলিয়ে উঠতে পারছিল না সাঁওতাল সম্প্রদায়। তবুও থেমে থাকেনি, থেমে থেমে লড়াই চালিয়ে গেছেন।

এ সময় নেতৃত্বদানকারী চার ভাই যুদ্ধে শহীদ হন। এর মধ্য দিয়ে ১৮৫৬ সালের নভেম্বর মাসে এই বিদ্রোহ শেষ হয়। পরাজয় বরণ করতে হয় সাঁওতালদের। এ যুদ্ধে ইংরেজ সেনাসহ প্রায় ১০ হাজার সাঁওতাল শহীদ হয়েছিলেন।

ভারতের বিভিন্ন স্থানসসহ বাংলাদেশের বেশ কিছু জায়গায় বিচ্ছিন্নভাবে বাস করেন সাঁওতালরা।

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট, মাধবপুর ও বাহুবল উপজেলার চা বাগানগুলোতে তাদের উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বসবাস। তিন উপজেলায় অন্তত ২০ হাজার সাঁওতাল থাকেন। ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহের চেতনাকে এখনও তারা হৃদয়ে লালন করেন।নানা আয়োজনে প্রতি বছরই দিনটি পালন করেন তারা।

তারা এখনও তারা নিরবচ্ছিন্ন শ্রম দিয়ে বাঁচিয়ে রেখেছেন চা শিল্পকে। এই চা আজ জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রেখে চললেও সাঁওতালদের অর্থনৈতিক অবস্থা বদলায় যেন এতটুকুও। আজও তারা মাত্র ১০২ টাকা দৈনিক মজুরিতে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করেন। নুন আনতে পান্তা ফুরালেও তাদের দিকে তাকানোর সময় নেই যেন কারোরই।

শিক্ষা-চিকিৎসা বঞ্চিত সাঁওতাল সম্প্রদায় এখনও যেন আধুনিক দাসই রয়ে গেছেন। নিজ দেশে অনেকটা পরবাসীর মতো জীবন-যাপন করছেন তারা। জীবনের দৈন্যদশায় তাদের বেঁচে থাকাটাই কষ্টকর হয়ে পড়েছে। বেশিরভাগেরই সম্ভব হচ্ছে না সন্তানদের লেখাপড়া করানো।

চানপুর চা বাগানের শ্রমিক মনমোহন সাঁওতাল বলেন, আমাদের পূর্বপুরুষরা অধিকার আদায়ের জন্য জীবন দিয়েছিলেন। কিন্তু এখনও আমরা সেই অধিকার পাইনি। মাত্র ১০২ টাকা মজুরিতে সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে আমাদের। যে জমিকে বাসযাগ্য করে তুলেছিলেন আমাদের পূর্বপুরুষরা, সেই জমিতে আজ আমাদের অধিকার নাই!

চন্ডিছড়া চা বাগানে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী অরুণ সাঁওতাল বলেন, অনেক বেশি লেখাপড়ার ইচ্ছে ছিল, কিন্তু মনে হয় পারব না। কাছে কোনো কলেজ নেই। অনেক দূর গিয়ে কলেজে ক্লাস করতে হয়। প্রতিদিন অনেক টাকা গাড়িভাড়া লাগে। যা আমার চা শ্রমিক মা-বাবার পক্ষে দেওয়া সম্ভব না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com