এয়ারফোর্স ওয়ানের রেফ্রিজারেটরের দাম ২৪ মিলিয়ন ডলার!

এয়ারফোর্স ওয়ানের রেফ্রিজারেটরের দাম ২৪ মিলিয়ন ডলার!

এয়ারফোর্স ওয়ান

 

লোকালয় ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বহনকারী এয়ারফোর্স ওয়ানের বিভিন্ন প্রযুক্তি ও সেবা হালনাগাদ করা হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে বিশেষ এই উড়োজাহাজে সংযুক্ত হচ্ছে নতুন রেফ্রিজারেটর সিস্টেম। এ জন্য ব্যয় হবে প্রায় ২৪ মিলিয়ন ডলার।

মার্কিন বিমানবাহিনী গত ডিসেম্বরেই বোয়িং ৭৪৭ উড়োজাহাজটির পাঁচটি ফ্রিজের মধ্যে দুটি প্রতিস্থাপনের জন্য ২৩ দশমিক ৬ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করে। এই দুই ফ্রিজের প্রযুক্তি পুরোনো হওয়ায় তা হালনাগাদ করতে এই অর্থ বরাদ্দ করা হয় বলে সম্প্রতি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
এ বিষয়ে বিমানবাহিনীর মুখপাত্র অ্যান স্টেফানেক সিএনএনকে বলেন, ‘এয়ারফোর্স ওয়ানের নিচের অংশে বর্তমানে যে দুটি রেফ্রিজারেটর যন্ত্র আছে, তা ১৯৯০ সালে স্থাপন করা হয়েছিল। এর প্রযুক্তি বেশ পুরোনো। এতে অল্প সময়ের জন্য খাদ্য সংরক্ষণ করা যায়। নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামত করা হলেও এর কার্যকারিতা দিন দিন কমছে। সম্প্রতি বেশ কয়েকবার সেগুলো অকেজো হয়েছিল। বিশেষত তপ্ত ও উচ্চ আর্দ্রতাপূর্ণ আবহাওয়ায় বেশ সমস্যা হয়। এ কারণে এগুলো বদলে নতুন ও হালনাগাদ প্রযুক্তির রেফ্রিজারেটর স্থাপন করা হচ্ছে।’
মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এয়ারফোর্স ওয়ান বিশেষায়িত একটি উড়োজাহাজ। একই সঙ্গে এটি সংবেদনশীলও। এ কারণে এর বিভিন্ন সরঞ্জাম ফেডারেল অ্যাভিয়েশন প্রশাসন বিশেষভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও রক্ষণাবেক্ষণ করে। এই তদারকি ও রক্ষণাবেক্ষণের ব্যয়ও নতুন রেফ্রিজারেটরের ব্যয়ের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। ২৪ মিলিয়ন ডলারের যে চুক্তি করা হয়েছে, তার অধীনে নতুন কেনা রেফ্রিজারেটরের নকশা, উৎপাদন, স্থাপন ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যয় নির্বাহ করা হবে।
অ্যান স্টেফানেক বলেন, ‘নতুন রেফ্রিজারেটর সিস্টেম এমনভাবে স্থাপন করা হচ্ছে যাতে বিদেশ সফরের সময় অন্তত ৭০ ঘনফুট আয়তনের খাবার সংরক্ষণ করা যায়। এতে বিদেশ সফরের সময় নতুন করে খাবার সংরক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে না। এই বিশেষ রেফ্রিজারেটরটি স্থাপনের জন্য এয়ারফোর্স ওয়ানের ভেতরেও কিছু কাঠামোগত পরিবর্তন করতে হবে। একই সঙ্গে প্রকৌশলী, নকশা, উৎপাদনসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যয়ও এই মোট বরাদ্দের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।’
সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সাবেক উপদেষ্টা এরিক শুলজ এ বিষয়ে এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘আমাদের সময় এটা (এত উচ্চ ব্যয়ে রেফ্রিজারেটর স্থাপন করতে) হলে অভিশংসনের মুখে পড়তে হতো।’
অবশ্য আমেরিকায় প্রতিরক্ষা বিভাগের বিভিন্ন যানের ক্ষেত্রে উচ্চ ব্যয়ের সমালোচনা এই প্রথম নয়। এর আগে বারাক ওবামার সময়ে প্রেসিডেন্টের জন্য নতুন একটি হেলিকপ্টার তৈরির বাজেট নিয়েও বিস্তর সমালোচনা হয়েছিল। সে সময় ওই হেলিকপ্টারের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছিল ১১ বিলিয়ন ডলার। সমালোচনার মুখে পরে ওই ব্যয় কমিয়ে আনতে হয়েছিল ওবামা প্রশাসনকে। আর এয়ারফোর্স ওয়ানের রেফ্রিজারেটর হালনাগাদকরণে এত উচ্চ ব্যয় নিয়ে সমালোচনা হওয়াটা আরও স্বাভাবিক। কারণ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের সময়ই ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট হলে এত ব্যয়বহুল এয়ারফোর্স ওয়ান পোষার বদলে তিনি নিজের ব্যক্তিগত জেট ব্যবহার করবেন। কিন্তু ওভাল অফিসে ঢোকার পর থেকে তিনি আগের প্রেসিডেন্টদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে বিদেশ সফরের ক্ষেত্রে এয়ারফোর্স ওয়ানই ব্যবহার করছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com